দুপুর ০৩:১১ ; শুক্রবার ;  ১৮ অক্টোবর, ২০১৯  

সহজ শর্তে নেপাল-ভুটানে পণ্য পরিবহনের পরামর্শ

প্রকাশিত:

সম্পাদিত:

বাংলা ট্রিবিউন রিপোর্ট॥

সহজ শর্তে নেপাল ও ভুটানে পণ্য পরিবহনের পরামর্শ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রীর অর্থনৈতিক উপদেষ্টা ড. মশিউর রহমান।পাশাপাশি তিনি বাংলাদেশ-ভারতের মধ্যকার চুক্তি 'প্রটোকল অন ইনল্যান্ড ওয়াটার ট্রানজিট অ্যান্ড ট্রেড- পি আই ডব্লিউ টি টি'কে আরও কার্যকর করতে এ পরামর্শ দেন।

এদিকে, চুক্তিটি নবায়নকালে ট্রানজিট ফি নির্ধারণে স্থানীয় বাজার ব্যবস্থাকে গুরুত্ব দেওয়ার পক্ষে মত দেন বাংলাদেশে নিযুক্ত ভারতীয় হাইকমিশনার পঙ্কজ স্মরণ।

মেট্রোপলিটন চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রি'র মিলনায়তনে বুধবার ট্রানজিট বিষয়ক এক সেমিনারে অংশ নিয়ে এ সব কথা বলেন তারা।

স্বাধীনতার পরপরই দ্বিপাক্ষিক বাণিজ্য বাড়াতে, ১৯৭২ সালে বাংলাদেশ ও ভারতের মধ্যে স্বাক্ষরিত হয় 'প্রটোকল অন ইনল্যান্ড ওয়াটার ট্রানজিট অ্যান্ড ট্রেড- 'পি আই ডব্লিউ টি টি' চুক্তি। তবে দীর্ঘদিন ধরে এ চুক্তির আওতায় বাংলাদেশের ভূখণ্ড ব্যবহার করে ভারত তাদের এক অঞ্চল থেকে অন্য অঞ্চলে পণ্য পরিবহন করছে- ট্রানজিট ফি ছাড়াই।

এমন অবস্থায় বেশ কয়েক বছর ধরেই চুক্তিটি নবায়নকালে ট্রানজিট ফি নির্ধারণের পক্ষে বাংলাদেশ অবস্থান নিলেও তা কার্যকর হয়নি এখনও।

ট্রানজিট বিষয়ক এ সেমিনারে অংশ নিয়ে বাংলাদেশের দেওয়া প্রস্তাবের প্রেক্ষিতে ভারতীয় হাইকমিশনার পঙ্কজ সরণ জানান, ট্রানজিট ফি নির্ধারণের ক্ষেত্রে স্থানীয় বাজার ব্যবস্থাকে গুরুত্ব দিতে চায় ভারত।

ভারতীয় হাইকমিশনার পঙ্কজ সরণ বলেন, “বাংলাদেশ আর ভারতের মধ্যকার ব্যবসা-বাণিজ্যের ক্ষেত্রে 'পি আই ডব্লিউ টি টি' একটি গুরুত্বপূর্ণ ইস্যু। তবে চুক্তি নবায়ণকালে পণ্য পরিবহনের ওপর ফি নির্ধারণের ক্ষেত্রে স্থানীয় বাজার ব্যবস্থাকে নজরে রাখতে হবে।”

অপরদিকে, 'পি আই ডব্লিউ টি টি'কে আরও কার্যকর করতে অবকাঠামো উন্নয়ন ও পণ্য খালাস সহজ করাসহ এ চুক্তির আওতায় নেপাল ও ভুটানে সহজ শর্তে পণ্য পরিবহনের সুযোগ সৃষ্টির পক্ষে মত দেন প্রধানমন্ত্রীর অর্থনৈতিক উপদেষ্টা ড. মসিউর রহমান।

প্রধানমন্ত্রীর অর্থনৈতিক উপদেষ্টা ড. মসিউর রহমান বলেন, “পি আই ডব্লিউ টি টি'কে আরও কার্যকর করতে, বাংলাদেশ-ভারতের মধ্যকার যৌথ নদীগুলোর ব্যবহার বাড়াতে হবে। পাশাপাশি এ চুক্তির আওতায় নেপাল ও ভুটানে পণ্য পরিবহনের সুযোগ সৃষ্টি করা হলে বাংলাদেশ-ভারতের ব্যবসায়িক সম্পর্ক আরও দৃঢ় হবে।”

সেমিনারে, পণ্য পরিবহনে জাহাজ চলাচল নির্বিঘ্ন করতে বিশ্ব ব্যাংকের আর্থিক সহযোগিতায় যৌথভাবে নদী খননের প্রস্তাব দেয় ভারত।

/এসআই/এফএইচ/

***বাংলা ট্রিবিউনে প্রকাশিত কোনও সংবাদ, কলাম, তথ্য, ছবি, কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার দণ্ডনীয় অপরাধ। অনুমতি ছাড়া ব্যবহার করলে কর্তৃপক্ষ আইনি ব্যবস্থা গ্রহণ করবে।