সন্ধ্যা ০৬:৫১ ; রবিবার ;  ১৯ মে, ২০১৯  

প্রেমে ব্যর্থ হয়ে কলেজ ছাত্রীর মুখ ঝলসে দিলো বখাটে

প্রকাশিত:

সম্পাদিত:

গোপালগঞ্জ প্রতিনিধি

প্রেম নিবেদন করে সাড়া না পাওয়ায় এসিড ছুঁড়ে এক কলেজ ছাত্রীর মুখ ঝলসে দিয়েছে বখাটেরা। এসিডে ওই ছাত্রীর মুখমণ্ডলসহ শরীরের বিভিন্ন অংশ ঝলসে গেছে।

শনিবার ভোরে গোপালগঞ্জ সদর উপজেলার টুঠামান্দ্রা গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। গুরুতর অবস্থায় ওই ছাত্রীকে গোপালগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। পরে উন্নত চিকিৎসার জন্য ব্র্যাকের কমিউনিটি সাপোর্ট প্রকল্পের আওতায় এসিড সারভাইভাল ফাউন্ডেশনের সহযোগিতায় ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের বার্ন ইউনিটে পাঠানো হয়েছে।

এ ঘটনায় ঘোষালকান্দি গ্রামের সুধাংশু ঘোষের ছেলে রথীন ঘোষকে দায়ী করেছেন হামলার শিকার আঁখি বাগচী। আঁখি গোপালগঞ্জ সদর উপজেলার কৃষ্ণপুর সপ্তদশ পল্লী মহাবিদ্যালয়ের দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্রী। তিনি সদর উপজেলার সাহাপুর ইউনিয়নের টুঠামান্দ্রা গ্রামের সুভাষ বাগচীর মেয়ে।

এসিড দগ্ধ আঁখি বাগচী জানান, প্রেম নিবেদনে ব্যর্থ হয়ে দীর্ঘদিন ধরে পার্শ্ববর্তী ঘোষালকান্দি গ্রামের সুধাংশু ঘোষের ছেলে রথীন ঘোষ তাকে কলেজে যাওয়া আসার পথে উত্ত্যক্ত করে আসছিলেন। সম্প্রতি রথীন তাকে বিয়ের প্রস্তাব দেন। এতে তিনি রাজি হননি। শুক্রবার রাত ৩টার দিকে রথীন ও তার লোকজন ঘরের দরজা খুলে ঘুমন্ত অবস্থায় তার শরীরে এসিড নিক্ষেপ করে পালিয়ে যায়।

কৃষ্ণপুর সপ্তদশ পল্লী মহাবিদ্যালয়ের ইসলামের ইতিহাস বিভাগের প্রভাষক শেখর চন্দ্র বিশ্বাস জানান, রথীন ঘোষ মেয়েটিকে দীর্ঘদিন ধরে উত্ত্যক্ত করে আসছিলেন। এ নিয়ে উপজেলা নির্বাহী অফিসারের কাছে তার বিরুদ্ধে অভিযোগ করা হয়। পরে স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যানের উদ্যোগে একটি সালিশ সভা হয়।

গোপালগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালের সার্জারি বিভাগের কনসালটেন্ট ডা. অনুপ কুমার মজুমদার জানান, এসিডে মেয়েটির মুখমণ্ডল, গলা, ডান ও বাম হাতের বেশ কিছু অংশ ঝলসে গেছে। উন্নত চিকিৎসার জন্য তাকে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের বার্ন ইউনিটে পাঠানো হয়েছে।

গোপালগঞ্জ সদর উপজেলার বৌতলী পুলিশ ফাঁড়ির এসআই আবু নাঈম জানান, এ ব্যাপারে পুলিশ তদন্তে নেমেছে। এ ঘটনায় একজনকে আটক করা হয়েছে।

/বিএল/টিএন/

***বাংলা ট্রিবিউনে প্রকাশিত কোনও সংবাদ, কলাম, তথ্য, ছবি, কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার দণ্ডনীয় অপরাধ। অনুমতি ছাড়া ব্যবহার করলে কর্তৃপক্ষ আইনি ব্যবস্থা গ্রহণ করবে।