বিকাল ০৫:১১ ; বৃহস্পতিবার ;  ২১ নভেম্বর, ২০১৯  

ঝুঁকিপূর্ণ বেইলি সেতু, দুর্ভোগে এলাকাবাসী

প্রকাশিত:

সম্পাদিত:

গাইবান্ধা প্রতিনিধি॥

গাইবান্ধা-ফুলছড়ি-সাঘাটা সড়কের গাইবান্ধা সদর উপজেলার বাদিয়াখালি ইউনিয়নের সরকারতারি বেইলি সেতু দিয়ে ঝুঁকিপূর্ণভাবে যানবাহন চলছে। সেতুর কয়েকটি স্থানে নাটবল্টু ও ঝালাই খুলে যাওয়ায় কয়েকটি পাটাতন আলগা হয়ে গেছে। এতে দুর্ভোগে পড়েছে কয়েকটি ইউনিয়নের লক্ষাধিক মানুষ।

গাইবান্ধা সড়ক ও জনপথ (সওজ) বিভাগ সূত্র জানায়, গাইবান্ধা শহর থেকে প্রায় ১৫ কিলোমিটার দক্ষিণে ব্রিটিশ আমলে এই সেতুটি নির্মাণ করা হয়। এরপর সেতুটির কোনও সংস্কার করা হয়নি। এছাড়া দুই মাস আগে ঝালাই খুলে যাওয়ায় সেতুর কয়েকটি পাটাতন সরে যায়।

এলাকাবাসী জানায়, সেতুটির স্টিলের জরাজীর্ণ পাটাতন ভেঙে যে কোনও সময় বড় ধরনের দুর্ঘটনা ঘটতে পারে।

সরেজমিনে ঘুরে দেখা গেছে, ঝালাই ও নাটবল্টু খুলে যাওয়ায় বেইলি সেতুর উত্তরপাশে ও মাঝের কয়েকটি স্টিলের পাটাতন সরে গেছে। অার পুরো সেতুটি নড়বড়ে হয়ে পড়েছে। গাইবান্ধা সড়ক ও জনপথ (সওজ) বিভাগ ঝুঁকিপূর্ণ চিহ্নিত করে সেতুর দুইপাশে লাল কাপড় দিয়েছে। কিন্তু বিকল্প ব্যবস্থা না থাকায় ঝুঁকি নিয়ে এই সেতু দিয়ে যানবাহন চলাচল করছে।

বাদিয়াখালি বাজারের ক্ষুদ্র ব্যবসায়ী আব্দুল জলিল বলেন, যারা সেতু বিধ্বস্ত হওয়ার কথা জানেন, তারা সাবধানে পারাপার হন। কিন্তু দূরের লোকজন দ্রুতগতিতে যানবাহন চালাতে গিয়ে দুঘর্টনার শিকার হচ্ছে।

বাদিয়াখালি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান রফিকুল ইসলাম বলেন, এই সেতু দিয়ে ফুলছড়ি উপজেলার কঞ্চিপাড়া, এরেন্ডাবাড়ি, ফজলুপুর, উদাখালি, উড়িয়া, সদর উপজেলার বোয়ালি, সাঘাটা উপজেলার হলদিয়া, ভরতখালি, বোনারপাড়া, জুমারবাড়ি, পদুমশহর, সাঘাটা সদর, ঘুড়িদহ, কামালেরপাড়া ও কচুয়া ইউনিয়নের প্রায় পাঁচ লাখ মানুষ জেলা শহরে যাতায়াত করেন। অথচ নতুন সেতু নিমার্ণে সড়ক ও জনপথ (সওজ) বিভাগকে তাগাদা দিয়েও কোনও কাজ হয়নি।

গাইবান্ধা সড়ক ও জনপথ (সওজ) বিভাগের উপ-সহকারী প্রকৌশলী আপেল মাহমুদ বলেন, 'এখানে জরুরিভাবে নতুন সেতু নির্মাণের জন্য একটি প্রকল্প সড়ক অধিদফতরে পাঠানো হয়েছে। অর্থ বরাদ্দ পাওয়া গেলে সেতুটি নির্মাণ করা হবে।

/এমডিপি/এমআর/

***বাংলা ট্রিবিউনে প্রকাশিত কোনও সংবাদ, কলাম, তথ্য, ছবি, কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার দণ্ডনীয় অপরাধ। অনুমতি ছাড়া ব্যবহার করলে কর্তৃপক্ষ আইনি ব্যবস্থা গ্রহণ করবে।