রাত ১১:২৭ ; বৃহস্পতিবার ;  ১৮ এপ্রিল, ২০১৯  

বেহনাজের মোটর বাইকে চড়ে বৈষ্যমহীন সমাজ!

প্রকাশিত:

বাংলা ট্রিবিউন ডেস্ক॥

১৯৬৩ সালে শাহদের হাত ধরে পারস্যের আধুনিকায়ন আর পথচলার একটি বিশেষ প্রতিপাদ্য ছিল। নিজস্বতাকে বিকিয়ে না দিয়ে আধুনিক জীবনযাত্রা প্রতিষ্ঠার চেষ্টাই ছিল প্রধান। তবে ৭৯ সালে শাহদের নির্বাসন আর সর্বোচ্চ ধর্মীয় নেতা খোমেনি প্রত্যাবর্তনের পর পরই থেমে গেছে আধুনিকায়ন।

সম্প্রতি আবার আধুনিক ইরানের স্বপ্ন দেখাচ্ছেন রুহানি সরকার।আর তার নতুন দৃষ্টান্ত ২৬ বছরের বেহনাজ শাহফে। যে দেশে এখনও নারীদের মোটর বাইক চালানো নিষিদ্ধ সেই দেশেই বাইক চালিয়ে সংবাদ শিরোনাম হয়েছেন বেহনাজ।

বেহনাজের বাইক চালানো অনেকে ভালোভাবে না নিলেও প্রশংসাকারীর সংখ্যা একদম কম নয়। অনেকেই দিয়েছে অনুপ্রেরণা। অনেকেই সাহায্যের হাত বাড়িয়েছেন।

রাজধানী তেহরানের কাজার শহরে বেড়ে ওঠা বেহনাজ ১৫ বছর বয়সেই নিজেকের ভবিষ্যত পথে বাহন হিসেবে যোগ করে নিয়েছিলেন মোটর বাইক। তার স্বপ্ন দেখার শুরু হয়েছিল, গ্রামের এক মহিলাকে দেখে। যে কিনা মাত্র ১২৫ সিসির একটি মটরসাইকেল নিয়ে প্রতিদিন যাতায়াত করতেন । এর পর সময়েরে সঙ্গে তাল মিলিয়ে নিজেকে গড়ে তুলেছেন ভারী মোটর চালাবার যোগ্য কর। সে সময় পাশে ছিল পরিবার।

বেহনাজ কৃতজ্ঞতা ভরে স্মরণ করেছেন উত্তর কারাজ এলাকার বাইক রেসারদরে কথা। যারা কট্টর দৃষ্টি ভঙ্গি থেকে বেরিয়ে পাশে এসে দাড়িয়েছেন বেহনাজের।শিখিয়েছেন মোটর বাইক চালানোর সূক্ষ্ম কলাকৗশল।

পেশায় ব্যাংকার বেহনাজের শখের প্রথম মটর সাইকেল ছিল ১৮০ সিসির এ্যাপাচি । এর মধ্যে কিনেছে ২৫০ সিসির সুজুকি। রেস ট্র্যাকে নারীদের অংশগ্রহণ নিষিদ্ধ হওয়ায় আপাতত ব্যক্তিগত ক্লাবে মোটর বাইক চালিয়ে সন্তষ্ট থাকতে হচ্ছে তাকে।

স্বপ্ন দেখেন সংস্কারপন্থী প্রেসিডেন্ট রুহানি একদিন নারীদের রেসিং কার চালানোর নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহার করে নেবেন আর বেহনাজ বাইক নিয়ে ছুটবেন দেশ থেকে দেশে।

আন্তর্জাতিক পর্যায়ে মোটর রেসিংয়ে অংশ নিয়ে বেহনাজ প্রমাণ করবেন, পর্দা নারীদের স্বপ্ন জয়ের জন্য বাধা নয়। মোটর বাইকে চড়েই বেহনাজ গড়বেন বৈষম্যহীন সমাজ।

/এআই/এফএএন/


 


 

***বাংলা ট্রিবিউনে প্রকাশিত কোনও সংবাদ, কলাম, তথ্য, ছবি, কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার দণ্ডনীয় অপরাধ। অনুমতি ছাড়া ব্যবহার করলে কর্তৃপক্ষ আইনি ব্যবস্থা গ্রহণ করবে।