রাত ০৯:৩৫ ; রবিবার ;  ২১ জুলাই, ২০১৯  

দিনটা হতে পারে অামলার

প্রকাশিত:

সম্পাদিত:

হাবিবুল বাশার॥

বিশ্বকাপের সেমিফাইনাল রোমাঞ্চ কাল মঙ্গলবার শুরু হতে যাচ্ছে। শুরুতেই নিউজিল্যান্ড বনাম দক্ষিণ আফ্রিকার খেলা। যে দল জয় লাভ করবে তারাই বিশ্বকাপের আসরে প্রথমবারের মতো ফাইনাল খেলবে। পেছনের ইতিহাস সবারই জানা। তাই দু'দলের জন্যই এই ম্যাচটি ঐতিহাসিক ম্যাচ!

অাগে থেকেই জানি, টুর্নামেন্টে দুর্দান্ত পারফরম্যান্স করায় এ ম্যাচে ফেবারিট নিউজিল্যান্ডই। দলের সবাই খুব ছন্দে আছে। তাছাড়া খেলাটি হতে যাচ্ছে নিউজিল্যান্ডের অকল্যান্ডে। তাই তাদেরকে ফেবারিট মানতেই হবে। সেখানকার সব সুযোগই তারা তুলে নেওয়ার চেষ্টা করবে।
কারণ, নিউজিল্যান্ডের ব্যাটিং স্তম্ভ ম্যাককলাম-গাপটিল যে কোন দলের জন্যই হুমকি! ম্যাককলামের আক্রমণাত্মক ব্যাটিং দলকে দ্রুত রান তুলতে সাহায্য করছে। সঙ্গে গাপটিলের কথা অালাদা করে বলতেই হচ্ছে। বাংলাদেশের সঙ্গে কিন্তু ওর শতকই দলকে বিপদ থেকে বাঁচিয়ে দিয়েছিল। এছাড়া কোয়ার্টার ফাইনালে তার বিধ্বংসী ব্যাটিংয়ের সামনে ওয়েস্ট ইন্ডিজের অসহায়ত্ব নিয়ে অালাদা করে বলার প্রয়োজন নেই। তাই এই ম্যাচের জন্যে গাপটিলকে আমি অালাদা করেই 'ম্যাচ উইনার' হিসেবে দেখছি।

ওদের শুধু ব্যাটসম্যানরা নয়, বল হাতে বোলাররাও চমৎকার পারফর্ম করছে। ট্রেন্ট বোল্ট, সাউদি, ভেট্টোরির মতো বোলারদের সামনে বিপক্ষ দলের খেলোয়াড়দের দেখা গেছে অসহায় অাত্মসমর্পণ করতে। এছাড়া ট্রেন্ট বোল্ট এই বিশ্বকাপে এখন পর্যন্ত সর্বোচ্চ উইকেট সংগ্রহকারী। তাই পুরো দল বিবেচনা করেই নিউজিল্যান্ডকে এগিয়ে রাখছি।

অন্যদিকে, দক্ষিণ আফ্রিকাকে বলবো এই সেমিফাইনালের 'আন্ডারডগ' একটি দল। তারা যে কোন দলের সঙ্গে খেললে সবসময় ফেবারিট থাকে, তবে এই ম্যাচে অ‌‌‌ামার দৃষ্টিতে তারা ফেবারিট নয়। ফেবারিট নয় বলেই এবার দক্ষিণ আফ্রিকার সুযোগ থাকবে ভালো কিছু করার। কারণ, আমরা দেখে আসছি চাপের মুখে দক্ষিণ আফ্রিকা দলটি সবসময় ছন্দ হারিয়ে ফেলে।

দক্ষিণ আফ্রিকার ব্যাটিং বলতে তাদের দলে দুর্দান্ত কিছু ব্যাটসম্যান রয়েছে যাদের ব্যাটিং যে কোন দলের বিপক্ষে জয় এনে দিতে পারে। বিশেষ করে ডি ভিলিয়ার্সের কথা না বললেই নয়। দলের বিপদে বেশিরভাগ সময় দেখা যায় হাল ধরে দলকে বাঁচিয়ে দিয়েছেন। এছাড়া ডি কক বিশ্বকাপের শুরু থেকে ব্যাটিংয়ে ভালো পারফর্ম না করলেও গত ম্যাচে তাকে আবার ছন্দে ফিরতে দেখা গেছে। এছাড়া হাশিম অামলা দুর্দান্ত ফর্মে থাকলেও বিশ্বকাপে এক ইনিংস ছাড়া রান করতে পারেনি। অামার মনে হচ্ছে, কালকের দিনটা হতে পারে অামলার!

প্রোটিয়াদের বোলিং নিয়ে বলবো ওদের বোলিং অাগে থেকেই বিশ্বমানের। পেসারদের পাশাপাশি লেগ স্পিনার ইমরান তাহিরের ঘূর্ণি জাদুতো রয়েছেই। এছাড়া ফিল্ডিংয়ের দিক দিয়েও তারা এগিয়ে। শেষে এটাই বলবো, কাল খুব ভালো একটা ম্যাচ আমরা উপভোগ করতে যাচ্ছি।

/এঅার/এফঅাইঅার/
 

***বাংলা ট্রিবিউনে প্রকাশিত কোনও সংবাদ, কলাম, তথ্য, ছবি, কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার দণ্ডনীয় অপরাধ। অনুমতি ছাড়া ব্যবহার করলে কর্তৃপক্ষ আইনি ব্যবস্থা গ্রহণ করবে।