সন্ধ্যা ০৬:৫৫ ; রবিবার ;  ১৯ মে, ২০১৯  

আশা করি দিনটা আমাদের হবে

প্রকাশিত:

সম্পাদিত:

হাবিবুল বাশার॥

আজকের ম্যাচটা ফাইনালের একটা পোষাকি প্রস্তুতি বলতে পারি। শ্রীলঙ্কা-অস্ট্রেলিয়ার অসাধারণ একটি ম্যাচ দেখলাম। মাইকেল ক্লার্ক দলে ফেরাতে অস্ট্রেলিয়ার আসল ব্যাটিং দেখতে পেলাম। অাজ শ্রীলঙ্কা একজন বেশী স্পিনার নিয়ে একটু সুযোগ পেয়েছিল। কারণ সিডনির উইকেট একটু টার্ন করে। যে কারণে প্রথমে লঙ্কানরা সফলতা পেয়েছিল। তবে মাইকেল ক্লার্ক এবং স্টিভেন স্মিথের থিতু হওয়া জুটি লঙ্কানদের বিরুদ্ধে প্রতিরোধের দেয়াল দিয়ে ফেলে।

যদিও এরপর দুই ওভারে অসিদের পর পর দুই উইকেট পরে গিয়ে হোঁচট খায় ক্লার্করা। মনে হচ্ছিল অসিদের বোধহয় তিনশত রান পূরণ হবে না। তবে ম্যাক্সওয়েলের তাণ্ডব লঙ্কানদের সব কিছু ধুলোয় মিশিয়ে দেয়। ওর ঝড়ো ব্যাটিং অসিদের রানের পাহাড়ে তুলে দেয়।

এই বিশ্বকাপে ম্যাক্সওয়েল এবং অার প্রোটিয়া ব্যাটসম্যান ভিলিয়ার্সের খেলা দেখে মনে হচ্ছে ওদের পারফরম্যান্স কোনও সমীকরণে ফেলা যাবে না। ওদের পারফরম্যান্সগুলো অতিমানবীয় বলতে পারি। যদিও অতিমানবীয় বিষয়গুলোতে ধারাবাহিকতা থাকে না। কিন্তু এই দুই রান মেশিন নিয়মিত রান পাচ্ছে। ওয়াটসন ফর্মে ফিরে আসাতে অসিদের ব্যাটিং লাইন আরো ভয়ঙ্কর রূপ ধারণ করবে বলে মনে হচ্ছে।

আগে বলা হতো, ২৫০ রান ম্যাচ জেতার জন্যে নিরাপদ। এখনকার খেলা দেখে মনে হচ্ছে ৩৫০ রানও জেতার জন্যে নিরাপদ নয়। আমার মনে হয় সাঙ্গাকারা আর কিছুক্ষণ ক্রিজে থাকলে অথবা চান্দিমাল সাজঘরে না ফিরলে ম্যাচের ফলাফল ভিন্নকিছু হতে পারতো। শ্রীলঙ্কা সে পথে ভালোই এগুচ্ছিল। কারণ শেষ দিকে ১০০-১১০ রান করা তেমন ব্যাপার নয়। কারণ ব্যাটিং পাওয়ার প্লে নেয়ার সুযোগ থাকে। বর্তমান বিশ্বকাপে রান নেওয়ার জন্যে নিয়মগুলো সেভাবেই তৈরি করা হয়েছে।

দিলশান ফর্মে থাকলেও আজ দাঁড়াতে পারেনি। সাঙ্গাকারাকে নিয়ে বলার কিছু নেই। সে অনবদ্য ব্যাটিং করে যাচ্ছে। এখানে বলে রাখা ভালো, ম্যাক্সওয়েল দারুণ আক্রমণাত্মক ব্যাটিং করলেও সাঙ্কাকারা কিন্তু টোটাল ক্রিকেট খেলে। পরপর তিন ম্যাচে তিনটি শতক দেখে অামার মনে হয়েছে ওর এখনই অবসরে যাওয়া ঠিক হচ্ছে কিনা। কারণ তার দৃষ্টিনন্দন ব্যাটিং হয়তো সবাই আরো কিছু দিন দেখতে চাইবে!

কালকের গুরুত্বপূর্ণ ম্যাচে বাংলাদেশ-ইংল্যান্ড মুখোমুখি হবে। ইংলিশদের বিপক্ষে বাংলাদেশ কয়েকবারই মুখোমুখি হয়েছে। কিন্তু এমনভাবে উত্তেজনার পারদ চড়িয়ে কখনও খেলতে নামেনি। কাল জয় পেলেই আমরা কোয়ার্টার ফাইনালে চলে যাবে। অার বিশ্বকাপ স্বপ্ন শেষ হয়ে যাবে ইংল্যান্ডের। ম্যাচে কিন্তু ফর্ম, প্রেসার, বিশ্বকাপে পারফরম্যান্স সব মিলিয়ে কাগজে কলমে আমরাই এগিয়ে থাকবো। তবে ম্যাচটি যেহেতু ইংল্যান্ডের বিপক্ষে। তাই সব কিছু মাথায় রেখেই মাঠে নামতে হবে। ওরা অনেক ভালো দল। তাই ইংল্যান্ডকে হারাতে আমাদেরকে খুব ভালো ক্রিকেট খেলতে হবে। গত খেলার মতো আগামীকাল দলের সবার জ্বলে ওঠা গুরুত্বপূর্ণ। এ ম্যাচের পরে আমাদের আরেকটি খেলা থাকলেও আমার চাইবো কালই সব হিসেব-নিকেশ চুকিয়ে নিতে। আশাকরি কালকের দিনটা আমাদের হবে।

/এনএস/এফআইআর/

***বাংলা ট্রিবিউনে প্রকাশিত কোনও সংবাদ, কলাম, তথ্য, ছবি, কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার দণ্ডনীয় অপরাধ। অনুমতি ছাড়া ব্যবহার করলে কর্তৃপক্ষ আইনি ব্যবস্থা গ্রহণ করবে।