রাত ০১:৩০ ; শুক্রবার ;  ২১ জুন, ২০১৯  

চলচ্চিত্র নিয়ে আকাশ ছোঁবেন 'গগন'

প্রকাশিত:

মনন মুনতাকা ॥

‘সিনেমা খেতে চাই, সিনেমা পড়তে চাই, সিনেমায় ঘুমাতে চাই’- এভাবেই নিজের কথা বলছিলেন জাহিদ হাসান। কাছের মানুষের কাছে যিনি গগন নামেই পরিচিত ।

গগন ইউনিভার্সিটি অব লিবারেল আর্টসে গণমাধ্যম ও সাংবাদিকতা বিভাগে চতুর্থ বর্ষে পড়ছেন। বিজ্ঞানের তুখোড় এই ছাত্র এসএসসিতে জিপিএ ৫ পাওয়ার পর মা বাবা স্বপ্ন দেখেছিলেন ছেলে ডাক্তার হবে। কিন্তু তার ইচ্ছা ছিল বুয়েটে ইঞ্জিনিয়ারিং পড়ার । এইচএসসিতে জিপিএ কম পাওয়ায় হতাশ হয়ে কোথাও ভর্তি পরীক্ষা না দিয়ে ভর্তি হয়ে যান অ্যারোনটিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিংয়ে। সেখানেও খুব ভালোই করছিলেন পড়াশোনায় সঙ্গে সঙ্গে বিভিন্ন সাংস্কৃতিক কর্মকাণ্ডেও জড়িত ছিলেন বেশ ভালোভাবেই ।

স্টার ইউআইইউ সেরা ডকুমেন্টারি নির্মাতার পুরস্কার নিচ্ছেন গগন 

কিন্তু বিমান নিয়ে আকাশে ওড়ার স্বপ্নটা হুট করেই পাল্টে যায়। একদিন রুমমেটের কাছে দেখলেন ভিডিও এডিট করার একটি সফটওয়ার। আর যায় কোথায়, তার মন নেচে উঠল। মাথায় নিলেন নাটক বানানোর চিন্তা। যেই ভাবা সেই কাজ। নিজেই নাটক লিখে বন্ধুদের দিয়ে অভিনয় করিয়ে নেন। এরপর বসেন সেই এডিটিং সফটওয়ার নিয়ে। তৈরি করে ফেলেন নাটক । নাটকটি দেখার পর সবাই তো প্রশংসায় পঞ্চমুখ । এভাবেই তার সখ্যতা গড়ে উঠেছিল ক্যামেরার সঙ্গে ।

নাটক একবার মাথায় ঢোকার পর আর ভালো লাগছিল না অ্যারোনটিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং। খোঁজা শুরু করলেন কোথায় সিনেমা নিয়ে পড়াশোনা করা যায় । এক বড় ভাইয়ের পরামর্শে অ্যারোনেটিকাল ইঞ্জিনিয়ারিং এ ২য় বর্ষে থাকা অবস্থায় তা ছেড়ে দিয়ে ভর্তি হোন ইউনিভার্সিটি অব লিবারেল আর্টসে গণমাধ্যম ও সাংবাদিকতা বিভাগে। বিশ্ববিদ্যালয় এ মিডিয়া ক্লাবের ভাইস প্রেসিডেন্ট ছিলেন এছাড়াও বিশবিদ্যালয় এর পত্রিকাতেও নিয়মিত লেখালেখি করতেন ।

স্বপ্নগুলো সত্যি হতে শুরু করে ২০১৩ সালে। সে বছর সেপ্টেম্বর মাসে স্টার ইউ আই ইউ ডকুমেন্টারি ফেস্টিভ্যালে অংশ নিয়ে জিতে নেন সেরা ডকু নির্মাতার পুরস্কার । এর পর এই পথেই চলছেন। গত ডিসেম্বর ঢাকায় অনুষ্ঠিত তারেক মাসুদ ইয়াং ফিল্মমেকার এ্যাওয়ার্ডে জিতে নিলেন সেরার পুরস্কার। গগনের 'অ্যা বিহাইন্ড দ্যা শু' প্রথম পুরস্কার পায়।

গগন বলেন, ' এ পুরস্কার আমার জন্য বড় প্রাপ্তি'। এ বছরই ছবিটি মুক্তপ্রাণ চলচ্চিত্র উৎসব এ সেরা পাচঁটি সিনেমার তালিকায়ও জায়গা করে নিয়েছে । চলতি বছর ৭ম আন্তর্জাতিক ইন্টার ইউনিভার্সিটি শর্ট ফিল্ম ফেস্টিভাল ২০১৫ এ ১ম রানার আপ পুরস্কার ও জিতেছে ।

গগনের পুরস্কার পাওয়ার গল্পগুলো এই প্রথম না। এর আগেও তারেক মাসুদ ইয়াং ফিল্মমেকার এ্যাওয়ার্ড -২০১৩ এ অংশগ্রহণ করে চতুর্থ স্থান অর্জন করেছিলেন । সেবারের সেই আক্ষেপ দূর হলো ২০১৪ তে এসে সেরা পুরস্কার জিতে নিয়ে।

তারেক মাসুদ ইয়াং ফিল্মমেকার অ্যাওয়ার্ড নিচ্ছেন গগন 

গগন জানান, চলচ্চিত্রের প্রতি ভালো লাগা, ভালোবাসা তৈরির পেছনের মানুষটি সর্বজন শ্রদ্ধেয় তারেক মাসুদ। নরসুন্দর দেখেই তারেক মাসুদের ভক্ত হয়ে ওঠেন তিনি। তারেক মাসুদের অকালমৃত্যু গগনকে আরও বেশি নাড়া দিয়ে যায়। চলচ্চিত্র নিয়ে ভাবনাটা আরও বেড়ে যায়।

পরিচালক না হতে পারলেও একজন চলচ্চিত্র কর্মী হিসেবেই নিজেকে ভবিষ্যতে দেখতে চান জাহিদ হাসান গগন । সুস্থ চলচ্চিত্রের ধারা আবারও যেন আমাদের দেশে ফিরিয়ে আনতে পারেন সে চেষ্টায় কাজ করে যেতে চান ।

/এফএএন/


 

***বাংলা ট্রিবিউনে প্রকাশিত কোনও সংবাদ, কলাম, তথ্য, ছবি, কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার দণ্ডনীয় অপরাধ। অনুমতি ছাড়া ব্যবহার করলে কর্তৃপক্ষ আইনি ব্যবস্থা গ্রহণ করবে।