বিকাল ০৫:১৭ ; বৃহস্পতিবার ;  ২৩ মে, ২০১৯  

ক্ষমা চাইলেন মাশরাফিকে লাঞ্ছনাকারী

প্রকাশিত:

সম্পাদিত:

মুসা ইব্রাহীম, মেলবোর্ন থেকে॥

অস্ট্রেলিয়ার মেলবোর্নে অবস্থানকালে বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের অধিনায়ক মাশরাফি বিন মুর্তজাকে লাঞ্ছিত করার ঘটনায় মূল অভিযুক্ত নজরুল ইসলাম ভুল স্বীকার করে ক্ষমা চেয়েছেন।

জানাতে চাইলে এ প্রসঙ্গে নজরুল ইসলাম বলেন, মাশরাফির সঙ্গে দেখা হয়েছে। তার কাছে জানতে চেয়েছি, দলের সদস্যরা ম্যাচের আগের দিন অনুশীলনে গিয়েছে কি না? কারণ শ্রীলঙ্কা দল আগের দিন অনুশীলনে গিয়েছে এবং তারা ম্যাচে ভালো ফল করেছে। এ সময় মাশরাফি জানান, ম্যাচের আগে দলের সদস্যদের অনুশীলনের ব্যাপারটা ‘অপশনাল'। এটুকুই কথা হয়েছে বলে তিনি দাবি করেন। তবে দলের অধিনায়ককে এমন প্রশ্ন করার মতো দায়িত্বশীল কোনও কর্মকর্তা তিনি কি না, জানতে চাইলে নজরুল ইসলাম বলেন, না। আমি বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের একজন একনিষ্ঠ ‘ফ্যান’। আমার এই জিজ্ঞাসায় যদি কেউ কষ্ট পেয়ে থাকেন, তাহলে আমি দলের কাছে, দেশের কাছে আপনার মাধ্যমে ক্ষমা চাই।

এ সময় নজরুল আরও বলেন, মাশরাফি এর আগে বেশ কয়েকবার চিকিৎসার জন্য যখন মেলবোর্নে এসেছেন, তখন আমি নিজ উদ্যোগে তার সঙ্গে দেখা করেছি। তাহলে কেন কয়েকজনকে সঙ্গে নিয়ে এদিন মাশরাফিকে আক্রমণ করতে গেলেন, এমন প্রশ্নের জবাবে নজরুল বলেন, দেখেন, আমার বয়স প্রায় পঞ্চাশ। আর মাশরাফিও প্রায় আমার ছেলের বয়সী। তাকে আক্রমণ করতে যাব- এমন ‘পাগল’ আমি নই। আমি পুরো সুস্থ ও স্বাভাবিক একজন মানুষ।

জানা গেছে, মাশরাফি দলের আরও কয়েকজন ক্রিকেটারকে সঙ্গে নিয়ে মেলবোর্নের হান্টিংডেল মসজিদে জুমার নামাজ পড়তে গেলে নজরুল ইসলাম কয়েকজন প্রবাসী বাংলাদেশিকে নিয়ে মাশরাফিকে লাঞ্ছিত করেন। এ সময় মাশরাফি বারবারই তাকে ‘সংযতভাবে' কথা বলার অনুরোধ করেন।

গত বৃহস্পতিবার মেলবোর্ন ক্রিকেট গ্রাউন্ডে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে ম্যাচে বাংলাদেশ ৯২ রানে হেরে যায়। জানা গেছে, শ্রীলঙ্কার সঙ্গে ম্যাচ হারার কারণেই মূলত ক্ষুব্ধ হয়ে নজরুল ইসলামরা এ লাঞ্ছিতের ঘটনা ঘটান। এ সময়ে উপস্থিত কয়েকজন বাংলাদেশির হস্তক্ষেপে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আসে। এ ঘটনায় অস্ট্রেলিয়ার মেলবোর্ন, সিডনি এবং ব্রিসবেনে প্রবাসী বাংলাদেশিদের মধ্যে তীব্র প্রতিক্রিয়ার সৃষ্টি হয়েছে।

মেলবোর্ন প্রবাসী বাংলাদেশিদের ফেসবুক পেজে এ ঘটনার নিন্দা জানিয়ে অধিনায়ক মাশরাফির কাছে ক্ষমা চাওয়া হয়। অনেকে তাদের পূর্ণ-সমর্থন জানিয়ে বলেন, দল হারুক কিংবা জিতুক, তারা বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের সঙ্গেই আছেন। এ ঘটনা মন থেকে দূরে সরিয়ে আগামী ম্যাচগুলোয় ভালো খেলার ব্যাপারে টাইগারদের মনোনিবেশ করার অনুরোধ করেন তারা।

এ মুহূর্তে মেলবোর্নে অবস্থানরত বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের পরিচালক আহমেদ সাজ্জাদুল আলম ববির সঙ্গে কথা হয়। তিনি বলেন, আমি মূলত দলের মিডিয়া ম্যানেজার রাবিদ ইমামের কাছে ঘটনাটা শুনেছি। আসলে দল যখন খারাপ খেলে, তখনই দলের সদস্যদের অন্যান্য সবার সমর্থন প্রয়োজন হয়। আশা করি, ব্যাপারটা বাংলাদেশের সমর্থকরা বুঝতে পারবেন এবং তারা আগের মতোই দলকে সমর্থন দেবেন।

বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের উইকেট-রক্ষক ব্যাটসম্যান মুশফিকুর রহিমের বাবা মাহবুব হামিদ তারাও এ মুহূর্তে মেলবোর্নে রয়েছেন। এ প্রসঙ্গে আলাপকালে তিনি বলেন, বাংলাদেশ দল যদি অন্য সবাইকেই হারাতো, তাহলে তো বাংলাদেশই চ্যাম্পিয়ন হয়ে যেত। কিন্তু বাংলাদেশ তো র‌্যাংকিংয়ে নয় নম্বর একটি দল। এ ব্যাপারটা আমাদের মাথায় রাখতে হবে। তবে দলের সদস্যরা সবসময়ই আপ্রাণ চেষ্টা করে ভালো খেলার। সমর্থকদের চাহিদা মেটানোর। তারপরও দু-একটা দিন ছন্দপতন ঘটে বলেও তিনি মন্তব্য করেন। তিনি আরও বলেন, শক্তিশালী ওয়েস্ট ইন্ডিজ দলও দক্ষিণ আফ্রিকার কাছে নাস্তানাবুদ হয়েছে। অস্ট্রেলিয়াও হেরে গেছে নিউজিল্যান্ডের কাছে। কাজেই বিশ্বকাপে সব ধরনের ফলের জন্য সমর্থকদের প্রস্তুত থাকা প্রয়োজন বলে তিনি মনে করেন।

বাংলাদেশ ক্রিকেট দল ২৮ ফেব্রুয়ারি নিউজিল্যান্ডের নেলসনে গিয়ে পৌঁছে। আগামী ৫ মার্চ তারা স্কটল্যান্ডের বিপক্ষে খেলবে।

/এমএনএইচ/

***বাংলা ট্রিবিউনে প্রকাশিত কোনও সংবাদ, কলাম, তথ্য, ছবি, কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার দণ্ডনীয় অপরাধ। অনুমতি ছাড়া ব্যবহার করলে কর্তৃপক্ষ আইনি ব্যবস্থা গ্রহণ করবে।