সন্ধ্যা ০৬:০৩ ; রবিবার ;  ২০ অক্টোবর, ২০১৯  

ম্যাককালামকে বিভ্রান্ত করার মতো অস্ত্র প্রয়োজন

প্রকাশিত:

হাবিবুল বাশার॥

আজকের দিনে দুটি ম্যাচ থাকলেও দর্শকের অাকর্ষণ ছিল নিউজিল্যান্ডের সঙ্গে অস্ট্রেলিয়ার প্রথম ম্যাচটি। পারফরম্যান্সের বিচারে এ'দুটি দলই এবারের বিশ্বকাপে প্রথম সারিতে রয়েছে। অাগের বড় ম্যাচগুলোতে জায়ান্টরা যখন মুখোমুখি হয়েছে সেখানে এক পেশে খেলাই দেখতে পেয়েছি। তাই আজও ভেবেছিলাম এমন কিছুই হবে। শেষ পর্যন্ত তেমন কিছুই হয়নি। শ্বাসরূদ্ধকর ম্যাচ দেখতে পেয়েছি অাজকে। পেন্ডুলামের মতো ঝুলতে থাকা ম্যাচটি নিজেদের করে নিয়ে জিতেছে নিউজিল্যান্ডই।

শুরুতে মনে হচ্ছিল অকল্যান্ডের এই ছোট মাঠে অসিরা তিনশোর বেশি রান করবে। কারণ ১০ ওভারে ২ উইকেট হারিয়েই তারা ৮০ রান তুলে ফেলেছিল। সেখান থেকে ভোজবাজির মতো ১৫৭ রানেই গুটিয়ে যায় অস্ট্রেলিয়া। অার এমন অস্ট্রেলিয়াকে খুব একটা দেখাও যায় না। সত্যি বলতে এক পর্যায়ে নিষ্প্রাণ মনে হওয়ায় টিভি বন্ধ করে দিয়েছিলাম। কিছুক্ষণ পরেই এসে দেখলাম নিউজিল্যান্ডেরও একই দশা। ৮ উইকেট নেই! তখন আবার বসে পরলাম ম্যাচটি শেষ পর্যন্ত উপভোগ করার জন্যে টিভি সেটের সামনে। উত্তেজনার পারদ চরমে ছিল ম্যাচটায়। সেই পারদ সমান চাপ সামলে নেয় কিউইরাই।

অার এ ধরনের ম্যাচে কেউ ভবিষ্যৎ বাতলে দিতে পারে না, সমীকরণও মেলানো যায় না। তবে মিচেল স্টার্ক অসাধারণ সুইং দক্ষতার উদাহরণ দিয়েছে। তার গতিঝড়ের কারণেই খেলায় ফিরে অাসতে পেরেছিল অস্ট্রেলিয়া। যদিও এতো অল্প রান করে জয়ের স্বপ্ন দেখার কথা ছিল না অসিদের।

অারেকটি বিষয় হলো কিউই অধিনায়ক ব্রেন্ডন ম্যাককালাম অামাকে খুবই ভাবাচ্ছে। ও যেভাবে খেলছে তাকে নিয়ে প্রতিপক্ষের সেরকম পরিকল্পনা নিয়েই এগু‌‌‌নো প্রয়োজন। ম্যাককালাম অাসলে ফাস্ট বল খেলতে ভালোবাসে। বল যত দ্রুত ব্যাটে অাসে ও তত দ্রুতই হাত খুলে ব্যাট চালায়। তাকে বিভ্রান্ত করার মতো ঘূর্ণি বলের অস্ত্র প্রয়োজন। তাহলেই ওর মতো ব্যাটিং দানবকে শান্ত রাখা যাবে। বিষয়টি মাথায় রাখতে হবে অামাদের জন্যেও। কারণ গ্রুপ পর্বে ওদের সঙ্গে অামাদেরও খেলা রয়েছে। তাই ভবিষ্যতে যারাই খেলবে তাদের ম্যাককালামকে নিয়ে অালাদা করে ভাবতে হবে।

অারেকটি বিষয় কিউইদেরও খেয়াল রাখা প্রয়োজন। ওদের খেলা দেখে মনে হচ্ছে ওরা তড়িঘড়ি করে রান তুলতে মরিয়া থাকে। এভাবে স্কটল্যান্ডের বিপক্ষে খেলতে গিয়ে ৭ উইকেট পরে গিয়েছিল। বিষয়টি নিয়ে সামনের ম্যাচগুলোতে ওদের ভাবতে হবে। কারণ শেষ অাটের খেলা হবে অন্যরকম।

এই ম্যাচ নিয়ে এটাই বলবো ছোট পুঁজি নিয়েও চমৎকার খেলা দেখিয়েছে দুই দল। রান কম হওয়ায় ছোট দৈর্ঘ্যের ম্যাচ হলেও ম্যাচটি এবারের বিশ্বকাপের অন্যতম সেরা ম্যাচের তালিকায় থাকবে।

দ্বিতীয় ম্যাচটি নিয়ে বেশি কিছু বলার নেই। সংযুক্ত অারব অামিরাতের ক‌‌‌াছে অারও ভালো কিছু অাশা করেছিলাম। অাজ ভারতের বোলাররা খুব ভালো করেছে। এ ম্যাচের পর দেখে মনে হচ্ছে ভারত তাদের ফর্ম দারুণভাবে ফিরে পেয়েছে।

/এনএস/এফঅাইঅার/টিএন/

***বাংলা ট্রিবিউনে প্রকাশিত কোনও সংবাদ, কলাম, তথ্য, ছবি, কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার দণ্ডনীয় অপরাধ। অনুমতি ছাড়া ব্যবহার করলে কর্তৃপক্ষ আইনি ব্যবস্থা গ্রহণ করবে।