বিকাল ০৪:৫০ ; বৃহস্পতিবার ;  ২৩ মে, ২০১৯  

বিশ্বকাপ উদ্বোধনীতে যা থাকছে...

প্রকাশিত:

মুসা ইব্রাহীম, সিডনি থেকে ॥

বাংলাদেশ ক্রিকেট দল এই মুহূর্তে অস্ট্রেলিয়ার সিডনিতে রয়েছে দু’টি ওয়ার্ম আপ ম্যাচ খেলার জন্য। এখান থেকে ১৩ ফেব্রুয়ারি দল ক্যানবেরার উদ্দেশে রওয়ানা হবে। তবে দলের ক্যাপ্টেন মাশরাফি বিন মুর্তজা এবং ম্যানেজার খালেদ মাহমুদ সুজন ১২ ফেব্রুয়ারি সিডনি’র ব্ল্যাকটাউন ইন্টারন্যাশনাল স্পোর্টস পার্কে অনুষ্ঠিতব্য আয়ারল্যান্ডের বিপক্ষে ওয়ার্ম আপ ম্যাচ খেলে মাঠ থেকেই হেলিকপ্টারে করে সিডনি অভ্যন্তরীণ বিমানবন্দরে যাবেন। সেখান থেকে বিকাল ৬টা ১০মিনিটের ফ্লাইটে যাবেন মেলবোর্ন। আবার মেলবোর্ন বিমানবন্দর থেকে হেলিকপ্টারে করে তারা আইসিসি ক্রিকেট বিশ্বকাপ ২০১৫’র উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে যোগ দিতে ‘সিডনি মায়ার মিউজিক বউল, মেলবোর্ন’-এ হাজির হবেন সন্ধ্যা ৭টা ৩৫ মিনিটে। অস্ট্রেলিয়ার মেলবোর্নে আগামী ১২ ফেব্রুয়ারি আইসিসি ক্রিকেট বিশ্বকাপ ২০১৫ টুর্নামেন্টের পর্দা উন্মোচিত হচ্ছে। জাকজমকপূর্ণ এই অনুষ্ঠান বিভিন্ন টিভি চ্যানেলে সরাসরি সম্প্রচার করা হবে।

এই উদ্বোধনী অনুষ্ঠান সঙ্গীত, মঞ্চের উপস্থাপনা এবং সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের মাধ্যমে সাজানো হয়েছে। তবে এতে সবচেয়ে বড় চমক হিসাবে নিউজিল্যান্ডের সাবেক ক্যাপ্টেন স্টিফেন ফ্লেমিংকে দেখা যাবে। তিনি মঞ্চ উপস্থাপনার অংশ হিসাবে এই উদ্বোধনীতে থাকবেন। এ প্রসঙ্গে নিউজিল্যান্ড হেরাল্ডকে দেয়া এক সাক্ষাতকারে তিনি বলেন, “এর মানে হলো আমি সঠিক পথেই রয়েছি। আমি এই অনুষ্ঠানে যোগ দিতে উন্মুখ হয়েও আছি।“

বলে রাখা ভালো, অস্ট্রেলিয়া ও নিউজিল্যান্ড এবারের ক্রিকেট বিশ্বকাপের সহআয়োজক হওয়ায় অস্ট্রেলিয়ার মেলবোর্নের পাশাপাশি আরেকটি অনুষ্ঠান নিউজিল্যান্ডের ক্রাইস্টচার্চেও অনুষ্ঠিত হবে। মেলবোর্নের অনুষ্ঠানে বিশ্বকাপের খোলোয়াড় এবং প্রথিতযশা প্রাক্তন ক্রিকেটাররা যোগ দিবেন। এখানে সাংস্কৃতিক আর সঙ্গীতায়োজন থাকলেও ক্রাইস্টচার্চের ফায়ারওয়ার্কস তাদের ইতিহাসের সবচেয়ে বড় হবে বলে ঘোষণা দেয়া হয়েছে। উদ্বোধনী অনুষ্ঠান স্থানীয় সময় সাড়ে ছ’টায় শুরু হলেও মূল অনুষ্ঠান সাড়ে আটটা থেকে রাত দশটা পর্যন্ত চলবে।

/এফঅাইঅার/

***বাংলা ট্রিবিউনে প্রকাশিত কোনও সংবাদ, কলাম, তথ্য, ছবি, কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার দণ্ডনীয় অপরাধ। অনুমতি ছাড়া ব্যবহার করলে কর্তৃপক্ষ আইনি ব্যবস্থা গ্রহণ করবে।