রাত ১২:৩২ ; রবিবার ;  ২৩ ফেব্রুয়ারি, ২০২০  

সমাজকল্যাণমন্ত্রী ও অর্থমন্ত্রীকে বহিষ্কার করতে হবে : আল্লামা শফী

প্রকাশিত:

হাটহাজারী প্রতিনিধি ॥

সমাজকল্যাণমন্ত্রী ও অর্থমন্ত্রীকে মন্ত্রিসভা থেকে বহিষ্কারসহ তাদের শাস্তি দাবি করেছেন হেফ‌‌‌াজতের আমির আল্লামা আহমদ শফী। তিনি বলেন, হিজাব, বোরকা, সুদ-ঘুষ ও দুর্নীতি নিয়ে ইসলাম বিদ্বেষী বক্তব্য দেওয়ার অপরাধে তাদের বিরুদ্ধে সরকারকে অনতিবিলম্বে কঠোর শাস্তিমূলক পদক্ষেপ নিতে হবে। অন্যথায় তৌহিদি জনতার ক্ষোভের আগুন জ্বলে উঠলে এর দায় সরকারকেই নিতে হবে।' সোমবার গণমাধ্যমে দেওয়া এক বিবৃতিতে হেফাজত আমির এসব কথা বলেন।

আল্লামা শফী বলেন, অর্থমন্ত্রী সুদ ঘুষের পক্ষে অবস্থান নিয়ে ও অপব্যখ্যামূলক বক্তব্য দিয়ে নিজেকে জাহান্নামি ব্যক্তিতে পরিণত করেছেন। তিনি বলেন, 'অর্থমন্ত্রী এর আগে ঘুষ ও দুর্নীতির পক্ষে সাফাই গেয়ে ইসলাম অবমাননা করে অনৈতিকতার পক্ষ নিয়ে জনমনে উদ্বেগ তৈরি করেছিলেন। একের পর এক ইসলামের বিরুদ্ধে তিনি বক্তব্য দিয়ে যাবেন, এটা মেনে নেওয়ার কোনো সুযোগ নেই।' তিনি বলেন, 'এটা মুসলিম অধ্যুষিত দেশ। যাচ্ছেতাই ইসলামের বিরুদ্ধে কথা বলে কাউকে পার পেতে দেওয়া হবে না। '

বর্তমান সরকারের সাবেক টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী আব্দুল লতিফ সিদ্দিকী, সমাজকল্যাণমন্ত্রী সৈয়দ মহসিন আলী, অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আব্দুল মুহিতের ইসলাম ও নৈতিকতা বিরোধী বক্তব্যের উল্লেখ করে আল্লামা শাহ আহমদ শফী ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, বর্তমান সরকারের মন্ত্রিসভা ও কর্তাব্যক্তিদের মধ্যে এত ইসলাম বিদ্বেষী ও নাস্তিক্যবাদী কী করে স্থান পেল, তা জনমনে ব্যাপক উদ্বেগ তৈরি করেছে। তিনি বলেন, ক্ষমতাসীন সরকার কর্তৃক সংবিধান থেকে আল্লাহর ওপর আস্থা ও বিশ্বাসের নীতি বাতিল এবং ধর্মনিরপেক্ষ নীতি প্রতিষ্ঠার পর থেকে দেশে অনৈতিকতা, বেহায়াপনা ও জোর-জুলুমের বিস্তারের পাশাপাশি রাসুল অবমাননা ও ইসলাম বিরোধী বক্তব্য গত কয়েক বছরে আশংকাজনক হারে বেড়ে গেছে।

উল্লেখ্য, ‘ইসলামি ব্যাংকিং একান্তই একটি ফ্রড বা প্রতারণা। ভুলের ওপর নির্ভর করে ইসলামি ব্যাংকিং সুদ মানবিক চিন্তাধারার ওপর নির্ভর করে প্রতিষ্ঠিত হয়েছে এবং ভুলের ওপর ভিত্তি করেই ইসলামিক ব্যাংকিং হয়েছে’ উল্লেখ করে গত ১ ফেব্রুয়ারি রবিবার জাতীয় সংসদে অর্থমন্ত্রী বক্তব্য রেখেছেন।

/এমএনএইচ/

***বাংলা ট্রিবিউনে প্রকাশিত কোনও সংবাদ, কলাম, তথ্য, ছবি, কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার দণ্ডনীয় অপরাধ। অনুমতি ছাড়া ব্যবহার করলে কর্তৃপক্ষ আইনি ব্যবস্থা গ্রহণ করবে।