বিকাল ০৪:৪৯ ; বৃহস্পতিবার ;  ২৩ মে, ২০১৯  

রাজনৈতিক সহিংসতায় কী শিখছে শিশুরা?

প্রকাশিত:

সম্পাদিত:

একেএম ফয়জুল ইসলাম

দেশের রাজনৈতিক সহিংসতা নতুন কিছু নয়! তবে, সহিংসতা কোনও সময়ই যেমন কাম্য নয়, তেমনি শিশুরা এসবের শিকার হোক তাও কাম্য নয়। কোমলমতি অবুঝ শিশুরা কোনও রাজনৈতিক দলের সদস্য নয়। তারা নেই কোনও সংঘাতেও। তবুও সহিংসতার মধ্যে পড়ে প্রাণ হারাচ্ছে, আহত হচ্ছে শিশুরা। যখন পড়ালেখা ছাড়া অন্য কিছু ভাবার কথা নয় সেসময়, কোনও অপরাধ না করেও বাসে দেওয়া পেট্রোলবোমায় পুড়ে মৃত্যু হচ্ছে শিশুদের, দগ্ধ হয়ে হাসপাতালে কাটছে দুর্বিষহ জীবন। ককটেলে আহত হয়ে শরীরে স্প্রিন্টারের যন্ত্রণা নিয়ে, চোখ বা শরীরের কোনও অঙ্গ হারিয়ে অনিশ্চিত হয়ে পড়ছে ভবিষ্যতের শিক্ষাসহ পুরো জীবন-যাপনই! কখনও শিশুদের ব্যবহার করা হচ্ছে ককটেল ছোঁড়া বা নাশকতার কাজেও! এ কেমন শৈশব কাটছে দেশের শিশুদের?

আন্তর্জাতিক আইনে যুদ্ধাবস্থায়ও শিশুদের হত্যা বা তাদের ওপর হামলা করা অপরাধ। কিন্তু সবকিছু উপেক্ষা করে দেশে রাজনৈতিক সহিংসতার মধ্যে পড়ে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে শিশুরা। এ ঘটনায় নেই কোনও দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি। সান্তনা বলতে, কয়েকদিন আগে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী ককটেল হামলায় আহত শিশুদের চিকিৎসার দায়িত্ব নিয়ে শিশু ও তার পরিবারের সদস্যদের পাশে দাঁড়িযেছেন। প্রধানমন্ত্রীর সহায়তায় ক্ষতিগ্রস্তদের না হয় একটা গতি হলো, কিন্তু এসব কি থামবে না? যারা এসব করছে তাদের কোনও দিনই কি শুভবুদ্ধি হবে না? যারা এসব করছে সেই সব অপরাধীরা কি কোনও দিনই দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির আওতায় আসবে না? তাদের কী কখনও মনে হয় না, তাদের সন্তানও তো ঘরের বাইরে বের হচ্ছে, এই ককটেল যদি তার শরীরে লাগে?

ছোটবেলা থেকে চারপাশে এসব হামলা-ভাংচুর-আগুন-অপমৃত্যু দেখে শিশুরা কিন্তু নেতিবাচক মানসিকতা নিয়েই বেড়ে উঠছে। যাদের হাতে দেশের ভবিষ্যৎ তারাই যদি এমন মানসিকতা নিয়ে বড় হয় তবে দেশের অবস্থা ভবিষ্যতে আর কেমন হবে?

শিশুরা যে শুধু হামলার শিকার হয়েই ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে তা কিন্তু নয়! ছোটবেলা থেকে চারপাশে এসব হামলা-ভাংচুর-আগুন-অপমৃত্যু দেখে শিশুরা কিন্তু নেতিবাচক মানসিকতা নিয়েই বেড়ে উঠছে| যাদের হাতে দেশের ভবিষ্যৎ তারাই যদি এমন মানসিকতা নিয়ে বড় হয় তবে দেশের অবস্থা ভবিষ্যতে আর কেমন হবে? শুধু নিজেদের কথা চিন্তা করে শিশুদের জন্য কোন ভবিষ্যত রেখে যাচ্ছি আমরা? শারীরিক ও মানসিক ছাড়াও ক্ষতি কিন্তু আরও আছে! ভেঙে পড়ছে দেশের শিক্ষা ব্যবস্থা। সহিংসতার কারণে দীর্ঘদিন ধরে বন্ধ অনেক শিক্ষা প্রতিষ্ঠান। যেসব শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খোলা আছে সেগুলোতে ক্লাস-পরীক্ষা অনিয়মিত! আর স্কুল খোলা থেকেই বা লাভ কী? বাইরে বের হলেই তো হামলার শিকার হওয়ার শঙ্কা!

সহিংস রাজনীতি থেকে বেরিয়ে না আসলে, শিশুরা বাঁচবে না। শিশুদের বেঁচে থাকা বলতে শুধু শারীরিকভাবে বাঁচাই কিন্তু নয়। ভবিষ্যৎ প্রজন্মের জন্য একটি সুন্দর পৃথিবী গড়ে তুলতে হবে। শিশুদের জন্য সুষ্ঠু মেধা বিকাশের সুযোগ করে দিতে হবে। রাজনীতির নামে শিশুরা যে সহিংসতা দেখছে, সেই ভুল ভাঙিয়ে তাদের শেখাতে হবে, ‘সহিংসতা ছাড়া সুষ্ঠু রাজনীতির মাধ্যমেই সুন্দর দেশ গড়া সম্ভব’।

সাংবাদিক, চ্যানেল 24

ইমেইল: faizulislam99@yahoo.com

*** প্রকাশিত মতামত লেখকের একান্তই নিজস্ব। বাংলা ট্রিবিউন-এর সম্পাদকীয় নীতি/মতের সঙ্গে লেখকের মতামতের অমিল থাকতেই পারে। তাই এখানে প্রকাশিত লেখার জন্য বাংলা ট্রিবিউন কর্তৃপক্ষ লেখকের কলামের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে আইনগত বা অন্য কোনও ধরনের কোনও দায় নেবে না।

 

*** বাংলা ট্রিবিউনে প্রকাশিত কোনও সংবাদ, কলাম, তথ্য, ছবি, কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার দণ্ডনীয় অপরাধ। অনুমতি ছাড়া ব্যবহার করলে কর্তৃপক্ষ আইনি ব্যবস্থা গ্রহণ করবে।

***বাংলা ট্রিবিউনে প্রকাশিত কোনও সংবাদ, কলাম, তথ্য, ছবি, কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার দণ্ডনীয় অপরাধ। অনুমতি ছাড়া ব্যবহার করলে কর্তৃপক্ষ আইনি ব্যবস্থা গ্রহণ করবে।