রাত ১০:২৬ ; বুধবার ;  ১৭ অক্টোবর, ২০১৮  

আপনার শিশুর খাবার-দাবার

প্রকাশিত:

লাইফস্টাইল ডেস্ক॥

শিশুর খাবার নিয়ে অভিজ্ঞ মায়েরা কম-বেশি সবই জানেন। পরিবারে নানী-দাদী থাকলে তো আর কথাই নেই। তারাই ঠিক করে দেন শিশু এবং শিশুর মা কি খাবেন। তবে শহুরে একক পরিবারের যখন কেউ থাকেন না তখন চাকুরিজীবী মায়েরা শিশুর ও নিজেদের খাবার নিয়ে রীতিমতো হিমশিম খান। তাদের জন্যই পরামর্শ।

শিশুর প্রথম ছয় মাস:

শিশু যদি ঠিকমতো বুকের দুধ পায়, তবে প্রথম ছয় মাস তার আর কোনও খাবারই দরকার পড়ে না। এমনকি পানিও না। এসময় খাবে শিশুর মায়েরা। পুষ্টিবিদরা বলেন, ১-৬ মাস বয়সী একটি শিশুর ৪০-৫০ মিনিট পর পর খাবারের প্রয়োজন হয়। এসময় শিশুর জন্য পরিমাণমতো বুকের দুধের যোগান দিতে মায়ের খাবারের পরিমাণ অনেক বাড়াতে হবে। এসময় মা'কে প্রচুর শাক-সবজি, ফলমূল ও মাছ- মাংস খেতে হবে। মনে রাখতে হবে বুকের দুধ বাড়াতে ছোট মাছ, শাক খুবই গুরুত্বপূর্ণ খাবার।

শিশুর প্রথম বাড়তি খাবার:

শিশুর বয়স ছয় মাস অতিক্রান্ত হলেই বুকের দুধের পাশাপাশি বাড়তি খাবার দিতে তৈরি থাকতে হবে। শুরুতে খুবই অল্প পরিমাণে খাবার দিন। খাবার হবে পেস্টের মতো নরম। দিতে হবে ছোট চামচে। কোনো অবস্থায়ই বোতল বা ফিডারে করে নয়। বাড়তি খাবারের কয়েকটি নমুনা দেওয়া হলো।

* দুধ-সুজি

* ফলের রস (পানি মেশানো ফলের রস)

এক বছর বয়স পর্যন্ত:

শিশু যখন প্রথম বাড়তি খাবার হজম করতে শেখে তখন প্রতি সপ্তাহে তাকে নতুন নতুন খাবার দিতে শুরু করুন। প্রতিদিন ভিন্ন ভিন্ন খাবার দিতে পারেন।

* সবজি বা মুরগীর খিচুড়ি।

* মাছ বা মাংস নরম পেস্টের মতো করে খাওয়াতে পারেন।

* ডিম নরম করে বা ডিমের হালুয়া করে খাওয়াতে পারেন।

* আলু বা পেঁপের নরম ভর্তা।

* ডিমের কুসুম

* ঘরে তৈরি দই ইত্যাদি।

সতর্কীকরণ: শিশুকে ঘরে তৈরি খাবার দিন বেশি বেশি। বাইরের খাবার একেবারেই এড়িয়ে চলুন। চিপস, চানাচুর, চকোলেটের অভ্যাস করবেন না।   

***বাংলা ট্রিবিউনে প্রকাশিত কোনও সংবাদ, কলাম, তথ্য, ছবি, কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার দণ্ডনীয় অপরাধ। অনুমতি ছাড়া ব্যবহার করলে কর্তৃপক্ষ আইনি ব্যবস্থা গ্রহণ করবে।