রাত ০৪:৪৫ ; বৃহস্পতিবার ;  ১৭ অক্টোবর, ২০১৯  

ভালো না লাগলেই ছেড়ে দেবেন?

প্রকাশিত:

সম্পাদিত:

লাইফস্টাইল ডেস্ক ॥

অফিসে ছোট্ট ঝামেলা। তারপরেই সিদ্ধান্ত - চাকরি পাল্টে ফেলার। নতুন চাকরিতে গিয়েও একই সমস্যা হবে না তো? অফিস বদলানোর আগে কী কী দেখে নেওয়া দরকার?

কর্মক্ষেত্রে কাজের প্রতি মনযোগের অন্যতম শর্ত আপনারে আগ্রহ৷ কিন্তু অনেক সময়ই, নানা কারণেই কাজের প্রতি আগ্রহ কমে আসে। আর তখনই তড়িঘড়ি সিদ্ধান্ত নিয়ে চাকরি বদল। কিন্তু কে বলতে পারে নতুন চাকরিতেও ওই একই কারণে বিরক্তি জন্মাবে না! তাই চাকরি বদলের সিদ্ধান্ত নিতে হবে অনেক ভেবে চিন্তে।

উপরমহলের সঙ্গে সমঝোতার চেষ্টা
যে কোনও কোম্পানিতেই যখন কর্মী হিসেবে আপনার কাজের প্রতি কোনও রকম বিরক্তি জন্মাবে, সঙ্গে সঙ্গেই সে ব্যাপারে সংশ্লিষ্ট সুপারভাইজারকে জানালে আপনার সমস্যা কিন্তু গোড়াতেই মিটে যেতে পারে। আপনার সমস্যার কথা খোলাখুলি আলোচনা করলে একদিকে যেমন সমাধানের সম্ভাবনা বেড়ে যাবে তেমনই কোম্পানির প্রতি আপনার বিশ্বাস ও আস্থা যে এখনও অনেকটাই আছে সেটাও প্রমাণীত হবে।

ভুলটা কোথায়
আগে নতুন কাজের সমস্যাটা ঠিক করে বুঝে ওঠা দরকার। চাকরির পদ, বস, অফিসের পরিবেশ, বাড়ি থেকে অফিসের দূরত্ব বা বেতনের সমস্যা ইত্যাদি অনেক কিছুই হতে পারে আপনার নতুন চাকরিতে অস্বস্তির কারণ। এই সমস্যার চিহ্নিত করা হয়ে গেলে, একে দু'ভাবে দেখুন। এক, যেগুলোর সমাধান করা যায়, আর যেগুলোর করা যায় না। তার পরেই পদক্ষেপ নিন।

কেন করছেন চাকরি
কেন কোম্পানির জন্য আপনি নির্দিষ্ট দায়িত্ব দিনের পর দিন পালন করে চলেছেন, সেটা পরিষ্কার করে বুঝে নিতে হবে। মাঝে মাঝে প্রত্যেকদিনের কাজে এমন ভাবে যুক্ত থাকতে হয়, যার কারণে আমাদের কাজের নির্দিষ্ট লক্ষ্য অনুসন্ধানের সময় থাকে না। কিন্তু আপনার কাজকে আরও আকর্ষনীয় ও উপযুক্ত করে তুলতে আপনার কাজের প্রকৃত অর্থ অনুসন্ধান করা খুবই জরুরি।


হঠকারি সিদ্ধান্ত নয়

চাকরি সংক্রান্ত আপনার খারাপ লাগাটা সাময়িকও তো হতে পারে। আপনি কি কোনও একটি নির্দিষ্ট ঘটনার উপরে ভিত্তি করে চাকরি বদলের সিদ্ধান্ত নিচ্ছেন? একজন বুদ্ধিমান মানুষ কিন্তু তার জীবনের গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্ত এক আধটা ঘটনার ভিত্তিতে কখনওই নেওয়া যাবে না। একটু সময় দিন, ঘটনার উত্তাপ কমে এলে আপনার খারাপ লাগাটাও একদম চলে যাবে কিনা সেটা পর্যবেক্ষণ করুন।

সিদ্ধান্তে অটল থাকা দরকার
যদি আপনার একান্তই মনে হয় চাকরিটা করতে পারবেন না, তাহলে ছেড়ে দিন। দেখে নিন আপনার কাজের ক্ষেত্রে আর কোথায় কী সুযোগ রয়েছে। আপনার কাজের প্রতি যদি আপনি সৎ থাকেন এবং আপনার কাজের এলাকার প্রাক্তন কর্মী, অন্য সংস্থার অবস্থা সম্পর্কে যদি আপনার ধারণা পরিষ্কার থাকে, তাহলে নতুন কাজ পেতে আপনার কোনও অসুবিধা হবে বলে মনে হয় না।

/এএলএ/ এফএএন/ 

***বাংলা ট্রিবিউনে প্রকাশিত কোনও সংবাদ, কলাম, তথ্য, ছবি, কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার দণ্ডনীয় অপরাধ। অনুমতি ছাড়া ব্যবহার করলে কর্তৃপক্ষ আইনি ব্যবস্থা গ্রহণ করবে।