রাত ০৪:৩৪ ; সোমবার ;  ২০ মে, ২০১৯  

স্মরণ ও শ্রদ্ধায় সেলিম আল দীন

প্রকাশিত:

সম্পাদিত:

[সেলিম আল দীন। জন্মেছিলেন ১৯৪৯ সালের ১৮ আগস্ট ফেনীর সোনাগাজী থানার সেনেরখিল গ্রামে। বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ার সময়েই নাটকের সঙ্গে জড়িয়ে পড়েন। যুক্ত হন ঢাকা থিয়েটারে। জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের নাটক ও নাট্যতত্ত্ব বিভাগের প্রতিষ্ঠা সেলিম আল দীনের হাত ধরেই। তাঁর নাটকে উঠে এসেছে শ্রমজীবী মানুষ ও পরজীবী শোষক শ্রেণির দ্বন্দ্ব, যুদ্ধ, প্রাকৃতিক বিপর্যয় থেকে উঠে দাঁড়ানো মানুষ, সমকালীন বিশ্ব রাজনীতির দুষ্টুচক্র তথা মানব-দানবের চিরায়ত দ্বন্দ্ব। বক্তব্যের প্রয়োজনে তিনি আঙ্গিকেও এনেছেন নতুনত্ব। 
তাঁর প্রথমদিককার নাটকের মধ্যে সর্প বিষয়ক গল্প, জন্ডিস ও বিবিধ বেলুন, মূল সমস্যা, এগুলোর নাম ঘুরে ফিরে আসে। সেইসঙ্গে প্রাচ্য, কীত্তনখোলা, বাসন, আততায়ী, সয়ফুল মূলক বদিউজ্জামান, কেরামতমঙ্গল, হাত হদাই, যৈবতী কন্যার মন, মুনতাসির ফ্যান্টাসি ও চাকা তাকে ব্যতিক্রমধর্মী নাট্যকার হিসেবে পরিচিত করে তোলে। জীবনের শেষ ভাগে নিমজ্জন নামে মহাকাব্যিক এক উপাখ্যান বেরিয়ে আসে সেলিম আল দীনের কলম থেকে। তিনি ২০০৮ সালের ১৪ জানুয়ারি মৃত্যুবরণ করেন। তাকে স্মরণ করে লিখেছেন তাঁরই দুই শিক্ষার্থী।]

লেখা দুটো পড়তে ক্লিক করুন-

 

বহমান বাংলায় সেলিম আল দীন || তানভীর আহমেদ সিডনী

আচার্যের পাঠশালা || সাকিরা পারভীন

***বাংলা ট্রিবিউনে প্রকাশিত কোনও সংবাদ, কলাম, তথ্য, ছবি, কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার দণ্ডনীয় অপরাধ। অনুমতি ছাড়া ব্যবহার করলে কর্তৃপক্ষ আইনি ব্যবস্থা গ্রহণ করবে।