দুপুর ০১:৪৬ ; বুধবার ;  ২২ মে, ২০১৯  

এইচআইভি পজিটিভদের জরুরি সেবা দিতে অবহেলা করেন চিকিৎসকরা!

প্রকাশিত:

সম্পাদিত:

খুলনা প্রতিনিধি॥ এইচআইভি/এইডস পজিটিভ বলে হাসপাতালে জরুরি সেবা দিতে চিকিৎসকরা অবহেলা করে। দূরে সরিয়ে দেয়। রক্তমাখা কাটা হাত ধরতে ঘৃণা প্রকাশ করে। আমাদের কী স্বাভাবিকভাবে বাঁচার অধিকার নেই? পরিবারের আর্থিক অবস্থা ভাল না। তাই জরুরি সেবা পেতে সরকারি হাসপাতালেই যেতে হয়। কিন্তু সেখানে অবহেলা আর বঞ্চনার শিকার হতে হয়। চিকিৎসকরা যদি এ ধরনের আচরণ করেন তাহলে প্রতিবেশিরা আমাদের সহ্য করবে কিভাবে? এভাবেই আক্ষেপ করলেন এইচআইভি/এইডস পজিটিভ সতের বছর বয়সী খুলনার শারমিন সুলতানা। তার মতই আক্ষেপ করেছেন এইডস আক্রান্ত আফলিন, ফাতেমা খাতুন। মঙ্গলবার খুলনা মহানগরীর রূপসা স্ট্যান্ড রোডে সিএসএস আভা সেন্টারে আয়োজিত ‘স্টেক হোল্ডার কনফারেন্সে’ তারা এ অভিযোগ করেন। সিএসএস এইচআইভি/এইডস কর্মসূচি ও খুলনা প্রেস ক্লাবের যৌথ উদ্যোগে এ কনফারেন্স অনুষ্ঠিত হয়। কনফারেন্সে আফলিন জানান, তার স্বামী এইচআইভি/এইডস পজিটিভ হয়ে মারা গেছেন। তিনিও পজিটিভ। তার তিন সন্তান রয়েছে। তারা এখনও ভাল। তিনি খুলনার ১৩৭ জন এইচআইভি পজিটিভদের একজন। মুক্ত আকাশ প্রতিষ্ঠানের সহায়তায় তিনি বেঁচে থাকার চেষ্টা করছেন। ফুলতলা যৌনপল্লীর ফাতেমা খাতুন জানান, পুনর্বাসন না করে তাদের উচ্ছেদ করলে তা সমাজের জন্য আরও ক্ষতিকর হবে। কারণ উচ্ছেদের পর তারা চারদিকে ছড়িয়ে ছিটিয়ে পড়বেন। তাতে অবক্ষয় বাড়বে। জীবিকার জন্য তাদের এ কাজই করতে হবে। তাই বিকল্প ব্যবস্থার পাশাপাশি জীবিকায়নের জন্য পুনর্বাসন আবাসন দেওয়াসহ প্রয়োজনীয় সুযোগ সুবিধা দিতে হবে। সেমিনারে প্রধান অতিথি ছিলেন সংসদ সদস্য মিজানুর রহমান মিজান। বিশেষ অতিথি ছিলেন খুলনা পুলিশ সুপার হাবিবুর রহমান, খুলনার সিভিল সার্জন ইয়াছিন আলী সরদার ও খুলনা প্রেস ক্লাবের সভাপতি ফারুক আহমেদ। সভাপতিত্ব করেন সিএসএসের নির্বাহী পরিচালক মার্ক মুন্সী। /বিএল/একে/

***বাংলা ট্রিবিউনে প্রকাশিত কোনও সংবাদ, কলাম, তথ্য, ছবি, কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার দণ্ডনীয় অপরাধ। অনুমতি ছাড়া ব্যবহার করলে কর্তৃপক্ষ আইনি ব্যবস্থা গ্রহণ করবে।