দুপুর ০১:০৮ ; বুধবার ;  ২২ মে, ২০১৯  

মোবাইল টাওয়ারের স্বাস্থ্যঝুঁকি নিয়ে মানববন্ধন

প্রকাশিত:

সম্পাদিত:

বাংলা ট্রিবিউন রিপোর্ট॥ মোবাইল ফোন কোম্পানিগুলোর টাওয়ারের রেডিয়েশনের কারণে দেশের মানুষ ভয়াবহ ক্যান্সার ঝুঁকিতে আছে। এটি অদৃশ্য, কিন্তু মানবদেহে ও জীবজগতের জন্য মারাত্মক ক্ষতিকর বলে মন্তব্য করেছে কোয়ালিশন অব লোকাল এনজিও'স বাংলাদেশসহ (সিএলএনবি) পরিবেশবাদী সংগঠনগুলো। শনিবার দুপুরে জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে সিএলএনবি আয়োজিত এক মানববন্ধনে বক্তরা এ দাবি তুলে ধরেন। সিএলএনবির চেয়ারম্যান হারুনূর রশিদ বলেন, 'মোবাইল টাওয়ারের রেডিয়েশনের প্রভাবে মাটির দূষণ, বায়ু দূষণ, পানি দূষণ হচ্ছে। কিন্তু তা খালি চোখে ধরা পড়ে না। তবে সবার চেয়ে বড় দূষন ও ভয়াবহ হচ্ছে তড়িৎ চৌম্বকীয় বিকিরণ। যার ভয়াবহতার কবলে সারাদেশ।' তিনি অারও বলেন, 'মোবাইল টাওয়ারের রেডিয়েশনের প্রভাবে মানুষের ক্যান্সারও হতে পারে। দীর্ঘমেয়াদে রেডিয়েশনের প্রভাবে ত্বকের ক্যান্সারের আশঙ্কা থাকে।' তিনি প্রশ্ন করেন, 'যুক্তরাষ্ট্র ও যুক্তরাজ্যসহ বিশ্বের অধিকাংশ দেশে আবাসিক এলাকা, স্কুল, কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয় এলাকা থেকে অনেক দূরে এবং উঁচুতে মোবাইল টাওয়ার স্থাপন করা হয়েছে। অথচ বাংলাদেশে মোবাইল ফোনের ৯০ শতাংশ টাওয়ার লোকালয়, বাড়ি এবং শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ছাদে স্থাপন করা হয়েছে কেন?' মানববন্ধনে বক্তারা অভিযোগ করে বলেন, 'বহির্বিশ্বে মোবাইল টাওয়ারের রেডিয়েশনের মাত্রা মনিটর করা হয়। কিন্তু বাংলাদেশে এর ব্যবস্থা নাই। অবিলম্বে আবাসিক এলাকা থেকে মোবাইল টাওয়ার সরিয়ে লোকালয়ের বাইরে কমপক্ষে ৪০ তলা ভবনের সমান উঁচুতে স্থাপন করতে হবে।' পরিবেশের ওপর মোবাইল টাওয়ারের প্রভাব উল্লেখ করে তারা অারও বলেন, 'রেডিয়েশনের ফলে চড়ুই , ময়না, ইষ্টি কুটুম, মাছরাঙ্গা, টুনটুনি, শালিক, দোয়েল, বাবুই, কাক, ফিঙ্গে ও বুলবুলি পাখি প্রায় বিলুপ্তির পথে। এমনকি পাখিদের ডিম পর্যন্ত নষ্ট হয়ে যায় এবং প্রজননের ক্ষমতা হারায়। পাশাপাশি গাছের পাতা শুকিয়ে যাচ্ছে ও গাছ মরে যাচ্ছে।' মানববন্ধনে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন সংযুক্ত শ্রমিক ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক মোকাদ্দেম হোসেন, শ্রমিক নেতা বাহারানে সুলতান বাহার, উন্নয়নকর্মী শামীম রেজা, খন্দকার লুৎফর রহমান জুয়েল প্রমুখ।   /এসঅাইএস/এমআর/এফএ

***বাংলা ট্রিবিউনে প্রকাশিত কোনও সংবাদ, কলাম, তথ্য, ছবি, কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার দণ্ডনীয় অপরাধ। অনুমতি ছাড়া ব্যবহার করলে কর্তৃপক্ষ আইনি ব্যবস্থা গ্রহণ করবে।