দুপুর ০১:৩২ ; বুধবার ;  ২২ মে, ২০১৯  

'দেশে শতকরা ৫ ভাগ লোকেরও সাধ্য নেই ব্যয়বহুল কিডনি চিকিৎসা চালিয়ে যাবার'

চাঁদপুরে কিডনি বিকল প্রতিরোধ বিষয়ক সেমিনার

প্রকাশিত:

চাঁদপুর প্রতিনিধি॥

বাংলাদেশের প্রায় দুই কোটিরও বেশি লোক কোনও না কোনও কিডনি রোগে আক্রান্ত। বিপুল সংখ্যক কিডনি রোগীকে চিকিৎসা সেবা দেওয়ার জন্য দেশে বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক আছেন মাত্র ৭৫ জন। এই হিসাবে ২ লাখ ৪০ হাজার রোগীর জন্য ডাক্তার আছেন মাত্র ১ জন। কিডনি রোগীদের সেবা দেওয়ার জন্য একজন চিকিৎসককে প্রতিদিন ৭০০ রোগী দেখতে হবে।

শনিবার চাঁদপুরে ‘ক্যাম্পস কিডনি ও ডায়ালাইসিস সেন্টারের’ উদ্বোধনের পর স্থানীয় শিল্পকলা একাডেমি মিলনায়তনে স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন, কিডনি অ্যাওয়ারনেস মনিটরিং অ্যান্ড প্রিভেনশন সোসাইটি (ক্যাম্পস) আয়োজিত এক সেমিনারে এ তথ্য উপস্থাপন করেন সংগঠনের সভাপতি অধ্যাপক ডা. এম এ সামাদ।

সেমিনারে তিনি জানান, প্রতি ঘণ্টায় ৫ জন কিডনি রোগী মৃত্যুবরণ করছে। কিডনিরোগ অত্যন্ত ভয়াবহ এবং এ রোগের চিকিৎসা এতই ব্যয়বহুল যে, এদেশে শতকরা ৫ ভাগ লোকেরও সাধ্য নেই এই ব্যয়বহুল চিকিৎসা চালিয়ে যাবার।

তাই এ রোগের ভয়াবহতা বিবেচনায় রেখে তা প্রতিরোধে গণসচেতনতা বৃদ্ধির জন্য দেশব্যাপী বিশেষ কর্মসূচি গ্রহণ করার জন্য সরকারের প্রতি আহ্বান জানান সেমিনারে অংশ নেয়া বক্তারা।

মূল প্রবন্ধে অধ্যাপক ডা. এম এ সামাদ বলেন, 'ক্যাম্পস সেবা কার্যক্রম দেশের প্রত্যন্ত অঞ্চলে প্রসারিত করার যে পরিকল্পনা রয়েছে তার অংশ হিসেবে চাঁদপুরে পদার্পণ করেছে তারা। ‘সচেতনতার অভাব, খাদ্যাভাস এবং লাইফ স্টাইলই কিডনিসহ অনেক মারাত্মক রোগের কারণ। এ বিষয়টি মাথায় রেখে সচেতনতা বৃদ্ধি, প্রচারণা, স্কিনিং-- ইত্যাদি কর্মকাণ্ড নিরলসভাবে পরিচালনা করে চাঁদপুরে কিডনি রোগ বিস্তার রোধে ক্যাম্পস অব্যাহত কাজ করে যাবে। তবে সরকারকে এ ব্যাপারে কার্যকরী ভূমিকা নিতে হবে।'

প্রধান অতিথির বক্তব্যে সাবেক পররাষ্ট্রমন্ত্রী ও বর্তমান সরকারের পররাষ্ট্র বিষয়ক সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি ডা. দীপু মনি এমপি বলেন, 'এদেশে খাদ্য ভেজালের বিরুদ্ধে কঠোর আইন রয়েছে। যার সঠিক প্রয়োগের মাধ্যমে ভেজাল রোধ সম্ভব। তবে সচেতনতার অভাবে কেউ মামলাও করেন না। ফলে সাধারণ ভোক্তাদের ভোগান্তি বেড়েই চলছে। এ ব্যাপারে প্রতিবাদী ও সচেতন হতে হবে। যেহেতু কিডননি রোগের পেছনে খাদ্যে ভেজাল একটি বড় কারণ, সেহেতু এ বিষয়টিকে বিশেষ গুরুত্ব দিতে হবে।'

সেমিনারে বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন জাতীয় ক্রিকেট দলের সাবেক অধিনায়ক গাজী আশরাফ হোসেন লিপু, চাঁদপুরের পুলিশ সুপার আমির জাফর, পৌরমেয়র নাছির উদ্দিন আহমেদ, সিভিল সার্জন ডা. রথীন্দ্রনাথ মজুমদার, চাঁদপুর প্রেসক্লাব সভাপতি গোলাম কিবরিয়া জীবন, চাঁদপুর ডায়াবেটিক হাসপাতালের সম্পাদক ডা. আব্দুল গফুর, ২৫০ শয্যাবিশিষ্ট সদর হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক ডা. প্রদীপ কুমার দত্তসহ প্রশাসনিক কর্মকর্তা, চিকিৎসক, সুশীল সমাজের প্রতিনিধি, ব্যবসায়ীসহ বিভিন্নস্তরের বিশিষ্টজনরা।

এর আগে সকাল বেলা ১১টায় চাঁদপুর মিশন রোডস্থ জলকাদর মঞ্জিলে ক্যাম্পস কিডনি ও ডায়ালাইসিস সেন্টারের উদ্বোধন করেন ডা. দীপু মনি এমপি।

/একে/


 

***বাংলা ট্রিবিউনে প্রকাশিত কোনও সংবাদ, কলাম, তথ্য, ছবি, কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার দণ্ডনীয় অপরাধ। অনুমতি ছাড়া ব্যবহার করলে কর্তৃপক্ষ আইনি ব্যবস্থা গ্রহণ করবে।