রাত ০১:৫৭ ; মঙ্গলবার ;  ২৪ সেপ্টেম্বর, ২০১৯  

সাহিত্যে নোবেল পেলেন প্যাট্রিক মদিয়ানো

প্রকাশিত:

সম্পাদিত:

বিদেশ ডেস্ক॥ ২০১৪ সালে সাহিত্যে নোবেল পেলেন ফরাসি সাহিত্যিক প্যাট্রিক মদিয়ানো। ইতালিয়ান বংশোদ্ভূত এই লেখকের জন্ম ১৯৪৫ সালের ৩০ জুলাই প্যারিসের শহরতলীতে। উপন্যাসিক হিসেবেই তিনি অধিক জনপ্রিয়। তিনি ফরাসি ভাষাতেই সাহিত্য চর্চা করে আসছেন। উপন্যাসের জন্য তিনি ফ্রান্সের সর্বোচ্চ সাহিত্য পুরস্কারও পেয়েছেন। মদিয়ানোর উল্লেখযোগ্য উপন্যাস হচ্ছে 'মিসিং পারসন' ও ল্যাকম্ব লুসিয়েন। তার এই উপন্যাস দুটি থেকে ফরাসি চলচ্চিত্র নির্মাতা লুইস ম্যালে চলচ্চিত্রও নির্মান করেন। এবার সাহিত্যে নোবেলের তালিকায় পাঠক প্রিয়তা ও জনমত জরিপে শীর্ষে ছিলেন কেনিয়ার লেখক নগুগি ওয়া থিয়োঙ্গো, জাপানি হারুকি মুরাকামি, সিরিয়ার কবি আদোনিস। সবাইকে পেছনে ফেলে পাঠকপ্রিয়তার তালিকায় না থাকা মদিয়ানো এই পুরস্কার জিতে নিয়েছেন। ৬৯ বয়সী মদিয়ানোর প্রথম উপন্যাস লা প্লেস দে ল্যাতোইল ১৯৬৮ সালে প্রকাশ হয়। ১৯৭৮ সালে তিনি ফ্রান্সের বিখ্যাত সাহিত্য পুরস্কার 'গনকোর্ত' জিতে নেন। এর পর ফ্রান্স অ্যাকাডেমি পুরস্কারও পেয়েছেন তিনি। ২০১১ সালে ফ্রান্স টুডেতে দেওয়া এক সাক্ষাতকারে মদিয়ানো দাবি করেন, একান্ত নিজের ইচ্ছায় তিনি লেখালেখি করছেন। লেখালেখি কোনও অর্জনের জন্য করেন না। লেখালেখি নিয়ে তার নিজস্ব কোনও প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষা বা ডিপ্লোমা নেই। কোনও নির্দিষ্ট লক্ষ্য অর্জনের জন্যও তিনি লেখালেখি করছেন না। তবে এই লেখালেখি ছাড়া আর কিছু করার ভাবনাও তার মনে আসেনি। নিজেকে নিয়ে মদিয়ানোর অভিযোগের শেষ নেই। নিজের পুরানো বইগুলো দ্বিতীয়বার পড়তে রাজী নন তিনি। সেখানে তিনি আর নিজেকে খুঁজে পান না বলেই তার মত। তিনি বলেন, এই বয়সে এসে নিজের তরুণ বয়সের বই পড়াটা অনেকটা একজন বৃদ্ধ নায়কের তরুণকালের অভিনয় দেখার মতোই। /এফএএন/

***বাংলা ট্রিবিউনে প্রকাশিত কোনও সংবাদ, কলাম, তথ্য, ছবি, কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার দণ্ডনীয় অপরাধ। অনুমতি ছাড়া ব্যবহার করলে কর্তৃপক্ষ আইনি ব্যবস্থা গ্রহণ করবে।