রাত ১০:২৪ ; শুক্রবার ;  ২২ মার্চ, ২০১৯  

ফেসবুকের কয়েকটি অপকারিতা

প্রকাশিত:

সম্পাদিত:

এম. এম. রহমান॥  সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমগুলো ইতিমধ্যে মানবজীবনের অন্যতম অবিচ্ছেদ্য অংশে পরিণত হয়েছে। ইন্টারনেটের সঙ্গে সংযুক্ত আছেন কিন্তু ফেসবুক অ্যাকাউন্ট নেই এমন মানুষের দেখা পাওয়া বর্তমানে সত্যিই দুষ্কর।

ফেসবুক শুধুমাত্র একটি ওয়েবসাইট নয়। এটি এখন ব্যক্তিগত ব্লগ বা মত প্রকাশের জায়গায় পরিণত হয়েছে। গবেষণায় দেখা গেছে, একজন ফেসবুক ব্যবহারকারী প্রতিবারে অন্তত ১৮ মিনিট ফেসবুকে ব্যয় করেন।

ফেসবুকের যেমন সুবিধা রয়েছে তেমনি রয়েছে অসুবিধাও। এটি যেমন মানুষের যোগাযোগকে সহজ করে দিতে পারে তেমনি আবার ডেকে আনতে পারে সীমাহীন অশান্তি। সচেতন থাকলে এসব এড়িয়ে স্বস্তিতে ফেসবুক ব্যবহার করা যেতে পারে।

জেনে নেওয়া যাক ফেসবুকের কয়েকটি অপকারিতা সম্পর্কে।

ঘুম নষ্ট: বর্তমান প্রজন্ম পাল্লা দিয়ে ফেসবুক নির্ভর হচ্ছে। কে কতক্ষণ রাত জেগে চ্যাট করতে পারে তা যেন প্রতিযোগিতায় পরিণত হয়েছে। রাতকে দিন এবং দিনকে রাত করে দিচ্ছে ফেসবুক ব্যবহার করে। এতে স্বাস্থ্যের উপর পড়ছে বিরূপ প্রভাব।

Facebook

চাকরি হারাতে পারেন: ফেসবুকে মত প্রকাশের স্বাধীনতা সীমাহীন। কিন্তু বাদ সাধবে যখন আপনার বস আপনার প্রোফাইলে থাকে। অসহিষ্ণু বসের সঙ্গে আপনার মতের অমিল হলে হারাতে পারেন চাকরিটি। এমন নজির মাঝে মাঝেই পত্র-পত্রিকায় দেখা যায়।

পরিবারের সঙ্গে দূরত্ব: আপনার অতিমাত্রায় ফেসবুকের ব্যবহার আপনার পরিবারের মানুষদের বিরক্তির কারণ হতে পারে। দূরত্ব তৈরি হতে পারে সবার সঙ্গে। খাওয়ার সময়েও স্মার্টফোনে ফেসবুকের নোটিফিকেশন দেখা এখন 'অনেক খাবার' টেবিলের নিয়মিত দৃশ্য।

পারিবারিক কলহ: আপনার স্বামী বা স্ত্রী আপনার সঙ্গে ফেসবুকে যুক্ত আছে? আপনি অবলীলায় লাইক দিয়ে যাচ্ছেন অন্য নারী বা পুরুষের ছবিতে? সন্দেহ দানা বাঁধতে শুরু করল। এসব কারণ বিচ্ছেদ পর্যন্ত গড়াতে পারে।

ভার্চুয়াল জীবনপ্রীতি: ফেসবুকের কারণে তারুণ্যের একটি বড় অংশ বাস্তব জীবন থেকে সরে যাচ্ছে। তাদের কাছে ভার্চুয়াল জীবনই হয়ে দাঁড়াচ্ছে সবকিছু। সাফল্য ব্যর্থতার মাপকাঠি যেখানে 'লাইক ও কমেন্ট'

গোপন জীবন তৈরি: ফেক বা নকল অাইডি তৈরি সুযোগ থাকায় ফেসবুকে বর্তমান তারুণ্য নিজেদের 'গোপন জীবন' তৈরি করে নিচ্ছে। জড়িয়ে পড়ছে বিভিন্ন ধরনের প্রতারণামূলক কাজে।

জ্ঞানের সীমাবদ্ধতা সৃষ্টি করছে: ফেসবুকে অতিমাত্রায় সময় ব্যয় করার কারণে বর্তমান তারুণ্য বই বা পত্র-পত্রিকা পড়ার সময় পাচ্ছে না। শুধুমাত্র ফেসবুক থেকে যেটুকু খবর পাওয়া যায় তাতেই সীমাবদ্ধ থাকছে তাদের জ্ঞানের পরিধি।

/এইচএএইচ

***বাংলা ট্রিবিউনে প্রকাশিত কোনও সংবাদ, কলাম, তথ্য, ছবি, কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার দণ্ডনীয় অপরাধ। অনুমতি ছাড়া ব্যবহার করলে কর্তৃপক্ষ আইনি ব্যবস্থা গ্রহণ করবে।