দুপুর ০১:৩৩ ; রবিবার ;  ২৬ মে, ২০১৯  

রূপরেখা ছাড়াই এক লাখ ওয়াইফাই হট স্পটের পরিকল্পনা

প্রকাশিত:

সম্পাদিত:

হিটলার এ. হালিম॥

ওয়াইফাই হট স্পট তৈরির কাজ এখনও শুরু হয়নি অথচ ২০১৭ সালের মধ্যে তা শেষ করার পরিকল্পনা গ্রহণ করেছে সরকার।

দেশের প্রত্যন্ত অঞ্চলে ইন্টারনেট ব্যবহারের সুবিধা দিতে সারাদেশে সরকার এই উদ্যোগ নিয়েছে। এতে দেশে ডিজিটাল বৈষম্য দূর করবে বলে মনে করছেন সরকারের নীতি নির্ধারকরা।

চলতি বছরের শুরুর দিকে অাইসিটি বিভাগের প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ অাহমেদ পলক তাদের অায়োজিত এক অনুষ্ঠানে প্রথম হটস্পট তৈরির ঘোষণা দেন। অন্যদিকে প্রধানমন্ত্রীর তথ্যপ্রযুক্তি বিষয়ক উপদেষ্টা সজীব ওয়াজেদ জয় গত ১২ জুলাই রংপুরে এক অনুষ্ঠানেও সারাদেশে এক লাখ হট স্পট তৈরির ঘোষণা দেন।

জানা গেছে, চলতি বছরের শেষে অথবা অাগামী বছরের প্রথম দিকে হট স্পট তৈরির কাজ শুরু হতে পারে। 'ইনফোর সরকার থ্রির'অাওতায় এই প্রকল্প শুরু হবে। তবে এখনও ইনফোর সরকার টু প্রকল্পের কাজ শেষ হয়নি বলে জানা গেছে। এটি শেষ হতে অন্তত তিন থেকে চার মাস লাগতে পারে। অার এ প্রকল্পের কাজ শেষ হলেই 'ইনফো সরকার থ্রি'অর্থাৎ হট স্পট তৈরির কাজ শুরু হতে পারে। প্রকল্পটি বাস্তবায়ন করবে সরকারের তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি (অাইসিটি) অধিদফতর। অাইসিটি বিভাগ সূত্রে এসব তথ্য জানা গেছে।

সূত্র জানায়, হট স্পট তৈরির প্রাথমিক পর্যায়ে প্রথম এক বছর গ্রাহকদের বিনামূল্যে ইন্টারনেট সেবা দেওয়া হবে। দ্বিতীয় বছর থেকে 'কিছু' হলেও চার্জ অারোপ করা হবে। অাইসিটি বিভাগ চাইছে, ওয়াইফাই হট স্পটের এক বর্গকিলোমিটার এলাকার মধ্যে বসবাসরতরা যাতে ইন্টারনেট ব্যবহার করতে পারে সেইরকম নেটওয়ার্ক তৈরি করতে। যদিও এসব এখনও পরিকল্পনা পর্যায়ে রয়েছে। চূড়ান্ত হতে অারও সময় প্রয়োজন।

ওই সূত্র অারও জানায়, মোবাইলফোন অপারেটররাও হটস্পট তৈরি করতে পারবে তবে ঢাকা ও চট্টগ্রামের বাইরের বিভাগ, জেলা, উপজেলা, থানা এমনকি ইউনিয়নেও। ঢাকা ও চট্টগ্রামসহ সারাদেশে বেসরকারি উদ্যোক্তারা ছোট পরিসরে হট স্পট তৈরি করতে পারবে। বিষয়টির রূপরেখা এখন চূড়ান্ত হয়নি।

ডেভেলপমেন্ট অব ন্যাশনাল আইসিটি ইনফ্রা-নেটওয়ার্ক ফর বাংলাদেশ গভর্মেন্ট ফেজ-' প্রকল্পের আওতায় এসব ওয়াইফাই হট স্পট তৈরি করা হবে। এছাড়া ওই প্রকল্পের আওতায় সাড়ে তিন হাজার উপজেলায় অপটিক্যাল ফাইবার, ২৫ হাজার আইপি ফোন এবং সাড়ে চার হাজার বায়োমেট্রিক ডাটা সেন্টার স্থাপন করা হবে।

দেশের মোট এক লাখ ৩০ হাজার শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, ইউনিয়ন পর্যায়ে বাসস্টপ, লঞ্চঘাট, ইউনিয়ন তথ্য সেবাকেন্দ্রে ওয়াইফাই হট স্পট তৈরির পরিকল্পনার কথা জানা গেছে। এরই মধ্যে 'ইনফো সরকার-৩’ প্রকল্পের জন্য ১৬০ মিলিয়ন মার্কিন ডলারের প্রস্তাব তৈরি করেছে অাইসিটি বিভাগ।

সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, রাষ্ট্রায়ত্ত মোবাইল অপারেটর টেলিটকের কাছে ওয়াইফাই স্পট করার প্রস্তাব করা হয়েছে। সরকারি যেসব অফিসে ইন্টারনেট সংযোগ আছে, সেখানে রাউটার বসানোরও পরিকল্পনা রয়েছে সরকারের। তাহলে ওই অফিসে আসা লোকজনকেও নেটওয়ার্কের আওতায় আনা সম্ভব হবে।

জানতে চাইলে অাইসিটি বিভাগের অতিরিক্ত সচিব কামাল উদ্দিন অাহমেদ বাংলা ট্রিবিউনকে জ‌‌‌ানান, হটস্পট তৈরির প্রাথমিক প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে। বিষয়টি পরিকল্পনা কমিশনে অন্তর্ভুক্তও হয়েছে। তিনি বলেন, এই প্রকল্পে গতি অাছে। এতে অর্থায়নের বিষয়টি চূড়ান্ত হলেই হটস্পট তৈরির কাজ শুরু হবে। ২০১৭ সালের মধ্যে এ কাজ শেষ হবে বলে তিনি অাশাবাদ ব্যক্ত করেন।

জানা গেছে, সরকার বৈদেশিক সহায়তা বিশেষ করে ঋণ নিয়ে প্রকল্পটি বাস্তবায়নে অাগ্রহী। তবে এখনও অর্থ সংস্থানের বিষয়টি নিশ্চিত করতে পারেনি সরকার।

/এইচএএইচ/এএইচ/

***বাংলা ট্রিবিউনে প্রকাশিত কোনও সংবাদ, কলাম, তথ্য, ছবি, কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার দণ্ডনীয় অপরাধ। অনুমতি ছাড়া ব্যবহার করলে কর্তৃপক্ষ আইনি ব্যবস্থা গ্রহণ করবে।