দুপুর ০২:৩৩ ; মঙ্গলবার ;  ২২ অক্টোবর, ২০১৯  

দেখে এলাম ইমাজিন কাপের চূড়ান্ত পর্ব

প্রকাশিত:

সম্পাদিত:

রাহাত ইয়াসির অনিন্দ্য, যুক্তরাষ্ট্র থেকে ফিরে॥

অামি রাহাত ইয়াসির আনিন্দ্য, গত ২৯ জুলাই থেকে ২ অাগস্ট পর্যন্ত যুক্তরাষ্ট্রের ওয়াশিংটনের সিয়াটলে অনুষ্ঠিত মাইক্রোসফট স্টুডেন্ট পার্টনার (এমএসপি) সামিটে অংশগ্রহণ করি। অামি নিজেও একজন এমএসপি।

মাইক্রোসফটের হেডকোয়ার্টারের পুরো ক্যাম্পাস প্রায় একটি শহরের মতো। রাস্তার দু'পাশে সবুজ ঘাস। সবুজ ঘাসওয়ালা রাস্তার পাশের ভবনগুলোর মধ্যে চলছে আবিষ্কারের চর্চা। অাবার রাতে আলোর ঝলকানি। মুগ্ধ হয়ে দেখার মতো সব অায়োজন।

৫০টি দেশ থেকে ৭৪ জন এমএসপি সামিটে অংশ নেন। এতে প্রথম ধাপে ৩০ জনের মধ্যে আমাকে বাছাই করে মাইক্রোসফট। অামরা মাইক্রোসফটের বিভিন্ন প্রযুক্তি সম্পর্কিত ট্রেনিং সেশন, রিসার্চ ও ইনভেশন ট্রেনিংয়ে অংশ নেওয়ার সুযোগ পাই।

স্কট বারমেস্টর (এমএসপি প্রোগ্রামের সিনিয়র প্রোগ্রাম ম্যানেজার) এমএসপিদের কাজ সম্পর্কে বুঝিয়ে দেন। কার্টেশটেক (জেনারেল ম্যানেজার, ডেভেলপার) দর্শকদের মাইক্রোসফটের শ্রোতা বিপণন, মুরাতবেরমে (টেকনিকাল ইভানজেলিস্ট), কারিফিন (সিনিয়র প্রোগ্রাম ম্যানেজার মাইক্রোসফট মোস্ট ভ্যাল্যুয়েবল প্রফেশনাল, প্রোগ্রাম এমভিপি) মেনটরশিপ প্রোগ্রাম, জর্জিও সারদো (সিনিয়র ডিরেক্টর ইভানজেলিস্ট) মাইক্রোসফটের স্টুডেন্ট পার্টনার থেকে সিনিয়র ডিরেক্টর ইভানজেলিস্ট হয়ে ওঠার গল্প শোনান।

প্রশিক্ষণ শেষে এমএসপিরা তাদের ডেভেলপ করা অ্যাপ মেলায় প্রদর্শন করে। অামি উইন্ডোজ ফোন অ্যাপ “বিটল” প্রদর্শন করি। “বিটল” সঠিকভাবে পাতার রঙ বিশ্লেষণ করে উদ্ভিদের রোগ নির্ণয়, নিরাময় বা রোগ প্রতিরোধ কীভাবে করা যায় তার পরামর্শ দিতে পারে।

অামি ওয়াশিংটনের কনভেনশন সেন্টারে মাইক্রোসফটের ৫ হাজার কর্মীর সঙ্গে উপভোগ করি ইমাজিন কাপের পুরস্কার প্রদান অনুষ্ঠান। মাইক্রোসফটের প্রধান নির্বাহী সত্য নাদেলা এবং টেরিস আলেক্সি পাজিতনভ (গেম ডিজাইনার) ইমাজিন কাপের পুরস্কার প্রদান অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন।

Microsoft 1

এমএসপিদের হিস্ট্রি এবং ইন্ডস্ট্রি জাদুঘরে ইমাজিন কাপ প্রদর্শনী দেখার সুযোগ হয়। অস্ট্রেলিয়ার আইনেমিয়া এ বছর ইমাজিন কাপ বিজয়ী হয়েছে। আইনেমিয়া মানুষের দৈনন্দিন ব্যবহারের জন্য তৈরি রক্তাস্বল্পতার জন্য একটি সহজ, আক্রমণকারী এবং সহজে প্রবেশযোগ্য স্ক্রিনিং টুল তৈরি করে।

আইনেমিয়া কনজাংটিভা বিশ্লেষণ করে এবং রক্তাস্বল্পতার ঝুঁকিওয়ালা চোখের ছবি তুলে হিসাব করে দেখিয়ে দেয়। প্রশিক্ষণ নেই এমন ব্যবহারকারীদেরও প্রযুক্তিটি ব্যবহার করা শিখিয়ে দেয়।

বসনিয়ার কেমিকালিউম পিপলস চয়েজ পুরস্কার লাভ করে। কেমিকালিউম ধারণা তৈরি হয়েছে শিক্ষাকে আরও বিনোদনধর্মী করে তোলা থেকে। প্রযুক্তির বর্তমান অগ্রগতি পর্যবেক্ষণ মাধ্যমে, কীভাবে শিক্ষা আরও বিনোদনধর্মী করা যায় সেই দিক মাথায় রেখে তারা এই প্রকল্পটি বানায়।

এটা এক সপ্তাহের একটি সংক্ষিপ্ত সফর ছিল এটি কিন্তু এমএসপিরা তাদের অ্যাপ প্রদর্শনী করতে পেরেছে মাইক্রোসফটের পণ্য প্রদর্শনের মতো একটি মেলায়। মাইক্রোসফটের হেডকোয়ার্টারে আয়োজিত এই চমৎকার আয়োজনের সব ছবি পাওয়া যাবে http://on.fb.me/1oewYt8 এই ঠিকানায়।

এইচএএইচ/

***বাংলা ট্রিবিউনে প্রকাশিত কোনও সংবাদ, কলাম, তথ্য, ছবি, কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার দণ্ডনীয় অপরাধ। অনুমতি ছাড়া ব্যবহার করলে কর্তৃপক্ষ আইনি ব্যবস্থা গ্রহণ করবে।