রাত ০২:২০ ; সোমবার ;  ০৫ ডিসেম্বর, ২০১৬  

১১ লাখ টন জ্বালানি তেল আমদানি করবে সরকার

প্রকাশিত:

বাংলা ট্রিবিউন রিপোর্ট।।

চলতি বছরের জুলাই-ডিসেম্বর প্রান্তিকের জন্য ১১ লাখ ছয় হাজার টন পরিশোধিত জ্বালানি তেল আমদানির প্রস্তাব অনুমোদন দিয়েছে সরকারি ক্রয় সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটি। ৯টি দেশ হচ্ছে চীন, সংযুক্ত আরব আমিরাত, ব্রুনাই, ওমান, ভিয়েতনাম, ফিলিপাইন, তুরস্ক, মালয়েশিয়া ও ইন্দোনেশিয়া।

সচিবালয়ে মন্ত্রিপরিষদ সভাকক্ষে অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিতের সভাপতিত্বে বুধবার সরকারি ক্রয়সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটির বৈঠকে এ অনুমোদন দেওয়া হয়।

বৈঠক শেষে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের অতিরিক্ত সচিব মোস্তাফিজুর রহমান সংবাদিকদের জ্বালানি তেল আমদানি সংক্রান্ত ১১টি প্রস্তাব অনুমোদনের কথা জানান।

অনুমোদিত প্রস্তাব অনুযায়ী, প্রায় সবক্ষেত্রেই প্রতিব্যারেল গ্যাস অয়েলের দাম ধরা হয়েছে সাড়ে ৪ মার্কিন ডলার এবং ফার্নেস অয়েলের ২৪ মার্কিন ডলার। সব জ্বালানি তেল আমদানির প্রস্তাবই চলতি বছরের জুলাই-ডিসেম্বর প্রান্তিকের জন্য।

পৃথক এক প্রস্তাবে মুহুরি সেচ প্রকল্পে এন্সডেক লিমিটেডকে পরামর্শক নিয়োগ দেওয়ার কথা জানিয়ে মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, এডিবির অর্থায়নে এ কাজের ব্যয় ধরা হয়েছে ৫০ কোটি ৭৪ লাখ ৬৫ হাজার টাকা।

মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, চলতি বছরের জুলাই থেকে ডিসেম্বর প্রান্তিকে চীনের জেনহুয়া অয়েল কোম্পানি থেকে ৩০ হাজার টন গ্যাস অয়েল আমদানির প্রস্তাব অনুমোদন দেওয়া হয়েছে।

সংযুক্ত আরব আমিরাতের এমিরেটস ন্যাশনাল অয়েল কোম্পানি থেকে একই মেয়াদে এক লাখ ১০ হাজার টন গ্যাস ও ফার্নেস অয়েল এবং ওমানের ওমান ট্রেডিং ইন্টারন্যাশনাল থেকে ৩০ হাজার টন গ্যাস অয়েল ক্রয়ের প্রস্তাব অনুমোদন দিয়েছে কমিটি।

ব্রুনাইয়ের রাষ্ট্রায়ত্ত প্রতিষ্ঠান পিবি ট্রেডিং সেনডিরিয়ান বারহাদ থেকে একই মেয়াদে ৬০ হাজার টন গ্যাস অয়েল আমদানি, মালয়েশিয়ার পেটকো ট্রেডিং লেবুন কোম্পানি লিমিটেড থেকে দুই লাখ ৭৫ হাজার টন ফার্নেস অয়েল, গ্যাস অয়েল ও জেড ওয়ান ফুয়েল আমদানির প্রস্তাব অনুমোদন দেওয়া হয়েছে।

এ ছাড়া ভিয়েতনামের পট্রোলিমেক্স থেকে ৮০ হাজার টন গ্যাস ও ফার্নেস অয়েল, চীনের পেট্রোচিনা ইন্টারন্যাশনাল থেকে ১ লাখ ১০ হাজার টন গ্যাস ও ফার্নেস অয়েল আমদানির প্রস্তাবও অনুমোদন দিয়েছে ক্রয় কমিটি।

ফিলিপাইনের পিএনওসি এক্সপ্লোরেশন করপোরেশন থেকে ১ লাখ ৬১ হাজার গ্যাস ও ফার্নেস অয়েল, ইন্দোনেশিয়ার পিটি বুমিসিয়াক পুসাকো জেপিন থেকে ৫০ হাজার টন গ্যাস ও ফার্নেস অয়েল এবং তুরস্কের টার্কিশ পেট্রোলিয়াম ইন্টারন্যাশনাল কোম্পানি থেকে ৩০ হাজার টন গ্যাস অয়েল কেনা হচ্ছে।

চীনের ইউনিপে সিঙ্গাপুর লিমিটেড কোম্পানি থেকে ১ লাখ ৭০ হাজার টন গ্যাস ও ফার্নেস অয়েল আমদানির প্রস্তাব অনুমোদনের কথাও জানান অতিরিক্ত সচিব।

/এসআই/

***বাংলা ট্রিবিউনে প্রকাশিত কোনও সংবাদ, কলাম, তথ্য, ছবি, কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার দণ্ডনীয় অপরাধ। অনুমতি ছাড়া ব্যবহার করলে কর্তৃপক্ষ আইনি ব্যবস্থা গ্রহণ করবে।