সন্ধ্যা ০৬:১৫ ; রবিবার ;  ০৪ ডিসেম্বর, ২০১৬  

‘দেশপ্রেমই বড় কথা’

প্রকাশিত:

বাংলা ট্রিবিউন ডেস্ক।।

দেশপ্রেমই বড় কথা বলে মন্তব্য করেছেন ব্রিটেনের এমপি টিউলিপ সিদ্দিক। তিনি বলেন, বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী যে-ই কেউ হোন, সবচেয়ে বড় বিষয় হলো দেশপ্রেম। যিনি দেশপ্রেমিক, যিনি গরিব মানুষের দুঃখ দূর করতে চান, তার পক্ষেই সম্ভব একটি উন্নত জাতি গঠন করা। বুধবার রাজধানীর উত্তরায় ইংলিশ মিডিয়াম স্কুল স্কলাসটিকায় আয়োজিত ‘অনুপ্রেরণাময়ী নারী’ শীর্ষক এক আলোচনা অনুষ্ঠান শেষে সাংবাদিকদের তিনি এ মন্তব্য করেন।

টিউলিপ বলেন, বাংলাদেশে প্রধানমন্ত্রী নারী, স্পিকার নারী, বিরোধী দলের নেতাও নারী। ব্রিটেনে এমনটি কখনও ঘটেনি। রাজনীতিতে নারীর অবস্থান সুদৃঢ় করার জন্য বাংলাদেশের নারীদের আরও আত্মবিশ্বাসী হওয়া প্রয়োজন ।

টিউলিপ আরও বলেন, নারীদের রাজনীতিতে আসার ক্ষেত্রে আত্মবিশ্বাসের অভাবটাই সবচেয়ে বেশি। এটা ব্রিটেনেও দেখেছি। বাংলাদেশের নারীদের মধ্যেও দেখেছি। তাই রাজনীতিতে আসতে হলে আত্মবিশ্বাসটা লাগবে। সেটাই সবচেয়ে জরুরি।

ভবিষ্যতে কেমন বাংলাদেশে দেখতে চান—এমন প্রশ্নের জবাবে টিউলিপ বলেন, বাংলাদেশ অর্থনৈতিক সূচকে অনেকটা এগিয়েছে। ক্ষুদ্রঋণ, শান্তি মিশন, পোশাক উৎপাদন থেকে শুরু করে চিত্রশিল্প, কল-কারাখানা ও চাকরি সব ক্ষেত্রে মেয়েরা গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখছে। বিশ্বের অন্য যে কোনও দেশের চেয়ে আমাদের দেশেই সর্বাধিক সময় ধরে নারী সরকার প্রধান রয়েছেন। আমরা যদি বাংলাদেশের অর্থনৈতিক অগ্রগতি ধরে রাখতে চাই তাহলে অবশ্যই তরুণীদের আরও বেশি সুযোগ দিতে হবে। তবেই বাংলাদেশের অর্থনৈতিক ভিত্তি সুদৃঢ় হবে।
‘বাংলাদেশে বাল্যবিবাহ রোধে করণীয়’ বিষয়ে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, কিছুদিন আগ পর্যন্ত ব্রিটেনেও বাল্যবিবাহ একটি বড় সমস্যা ছিল। এখন অনেকটা কমে এসেছে। তাই সবকিছুর ঊর্ধ্বে নারীকে শিক্ষিত করে তুলতে হবে। বাংলাদেশের মেয়েরা উচ্চ শিক্ষায় শিক্ষিত হলেই বাল্য বিবাহ কমবে।

বাংলাদেশের রাজনীতিতে যুক্ত হওয়ার ইচ্ছে আছে কিনা এমন এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, দেশের জন্য কিছু করতে চাইলে দেশের গন্ডির মধ্যে থেকেই করতে হবে এমনটি আমি মনে করি না। আমি ব্রিটেনে থেকেও আমার দেশের জন্য কাজ করতে পারি।

 টিউলিপ বলেন, অনেকেই বলতেন, উনি তো নির্বাচনে জিতে লেবার পার্টি করবেন না, আওয়ামী লীগ করবেন। এটা মানুষকে বোঝানোটাও একটি বড় চ্যালেঞ্জ ছিল। আমি তাদের বলেছি, মানুষের জন্য কিছু করব বলেই আমি রাজনীতি করি। বাংলাদেশে কে কোনও দল করে তাতে আমার কিছু যায় আসে না। যিনি ব্রিটেনে লেবার পার্টি করেন আমি তার জন্য কাজ করব। যিনি আমার নির্বাচনি এলাকায় বাস করেন, তিনি যদি লেবার পার্টি নাও করেন, তাহলেও আমি তার জন্য কাজ করব। এটাই আমার রাজনীতি।
সারা বিশ্বে ধর্মীয় সন্ত্রাসের বিস্তার ব্রিটেনের নাগরিকদের মনে ইসলাম সম্পর্কে যে বিরূপ ধারণার জন্ম দিয়েছে, সে বিষয়ে তিনি বলেন, আমার মুসলিম নাম শুনে অনেকেই দ্বিধান্বিত হতেন। কেউ-কেউ প্রশ্ন করতেন ধর্মীয় সন্ত্রাস নিয়ে। অনেক সময় এসব প্রশ্নের ব্যাখ্যাও আমাকে দিতে হয়েছে।
এরআগে গত ২১ ডিসেম্বর সোমবার স্বামীসহ বাংলাদেশ সফরে আসেন টিউলিপ সিদ্দিক। যুক্তরাজ্যের পার্লামেন্ট সদস্য নির্বাচিত হওয়ার পর এটাই তার প্রথম বাংলাদেশ সফর।
স্কলাসটিকার প্রাক্তন ছাত্রী টিউলিপ রেজওয়ানা সিদ্দিক এবছর মে মাসে যুক্তরাজ্যের পার্লামেন্ট নির্বাচনে লেবার পার্টি থেকে এমপি নির্বাচিত হন। তিনি সেখানে লেবার পার্টির ছায়া মন্ত্রিপরিষদে সংস্কৃতি, গণমাধ্যম ও ক্রীড়া বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী হিসেবেও দায়িত্ব পালন করছেন। সূত্র:বাসস।

/এআই /এমএনএইচ/আপ-এসএম

***বাংলা ট্রিবিউনে প্রকাশিত কোনও সংবাদ, কলাম, তথ্য, ছবি, কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার দণ্ডনীয় অপরাধ। অনুমতি ছাড়া ব্যবহার করলে কর্তৃপক্ষ আইনি ব্যবস্থা গ্রহণ করবে।