রাত ১০:২০ ; শনিবার ;  ২০ এপ্রিল, ২০১৯  

বিএনপির সাবেক স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর গাড়িবহরে হামলা, স্ত্রীসহ আহত ১০

প্রকাশিত:

সম্পাদিত:

পটুয়াখালী প্রতিনিধি ।।

পৌর নির্বাচনে বিএনপি প্রার্থীর পক্ষে নির্বাচনি প্রচারণা চালানোর সময় সাবেক স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আলতাফ হোসেন চৌধুরীর গাড়িবহরে হামলা চালিয়েছে দুর্বৃত্তরা। এ ঘটনায় আলতাফ চৌধুরীর স্ত্রী সুরাইয়া চৌধুরীসহ অন্তত ১০ জন আহত হয়েছেন। আহতদের মধ্যে কয়েকজন সাংবাদিকও রয়েছেন।

জেলার কলাপাড়া উপজেলার রহমতপুর পৌর এলাকায় মঙ্গলবার সকাল সোয়া ১০টার দিকে এ ঘটনা ঘটে। বিএনপি কর্মীরা দাবি করেছেন, আওয়ামী লীগ প্রার্থী বিপুল হালদারের সমর্থকরা এ ঘটনা ঘটিয়েছে।

জেলা বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক অ্যাড. মজিবর রহমান টোটন জানান, পটুয়াখালী থেকে আলতাফ চৌধুরীর গাড়িবহর কলাপাড়া পৌঁছলে আওয়ামী লীগ প্রার্থী বিপুল হালদার সমর্থিত ছাত্রলীগ, যুবলীগ ও আওয়ামী লীগের সন্ত্রাসীরা গাড়িবহরটিতে অতর্কিতে হামলা চালায়। এ সময় তারা বহরে থাকা আরও অন্তত চারটি গাড়ি ভাঙচুর করে। বিএনপি সমর্থিত কলাপাড়া পৌরসভার মেয়র প্রার্থী হাজি হুমায়ুন সিকদারের লোকজন নির্বাচনি প্রচারণায় ওই স্থানে আগে থেকেই অপেক্ষা করছিলেন। এই হামলায় আহত হয়েছেন আলতাফের স্ত্রী বেগম সুরাইয়া চৌধূরী, জেলা বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক অ্যাড. মজিবর রহমান টোটন, অর্থ বিষয়ক সম্পাদক দুলাল মাতবর, যুবদলের যুগ্ম-আহ্বায়ক অ্যাড. মো. আরিফুল ইসলামসহ অন্তত ১০ জন। আহতদের স্থানীয়ভাবে চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে বলে জানা গেছে।

গণসংযোগের সংবাদ সংগ্রহের জন্য আসা বেশ কয়েকজন সাংবাদিকও গাড়িবহরে ছিলেন। এদের মধ্যে কয়েকজন আহত হন। এরা হচ্ছেন বৈশাখী টিভি’র আব্দুস সালাম আরিফ, জনকণ্ঠ ও ইন্ডিপেন্ডেন্ট টিভির মোকলেসুর রহমান, যমুনা টিভি’র জাকারিয়া হৃদয়, সময় টিভি’র ক্যামেরাম্যান সুজন দাম, কালের কণ্ঠের ইমরান হোসেন সোহেল, দৈনিক ভোরের আলো’র সরোজ দত্ত প্রমুখ।

এ সময় বৈশাখীর টিভি’র জেলা প্রতিনিধি আব্দুস ছালাম আরিফের মোবাইল ফোন, যমুনা টিভি জেলা প্রতিনিধি জাকারিয়া হৃদয়ের ক্যামেরা ছিনিয়ে নেয় হামলাকারীরা। পরে তা উদ্ধার করা হয়।

কলাপাড়া থানার ওসি আজিজুর রহমান জানান, কারা হামলা করেছে তা সঠিকভাবে বলা যাচ্ছে না। তবে চারটি গাড়ির সামনের গ্লাস ভাঙচুর করা হয়েছে।

তবে শহর আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি মো. মাসুম বেপারী জানান, বিএনপি নেতার গাড়িবহরে হামলার ব্যাপারে আওয়ামী লীগ প্রার্থীর লোকজন বা ছাত্রলীগ-যুবলীগকে অযথাই দায়ী করা হচ্ছে। এ হামলা তাদের দলীয় কোন্দলের ফল। আলতাফ হোসেন চৌধুরীর সঙ্গে জেলা বিএনপির রাজনীতি নিয়ে এবিএম মোশারেফ হোসেনের দীর্ঘদিনের বিরোধ চলছে। তারই বহিঃপ্রকাশই এই হামলা।

বিএনপি নেতারা জানান, হামলার পর বিএনপি প্রার্থীর সমর্থকদের মধ্যে আতঙ্ক ও চরম উত্তেজনা বিরাজ করছে। শহরের মোড়ে মোড়ে পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।

/এফএস/টিএন/

***বাংলা ট্রিবিউনে প্রকাশিত কোনও সংবাদ, কলাম, তথ্য, ছবি, কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার দণ্ডনীয় অপরাধ। অনুমতি ছাড়া ব্যবহার করলে কর্তৃপক্ষ আইনি ব্যবস্থা গ্রহণ করবে।