সন্ধ্যা ০৬:১৫ ; রবিবার ;  ০৪ ডিসেম্বর, ২০১৬  

রাজশাহীতে পৃথক সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত ২

প্রকাশিত:

সম্পাদিত:

রাজশাহী প্রতিনিধি।।

রাজশাহীর পুঠিয়া ও বাঘা উপজেলায় পৃথক সড়ক দুর্ঘটনায় দুইজন নিহত হয়েছেন। এতে আহত হয়েছেন আরও পাঁচজন। সোমবার দুপুরে ও সন্ধ্যার ৭টার দিকে দুর্ঘটনা দুটি ঘটে।

নিহতরা হলেন পুঠিয়ার আব্দুস সামাদ মন্ডল (৫৪) ও বাঘার সাহাবুল ইসলাম (৩৫)। রাজশাহীর পুঠিয়া থানার পুলিশ পরিদর্শক (ওসি তদন্ত) হাফিজুর রহমান এ তথ্য নিশ্চিত করেন।

প্রতক্ষ্যদর্শী ও পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, সোমবার দুপুরে আব্দুস সামাদ, রফিকুল ও মিলন নামে তিনজন সড়কের পাশে ডোবার ধারে বসে আলাপ করছিল। এ সময় তাহেরপুর থেকে ছেড়ে আসা পুঠিয়াগামী ট্রাক নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে তাদের চাপা দেয়। মুমূর্ষু অবস্থায় তাদের পুঠিয়া হেলথ কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়। তবে অবস্থার অবনতি ঘটলে তাদের রাজশাহী মেডিক্যাল কলেজ (রামেক) হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়। কিন্তু  হাসপাতালে পৌঁছানোর আগেই পথেই আব্দুস সামাদ মন্ডলের মৃত্যু হয়।

রাজশাহীর পুঠিয়া থানার পুলিশ পরিদর্শক (ওসি তদন্ত) হাফিজুর রহমান জানান, ঘটনার পর ট্রাকটি আটক করা হয়েছে। তবে চালক ও হেলপার পলাতক রয়েছেন। এ ব্যাপারে থানায় মামলা দায়ের করা হয়েছে।

অপরদিকে বাঘায় ভটভটির ধাক্কায় সাহাবুল ইসলাম (৩৫) নামে এক ব্যক্তি নিহত হয়েছেন। আর রাজেদুল ইসলাম (৩২) নামে অপর একজন আহত হয়েছেন। সোমবার সন্ধ্যা ৭টার দিকে উপজেলা রেজিষ্ট্রি অফিসের সামনে এ দুর্ঘটনা ঘটে। আহত রাজেদুলকে রাজশাহী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়েছে। নিহত সাহাবুল উপজেলার বানিয়াপাড়া গ্রামের আবদুস সামাদের ছেলে ও আহত রাজেদুল একই গ্রামের রেজাউল করিমের ছেলে।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, বাঘা উপজেলার নারায়নপুর এলাকা থেকে বাইসাইকেল যোগে রাজমিস্ত্রীর কাজ শেষে বাড়ি ফিরছিলেন সাহাবুল ইসলাম ও রাজেদুল ইসলাম। এ সময় তাদেরকে পেছন দিক থেকে স্টিয়ারিং যুক্ত ভটভটি এসে ধাক্কা দেয়। পরে তাদের উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় সাহাবুল মারা যায়। অন্যদিকে রাজেদুল ইসলামের অবস্থা আশঙ্কাজনক হওয়ায় তাকে রাজশাহী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়েছে।

/আরএ/

***বাংলা ট্রিবিউনে প্রকাশিত কোনও সংবাদ, কলাম, তথ্য, ছবি, কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার দণ্ডনীয় অপরাধ। অনুমতি ছাড়া ব্যবহার করলে কর্তৃপক্ষ আইনি ব্যবস্থা গ্রহণ করবে।