দুপুর ০৩:১৪ ; বৃহস্পতিবার ;  ২০ জুন, ২০১৯  

শীতের চাঁদরে ঢাকা নীলফামারী, নিউমোনিয়ায় আক্রান্ত শিশুরা

প্রকাশিত:

সম্পাদিত:

নীলফামারী প্রতিনিধি।।

দেশের সর্ব উত্তরের জেলা নীলফামারীতে শীত জেঁকে বসেছে। কনকনে ঠাণ্ডার সঙ্গে কুয়াশা মেশানো হিমেল বাতাসে শীতের তীব্রতা বেড়ে অসহনীয় হয়ে উঠেছে। দিন-দুপুরেও মিলছে না সূর্যের দেখা। এর ফলে বৃদ্ধি পেয়েছে নিউমোনিয়া ও ডায়রিয়ার প্রকোপ। প্রচণ্ড শীতে বয়স্করা পড়েছেন বেকায়দায়। উত্তরে হিমালয় বেষ্টিত হওয়ার কারণে শীতের প্রথম প্রকোপটা পড়ে নীলফামারী জেলায়।

অর্থনৈতিকভাবে পিছিয়ে পরা এ জেলার সাধারণ মানুষ শীতের কারণে পরেছে নানা বিড়ম্বনায়। বিভিন্ন ঠাণ্ডাজনিত রোগে আক্রান্ত হয়ে মানুষ ভির করছে নীলফামারী সদর হাসপাতালে।

এ ব্যাপারে শিশু বিষেজ্ঞ ডা. এনামুল হক বলেন, শীতে সবচেয়ে বেশি কষ্ট ভোগ করছে শিশু ও হাঁপানি রোগীরা।

আবাসিক মেডিক্যাল অফিসার ডা. হাসিনুর রহমান বলেন, শীতজনিত রোগে হাসপাতালে রোগীর সংখ্যা বেড়েছে। এর মধ্যে বেশির ভাগই কোল্ড ডায়রিয়া নিউমোনিয়া ও শ্বাসকষ্টের রোগী।

সোমবার সকালে সরেজমিন হাসপাতালে ঘুরে দেখা যায়,শীতজনিত ডায়রিয়ার কারণে ৭ জন,অন্যান্য ঠাণ্ডাজনিত রোগে শিশু ৪৭, ১৪ জন পুরুষ ও ৮ জন নারী হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন।

অপরদিকে,নিম্ন আয়ের মানুষ ঠাণ্ডা থেকে বাঁচার জন্য পুরনো কাপড়ের দোকান ও সম্ভাব্য জায়গায় ঘুরে গরম কাপড় কিনছেন। অন্যদিকে যারা আর্থিকভাবে সচ্ছল তারা মার্কেট থেকে গরম কাপড় কেনাকাটা করছেন। শীতের কারণে গরম কাপড়ের দামও দিতে হচ্ছে বেশি। এছাড়া গ্রামের সাধারণ মানুষ খড়-খুটো জ্বালিয়ে শীত নিবারণের চেষ্টা করছে।

নীলফামারী জেলা প্রশাসক মো. জাকীর হোসেন বলেন, এ পর্যন্ত জেলায় ৬ হাজার পিস কম্বল বিতরণ করা হয়েছে। চাহিদা সম্পর্কে যথাযথ কর্তৃপক্ষকে জানানো হয়েছে। বরাদ্ধ পেলে আরও বিতরণ করা হবে।

/জেবি/

/আপ:আরএ/

***বাংলা ট্রিবিউনে প্রকাশিত কোনও সংবাদ, কলাম, তথ্য, ছবি, কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার দণ্ডনীয় অপরাধ। অনুমতি ছাড়া ব্যবহার করলে কর্তৃপক্ষ আইনি ব্যবস্থা গ্রহণ করবে।