সন্ধ্যা ০৬:৪০ ; মঙ্গলবার ;  ২৪ এপ্রিল, ২০১৮  

ঝিনাইদহে ধর্ষণ মামলায় আদালতে হাজিরা দিল ৭ বছরের শিশু

প্রকাশিত:

ঝিনাইদহ প্রতিনিধি।।

ঝিনাইদহের কালীগঞ্জে বাবার কোলে চড়ে ধর্ষণ মামলায় আদালতে হাজিরা দিলো ৭ বছর বয়সী শিশু সজিব। সোমবার দুপুরে ঝিনাইদহের অবকাশকালীন দায়রা জজ আদালতে সে হাজিরা দেয়।

আদালতের বিচারক কোন সিন্ধান্ত না দিয়ে মানবিক দৃষ্টিকোন থেকে বিবেচনা করে সাময়িকভাবে পদক্ষেপ নিতে মৌখিকভাবে নির্দেশ দিয়েছে রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবীকে। ঝিনাইদহ জজ কোর্টের পাবলিক প্রসিকিউটর অ্যাডভোকেট ইসমাইল হোসেন এ তথ্য জানান।

মামলার এজাহার সূত্রে জানা যায়, চলতি বছরের ২৪ এপ্রিল বিকালে উপজেলার মোস্তবাপুর গ্রামের ২য় শ্রেণির এক স্কুলছাত্রীকে ধর্ষণ করে একই গ্রামের আজগর আলীর ছেলে ১৪ বছর বয়সী আবু ইউসুফ। ঘটনাটি শিশু সজিব দেখে ফেলে চিৎকার করলে ধর্ষক পালিয়ে যায়। এ ঘটনায় ধর্ষিতার পিতা পরের দিন কালীগঞ্জ থানায় একটি মামলা দায়ের করে। তবে এজাহারে ইউসুফকে আসামি করা হলেও মামলার চার্জশিটে শিশু সজিবকেও আসামি করেন মামলা তদন্তকারী কর্মকতা।

এ ব্যাপারে শিশু সজিবের পিতা আব্দুল মালেক বলেন, সেদিন আমার ছেলে সেখানে খেলা করছিল। ঘটনাটি দেখে ফেলায় তাই সে আসামি হয়েছে। আমার ছেলের বয়স ৭ বছর। সে কোন অপরাধ করেনি।

এ ব্যাপারে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা কালীগঞ্জ থানার সাবেক ওসি (তদন্ত) ও বর্তমান চুয়াডাঙ্গা গোয়েন্দা পুলিশের ওসি ইউনুস আলী বলেন, এজাহারে আসামি না উল্লেখ করা হলেও ধর্ষিতার জবানবন্দি অনুসারে চার্জশিটে আসামি করা হয়েছে সজিবকে।

এ ব্যাপারে ঝিনাইদহ জজ কোর্টের পাবলিক প্রসিকিউটর অ্যাডভোকেট ইসমাইল হোসেন বলেন, নথি না দেখে সঠিক ভাবে বিষয়টি বলতে পারছি না। এটুকু বলতে পারি সজিব মামলায় স্বাক্ষী হওয়ার কথা ছিল। হয়তো ভুলবশত মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা চার্জশিটে তাকে আসামি করেছেন। সজিব যেন হয়রানীর শিকার না হয় সেজন্য বিজ্ঞ বিচারক আমাকে মৌখিক ভাবে পদক্ষেপ নেওয়ার জন্য নির্দেশ দিয়েছেন। আমি সে মোতাবেক কালীগঞ্জ থানার ওসিকে বিষয়টি জানিয়েছি। এ ঘটনায় এলাকায় ব্যাপক চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে।

/আরএ/

***বাংলা ট্রিবিউনে প্রকাশিত কোনও সংবাদ, কলাম, তথ্য, ছবি, কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার দণ্ডনীয় অপরাধ। অনুমতি ছাড়া ব্যবহার করলে কর্তৃপক্ষ আইনি ব্যবস্থা গ্রহণ করবে।