দুপুর ০২:০৯ ; বৃহস্পতিবার ;  ২৭ জুন, ২০১৯  

সাংবাদিক নিখোঁজের ঘটনায় শাহবাগ থানায় জিডি

প্রকাশিত:

বাংলা ট্রিবিউন রিপোর্ট।।

বেসরকারি টিভি চ্যানেলসহ একটি জাতীয় দৈনিকের ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালের প্রতিনিধি আরওঙ্গজেব সজীব আহমেদ নদীতে নিখোঁজের ঘটনায় তার স্ত্রী মোর্শেদা বেগম নিশি শাহবাগ থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করেছেন।

সোমবার সকালে তিনি শাহবাগ থানায় গিয়ে এই জিডি করেন। শাহবাগ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবু বক্কর সিদ্দিক বাংলা ট্রিবিউনকে এই তথ্য নিশ্চিত করেছেন। এর আগে রবিবার রাতে মুন্সীগঞ্জের মুক্তারপুরে নদীতে পড়ে নিখোঁজ হন সজীব।

জিডিতে তিনি উল্লেখ করেছেন, রবিবার সকালে ঢাকা মেডিকেলে যাওয়ার কথা বলে মোটরসাইকেল নিয়ে পুরান ঢাকার চকবাজারের বাসা থেকে বের হন সজীব। এরপর দুপুর দেড়টার দিকে এক ব্যক্তি তাকে ফোন করে জানান, সজিবের দুটি মোবাইল ফোনসেট ও সাংবাদিক পরিচয়পত্র (বাংলা ভিশনের) চাঁদপুর নৌ-পুলিশের কাছে রয়েছে। ফোন পেয়ে স্বামীর খোঁজে চাঁদপুর গিয়ে মোরশেদা জানতে পারেন, এমভি তাকওয়া লঞ্চের এক কর্মচারী নৌ-পুলিশের কাছে রবিবার বেলা ১টার দিকে সজিবের মোবাইল ফোনসেট ও পরিচয়পত্র জমা দেয়।

এ বিষয়ে শাহবাগ থানার ওসি বলেন, ‘আমরা তদন্ত শুরু করেছি। ঘটনাস্থলে নৌ-পুলিশের সঙ্গেও যোগাযোগ করা হচ্ছে। খুব দ্রুত তার নিখোঁজ হওয়ার বিষয়ে তথ্য জানা যাবে।’

এদিকে, চাঁদপুর নৌ পুলিশের সহকারী উপ-পরিদর্শক (এএসআই) এরশাদ হোসেন জানান, তাকওয়া লঞ্চের কেরানি ফরিদ হোসেন বিকাল ৩টার দিকে একটি লিখিত অভিযোগসহ সজীবের মোবাইল ফোন ও কিছু সাংবাদিকতার পরিচয়পত্র জমা দেন।

এ ব্যাপারে মুন্সীগঞ্জ নৌ ফাঁড়ির ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ইউনুস আলী জানান, ‘এ ঘটনা ঘটার পর কেউ অভিযোগ করেনি। এমনকি কোনও তথ্য পাওয়া যায়নি। সাংবাদিকদের কাছে তথ্য পেয়ে রাতে ঘটনাস্থলে যাওয়ার চেষ্টা করছে ডুবুরি দল।’

নিখোঁজ সজীবের গ্রামের বাড়ি মুন্সীগঞ্জের বিক্রমপুর এলাকায়। তিনি স্ত্রী, এক ছেলে ও এক মেয়ে নিয়ে রাজধানীর চকবাজার এলাকায় থাকতেন।

/এআরআর/এফএস/

 

***বাংলা ট্রিবিউনে প্রকাশিত কোনও সংবাদ, কলাম, তথ্য, ছবি, কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার দণ্ডনীয় অপরাধ। অনুমতি ছাড়া ব্যবহার করলে কর্তৃপক্ষ আইনি ব্যবস্থা গ্রহণ করবে।