সন্ধ্যা ০৭:৫১ ; বুধবার ;  ২০ নভেম্বর, ২০১৯  

বগুড়ায় কুপিয়ে ও শ্বাসরোধে দুই জনকে হত্যা

প্রকাশিত:

বগুড়া প্রতিনিধি ।।

বগুড়ায় কুপিয়ে ও শ্বাসরোধে দুই ব্যক্তিকে হত্যা করেছে দুর্বৃত্তরা। জেলার গাবতলী ও শাহজাহানপুরে ঘটনা দুটি ঘটে। নিহতদের নাম মোহাম্মদ আলী (৫৫) ও শামসুল হক (৬০)।

এরমধ্যে গাবতলীর পারানীরপাড়া গ্রামে বৃহস্পতিবার বিকালে পুকুরে মাছ চুরির ঘটনায় জড়িতদের নাম ফাঁস করায় দুর্বৃত্তদের ধারালো অস্ত্রের আঘাতে মোহাম্মদ আলীর মৃত্যু হয়। অন্যদিকে শাহাজানপুরের মাদলায় পরিবহণ শ্রমিকের ছদ্মবেশে শামসুল হক (৬০) নামে আরেক ব্যবসায়ীকে চেতনানাশক ওষুধ খাইয়ে শ্বাসরোধে হত্যার পর তার ২৮ বস্তা পিঁয়াজ ছিনতাই করেছে দুর্বৃত্তরা। বুধবার সন্ধ্যার দিকে পুলিশ করতোয়া নদী থেকে অজ্ঞাত হিসেবে লাশটি উদ্ধার করে। তার ব্যবসায় সহযোগী মন্টুকে গুরুতর অসুস্থাবস্থায় উদ্ধার করে মোহাম্মদ আলী হাসপাতালে ভর্তি করেছে পুলিশ।

উভয় ঘটনায় স্থানীয় থানায় মামলা হয়েছে।

গাবতলী থানার ওসি শাহিদ মাহমুদ জানান, গাবতলী উপজেলার মহিষাবান পারানীপাড়া গ্রামের মৃত কলি প্রামাণিকের ছেলে মোহাম্মদ আলী পেশায় কৃষক। থানায় তার বিরুদ্ধে চুরির মামলার ওয়ারেন্ট আছে। প্রায় দেড় মাস আগে গ্রামের জনৈক সুলতানের পুকুরের মাছ চুরি হয়। এ ঘটনায় গ্রাম্য শালিসে মোহাম্মদ আলী, করিম, রেজাউল ও মিজানুরকে ৮০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছিল। মোহাম্মদ আলী তার ভাগের ২০ হাজার টাকা পরিশোধ করে। এদিকে মোহাম্মদ আলীর কারণে জরিমানা গুণতে হওয়ায় তার ওপর ওই তিন ব্যক্তি ক্ষিপ্ত ছিল। বৃহস্পতিবার বিকাল ৫টার দিকে মোহাম্মদ আলী গ্রামের একটি রাইস মিল থেকে বাড়ি ফিরছিলেন। পথিমধ্যে করিম, রেজাউল ও মিজানুর ধারালো অস্ত্র দিয়ে তার মাথাসহ শরীরের বিভিন্ন স্থানে কুপিয়ে পালিয়ে যায়। রক্তাক্ত অবস্থায় তাকে উদ্ধার করে বগুড়া শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে (শজিমেক) নেয়া হয়। সেখানে চিকিৎসকরা তাকে মৃত ঘোষণা করেন। ওসি আরও জানান, ঘাতকদের গ্রেফতারে চেষ্টা চলছে।

অন্যদিকে, বগুড়ার শাজাহানপুর থানার ওসি আলমগীর হোসেন জানান, গত বুধবার সকালে রংপুরের পীরগঞ্জের পিঁয়াজ ব্যবসায়ী শামসুল হক ও তার ব্যবসায় সহযোগী মন্টু ২৮ বস্তা পিঁয়াজ ঢাকায় বিক্রির জন্য অল্প ভাড়ায় একটি পিকআপ ভ্যানে ওঠেন। গাইবান্ধার পলাশবাড়িতে পৌঁছলে পরিবহন শ্রমিকের ছদ্মাবরণে থাকা দুর্বৃত্ত পিকআপ চালক ও অন্যরা ব্যবসায়ী শামসুল হক ও মন্টুকে চা পান করতে দেয়। এরপর দু’জন অচেতন হয়ে পড়েন। দুর্বৃত্তরা পথিমধ্যে শামসুল হককে শ্বাসরোধে হত্যা করে। এরপর তার লাশ শাজাহানপুরের মাদলায় করতোয়া নদীতে ফেলে দেয়। আর মহাসড়কের পাশে অচেতন অবস্থায় মন্টুকে রেখে তাদের প্রায় ৪০ হাজার টাকা মূল্যের ২৮ বস্তা পিঁয়াজ নিয়ে পালিয়ে যায়। বুধবার সন্ধ্যার দিকে পুলিশ নদী থেকে অজ্ঞাত লাশ উদ্ধার করে। পথচারীরা মন্টুকে হাসপাতালে ভর্তি করে দেন।

ওসি আরও জানান, পরে নিহতের পরিচয় জানা সম্ভব হয়। এদিকে, বৃহস্পতিবার বিকাল পর্যন্ত মন্টু সুস্থ হননি।

এ ব্যাপারে নিহতের ছেলে শাজাহানপুর থানায় হত্যা মামলা করেছেন। তবে ঘাতকদের গ্রেফতার ও ছিনতাইকৃত পিঁয়াজ উদ্ধার করা সম্ভব হয়নি বলে জানিয়েছেন ওসি আলমগীর হোসেন।

/টিএন/

***বাংলা ট্রিবিউনে প্রকাশিত কোনও সংবাদ, কলাম, তথ্য, ছবি, কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার দণ্ডনীয় অপরাধ। অনুমতি ছাড়া ব্যবহার করলে কর্তৃপক্ষ আইনি ব্যবস্থা গ্রহণ করবে।