রাত ১০:০৩ ; রবিবার ;  ২৬ মে, ২০১৯  

হিলারির অভিবাসীবান্ধব সংস্কার পরিকল্পনা

প্রকাশিত:

বিদেশ ডেস্ক।।

আসন্ন মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে ডেমোক্রেটিক পার্টি থেকে প্রেসিডেন্ট পদে প্রার্থিতার দৌড়ে এগিয়ে আছেন দেশটির সাবেক ফার্স্টলেডি হিলারি ক্লিনটন। সোমবার তিনি একটি অভিবাসীবান্ধব সংস্কার পরিকল্পনার রূপরেখা তুলে ধরেন। এ সময় তিনি মার্কিন জটিল অভিবাসন আইনের ব্যাপারে দুঃখ প্রকাশ করেন।

হিলারি বলেন, মার্কিন নাগরিকত্ব লাভের জন্য যারা আবেদন করছেন তাদের ক্ষেত্রে নির্ধরিত ফি’র ক্ষেত্রে একটা বিরতি দেওয়া উচিত।

ব্রুকলিনে বার্ষিক ন্যাশনাল ইমিগ্রেশন ইন্টিগ্রেশন সম্মেলেন দেওয়া বক্তব্যে এমন মন্তব্য করেন এ প্রভাবশালী মার্কিন রাজনীতিক।

হিলারি বলেন, মার্কিন নাগরিকত্ব লাভে যোগ্য ব্যক্তিদের তিনি আরও অধিক সহায়তা দিতে চান। এজন্য তাদের ওপর নির্ধারিত ফি বাদ দেওয়া হবে। ভাষা বিষয়ক প্রোগ্রামগুলোতে তাদের অংশগ্রহণ বৃদ্ধি করা হবে। পূর্ণাঙ্গ ও সমান্তরাল নাগরিকত্বের সুযোগ সৃষ্টি করা হবে। এ লক্ষ্যে বেসরকারিভাবে পরিচালিত ডিটেনশন সেন্টারগুলো বন্ধ করে দেওয়া হবে।

যুক্তরাষ্ট্রের সাবেক এই পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, আপনি যদি কঠোর পরিশ্রম করেন, যদি আপনি এই দেশকে ভালোবাসেন, যদি নিজের এবং সন্তানের জন্য একটি উজ্জ্বল ভবিষ্যৎ ছাড়া অন্য কিছু না চান, তাহলে আমরা আপনাকে এখানে আসার এবং মার্কিন নাগরিকত্ব লাভের সুযোগ করে দেবো।

হিলারি বলেন, কিছু পরিবার যুক্তরাষ্ট্র থেকে বিতাড়িত হওয়ার ভয়ে রয়েছে। আমি তাদের এমন ভয় দূর করতে চাই।

বক্তব্যে নিজের সম্ভাব্য প্রতিদ্বন্দ্বী রিপাবালিকান পার্টির প্রেসিডেন্ট পদপ্রত্যাশী ডোনাল্ড ট্রাম্পেরও সমালোচনা করেন হিলারি। ট্রাম্পের না নিয়ে তিনি বলেন, যুক্তরাষ্ট্রকে আবারও মহৎ করা হবে’ তাদের সঙ্গে আমি একমত নই। কারণ আমরা মহৎ এবং মহত্তর হতে চলেছি। এ ধরনের নীচু মন্তব্যের মাধ্যমে মূলত প্রাচীর তৈরি করা হচ্ছে। এভাবে সীমানা বন্ধ করে দেওয়া হলে আমরা মেধাবীদের হারাবো। সূত্র: ইয়াহু।

/এমপি/

***বাংলা ট্রিবিউনে প্রকাশিত কোনও সংবাদ, কলাম, তথ্য, ছবি, কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার দণ্ডনীয় অপরাধ। অনুমতি ছাড়া ব্যবহার করলে কর্তৃপক্ষ আইনি ব্যবস্থা গ্রহণ করবে।