বিকাল ০৫:০৫ ; মঙ্গলবার ;  ১৫ অক্টোবর, ২০১৯  

তারকাখ্যাতি আমার ভেতরের মানুষটাকে ঢেকে রাখে: শাহরুখ

প্রকাশিত:

০২ নভেম্বর ২০১৫। ছিল বলিউড বাদশাহ শাহরুখ খানের ৫০তম জন্মদিন। বিশেষ এই দিনটি মাস খানেক আগে ফিরে গেলেও নতুন করে সামনে এনেছে ভারতীয় গণমাধ্যম দ্য ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেস। একান্ত আলাপে কিং খান বলেছেন পর্দার ভেতর-বাইরের বিস্তর কথা। সেই আলাপচারিতা তুলে ধরেছেন উম্মে রায়হানা

: ৫০তম জন্মদিন উদযাপনে বিশেষ কিছু ছিল কি?
- ধন্যবাদ, আমি জন্মদিন উদযাপন করি না। আমার জন্য এটি অন্য যে কোনও দিনের মতোই। তবে জন্মদিনটা পালন করতে হয় কারণ- অনেকে দেখা করতে আসে, অনেকের কাছেই এটা একটা বিরাট উপলক্ষ। আমি জানি, ৫০তম জন্মদিনকে একটু বিশেষভাবেই দেখা হয়। তবে আমার এ নিয়ে কোনও পরিকল্পনা ছিল না। অন্য সব দিন আর অন্য সব বছরের মতোই ছিল। ফলে কোনও অপ্রাপ্তিও নেই।

...আমি খুব সহজ -সরল জীবন যাপন করতে চাই। যদিও বাইরে থেকে দেখে এমনটা মনে হয় না। তারকাখ্যাতি আর চাকচিক্য আমার ভেতরের সরল মানুষটাকে ঢেকে রাখে...

: বয়সের সঙ্গে সঙ্গে অভিনেতা হিসেবেও পরিপক্ক হয়ে ওঠাকে কিভাবে দেখেন?
- আমি মঞ্চের অভিজ্ঞতা নিয়ে অভিনয়ে এসেছি। প্রায় বছর দশেক আগে ‘বীর-জারা’(২০০৪) ছবিতে ৬০ বছরের বৃদ্ধের ভূমিকায় অভিনয় করেছি। আমার সবচেয়ে আশ্চর্য লাগে যখন আমাকে ‘রোমান্সের রাজা’ বলা হয়। ‘রোমান্সের রাজা’ মানেই আপনাকে সবসময় তরুণ আর প্রাণবন্ত থাকতে হবে। আমি তো তেমন নই। এমনকি ‘দিলওয়ালেতে’ও এমন একটা অংশ আছে যেখানে আমি আর কাজল অল্পবয়সী। অল্পবয়সী চরিত্রে অভিনয় করতে আমার কোনও সমস্যা নেই। কিন্তু ব্যক্তিগত পছন্দের কথা যদি বলেন, আমি কি ২৫ বছর বয়সী চরিত্রে অভিনয় করতে আগ্রহী? একদমই না। বরং আমি আমার বয়সী চরিত্রই ফুটিয়ে তুলতে চাই, এই ধরুন ৪০-৪৫ বছর বয়সী কোনও চরিত্রে। যেমন ‘চেন্নাই এক্সপ্রেস’ ছবিতে আমার চরিত্রটা শুরুই হয়েছে এই ঘোষণা দিয়ে, ‘আমার বয়স ৪০ এবং আমার এতদিনে বিয়ে হয়ে যাওয়া উচিত ছিল।’

: ‘দিলওয়ালে দুলহানিয়া লে জায়েঙ্গে’ আর ‘দিলওয়ালে’র মধ্যে অনেকটা সময় বয়ে গেছে। নিজের এই যাত্রাকে কিভাবে দেখেন?
- দায়িত্ব বেড়ে গেছে অনেক। আমি আর কাজল কেউই জানতাম না আমাদের এই ছবি ২০ বছর ধরে চলবে। এই ছবি দিয়ে এত কিছু নির্ধারিত হবে, আমার ক্যারিয়ারও তার মধ্যে পড়ে। এই ছবির ক্ষেত্রে এমনটা না-ও হতে পারত। এটা অন্য যে কোনও ছবির মতই হতে পারত। কিন্তু তা হয়নি। এটা একটা ল্যান্ডমার্ক ছবি। ফলে এমন একটা প্রত্যাশাও তৈরি হয়েছে যে, কাজল আর শাহরুখ দারুণভাবে ফিরে আসছে আবার। এমন না, এই প্রত্যাশা আমাদের ওপর কোনও চাপ তৈরি করেছে। কিন্তু একটা মান বজায় রাখার দায়িত্ব তৈরি হয়েছে।

: নিজের প্রত্যাশা পূরণ করেছে এমন পাঁচটি ছবির নাম জানতে চাইলে কী কী ছবির নাম বলবেন?
- আমার প্রত্যাশা ঠিক বস্তুবাচক নয়। আমি যে কোনও ছবিই সাইন করতে পারি। কিন্তু যতক্ষণ না দর্শক একে ভালো বলছে ততক্ষণ কোনও কিছুই মানে দাঁড়ায় না। নাম বলতে বললে ‘চাক দে ইনডিয়া’(২০০৭), ‘স্বদেশ’(২০০৪), ‘ওম শান্তি ওম’(২০০৭), ‘মাই নেম ইজ খান’(২০১০), ‘চেন্নাই এক্সপ্রেস’(২০১৩), ‘কুছ কুছ হোতা হ্যায়’(১৯৯৮), ‘কাল হো না হো’(২০০৩) এবং ‘দেবদাস’ (২০০২) আমার পছন্দের ছবি। তবে আমার স্বপ্ন হচ্ছে এমন ছবি তৈরি করা যা দিয়ে দর্শকরা নয়, আমার সন্তানরা আমাকে মনে রাখবে। তেমন ছবি এখনও করতে পারিনি আমি।

‘কুছ কুছ হোতা হ্যায়’ (১৯৯৮)/শাহরুখ-কাজল

: ক্যারিয়ারের শুরুতে আপনার সামনে কোনও লক্ষ্য ছিল কি?
- নাহ, তেমন কিছুই ছিল না। চলচ্চিত্র এমন এক ব্যবসা যেখানে আপনি ছবি বানিয়ে আশা করেন সেটা নির্দিষ্ট পরিমাণ ব্যবসা করবে। সেটাকে ঠিক লক্ষ্য বলা চলে না, এটা ব্যবসা প্রকল্প। আমার জীবনের একমাত্র লক্ষ্য কাজ করা। আমি খুব সহজ সরল জীবন যাপন করতে চাই। যদিও বাইরে থেকে দেখে এমনটা মনে হয় না। তারকাখ্যাতি আর চাকচিক্য আমার ভেতরের সরল মানুষটাকে ঢেকে রাখে।

: তাহলে সত্যিকার শাহরুখ খান কেমন মানুষ?
- সেটাও আমি লুকিয়ে রাখিনি। সুপারস্টার, কিং খান, বাদশাহ, মার্কেটিং জিনিয়াস এবং পৃথিবীর দ্বিতীয় সেরা ধনী অভিনেতা বলে ডাকা হয় আমাকে। কিন্তু আমার পরিবারের সদস্যরা আমাকে যেভাবে চেনে সেটাই সত্যিকারের আমি- একজন সাধারণ মানুষ। আমার সহকর্মীদের মধ্যে ঘনিষ্ঠজনরাও জানে, আমি আসলে নিতান্তই একজন সাদামাটা মানুষ। আমার মধ্যে তেমন কোনও বিশেষত্বই নেই।

‘দিলওয়ালে’ (২০১৫)/শাহরুখ-কাজল

: আপনার কাছে নিখুঁত প্রেমের গল্পটা কি রকম?
- শুনতে আজব শোনালেও, আমার কাছে নিখুঁত প্রেমের গল্প বলে কিছু নেই। যদি তেমন একটি নিখুঁত প্রেমের গল্প থাকতো, তাহলে আপনি এত এত প্রেমের গল্প ফাঁদতেও পারতেন না, পড়তেনও না, দেখতেনও না।

: কিছুদিন আগেই শোনা যাচ্ছিল, আপনি টেলিভিশনের জন্য ‘ব্রেকিং ব্যাড’-এর ছায়া অবলম্বনে একটি সিরিয়াল তৈরি করবেন...
- টেলিভিশনের জন্য নয়, ওই থিম নিয়ে ছবি বানানোর কথা হচ্ছিল। কয়েকটি পর্বে ভাগ করে। ভারতীয় টিভির জন্য ওই থিম নিয়ে সিরিয়াল করা একটু কঠিন। মাফিয়া, ড্রাগ ইত্যাদির কারণে।

: সেখানে ওয়াল্টার হোয়াইটের চরিত্র নিশ্চয়ই আপনিই করবেন!
- আমাকে ছাড়া কোন মহান ছবিটা হয় বলুন তো!

/এমএম/

***বাংলা ট্রিবিউনে প্রকাশিত কোনও সংবাদ, কলাম, তথ্য, ছবি, কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার দণ্ডনীয় অপরাধ। অনুমতি ছাড়া ব্যবহার করলে কর্তৃপক্ষ আইনি ব্যবস্থা গ্রহণ করবে।