রাত ০৯:১৮ ; শুক্রবার ;  ১৯ অক্টোবর, ২০১৮  

দর্শনায় হরিজন সম্প্রদায়ের চুল কাটা নিয়ে বিক্ষোভ, ইউএনও অবরুদ্ধ

প্রকাশিত:

সম্পাদিত:

চুয়াডাঙ্গা প্রতিনিধি।।

দামুড়হুদার দর্শনায় সেলুনে হরিজন সম্প্রদায়ের চুল কাটাকে কেন্দ্র করে দর্শনা-মুজিবনগর সড়ক ও বাজার বন্ধ করে দেয় ব্যবসায়ীরা। এ সময় ব্যবসায়ীদের রোষানলে পড়ে দামুড়হুদা উপজেলা নির্বাহী অফিসার ফরিদুর রহমানও অবরুদ্ধ হয়ে পড়ে। মঙ্গলবার দুপুরে দর্শনা বাজারে এ ঘটনা ঘটে।

দর্শনা পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের ইনচার্জ ফেরদৌস ওয়াহিদ জানান,  মঙ্গলবার বেলা ১১টার দিকে দর্শনা কেরু চিনিকল এলাকায় বসবাসকারী বেশ কয়েকজন হরিজন সম্প্রদায়ের লোক বাজারে এসে চুল কাটার জন্য সেলুনে বসে পড়ে। এ সময় সেলুন ব্যবসায়ীরা সেলুন বন্ধ করে দিয়ে তাদের সঙ্গে বাক-বিতণ্ডায় জড়িয়ে পড়ে।

খবর মুহূর্তের মধ্যে ছড়িয়ে পড়লে ব্যবসায়ীরা ১১টা থেকে ৩টা পর্যন্ত দর্শনা-মুজিবনগর সড়ক ও বাজার বন্ধ করে দিয়ে বিক্ষোভ মিছিল করতে থাকে।

দর্শনা সেলুন অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি শ্রী দিলিপ কুমার সাংবাদিকদের জানান, হরিজন সম্প্রদায়ের লোকজনদেরকে চুল কাটলে মুসলিম-হিন্দু ও অন্যান্য গোত্রের লোকজন সেলুনে চুল কাটা বন্ধ করে দিবে, এজন্য আমরা তাদের চুল আমাদের সেলুনে কাটাতে অস্বীকৃতি জানাই।

খবর পেয়ে দামুড়হুদা উপজেলা নির্বাহী অফিসার ফরিদুর রহমান ঘটনাস্থলে পৌঁছে হরিজন সম্প্রদায়ের চুল কাটার বিরুদ্ধে বিক্ষোভ মিছিল করায় আজহার উদ্দীন নামে এক  কাপড় ব্যবসায়ীকে ভ্রাম্যমাণ আদালতের মাধ্যমে ১০ হাজার টাকা জরিমানা করেন। এ সময় উপজেলা নির্বাহী অফিসার উত্তেজিত ব্যবসায়ীদের রোষানলে পড়ে কিছুক্ষণ অবরুদ্ধ থাকে।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার ফরিদুর রহমান জানান, সারাদেশে হরিজনদের চুল কাটা বা হোটেলে খাওয়া-দাওয়া নিয়ে কোনও অসুবিধা নেই। এখানে যারা এ ধরণের বাধা সৃষ্টি করেছে তাদের বিরুদ্ধে আইনত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

বাজার কমিটির সাধারণ সম্পাদক ও দর্শনা পৌর সাবেক কাউন্সিলর সাবির হোসেন মিকা জানান, বাজার ব্যবসায়ীসহ এ বিষয়ে কোনও ব্যবসায়ীর নামে মামলা করা হলে বৃহত্তর আন্দোলন গড়ে তোলা হবে।

/আরএ/এমআর/

***বাংলা ট্রিবিউনে প্রকাশিত কোনও সংবাদ, কলাম, তথ্য, ছবি, কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার দণ্ডনীয় অপরাধ। অনুমতি ছাড়া ব্যবহার করলে কর্তৃপক্ষ আইনি ব্যবস্থা গ্রহণ করবে।