দুপুর ০২:২৫ ; বৃহস্পতিবার ;  ১৭ অক্টোবর, ২০১৯  

সুপ্রিম কোর্টে যাচ্ছেন না, ১৯ ডিসেম্বর আদালতে হাজির হচ্ছেন সোনিয়া-রাহুল

প্রকাশিত:

বিদেশ ডেস্ক।।

ভারতের বন্ধ হয়ে যাওয়া পত্রিকা ‘ন্যাশনাল হেরাল্ড’ দুর্নীতি মামলায় বিচারের মুখোমুখি হতে আগামী ১৯ ডিসেম্বর আদালতে হাজির হচ্ছেন ভারতের বিরোধী দল কংগ্রেস প্রধান সোনিয়া গান্ধী ও সহ-সভাপতি রাহুল গান্ধী। তার আগে সোনিয়া ও রাহুল উচ্চ আদালতের আদেশের বিরুদ্ধে সর্বোচ্চ আদালতে আবেদন জানাবেন বলে গুঞ্জন শোনা যাচ্ছিল। তবে সে গুঞ্জনকে মিথ্যে প্রমাণ করে মঙ্গলবারই সোনিয়া-রাহুল নিম্ন আদালতে হাজির হতে চেয়েছিলেন বলে জানিয়েছে ভারতীয় সংবাদমাধ্যম এনডিটিভি। শেষ পর্যন্ত আদালতে হাজির হওয়ার জন্য তাদেরকে ১৯ ডিসেম্বরের তারিখ নির্ধারণ করে দেওয়া হয়।

এর আগে এই মামলায় আদালতে হাজির না হওয়ার আর্জি জানিয়ে সোনিয়া ও রাহুলের করা পিটিশনটি খারিজ করে দেয় উচ্চ আদালত।

এদিকে মঙ্গলবার মামলাটিকে বিজেপি নেতৃত্বাধীন সরকারের রাজনৈতিক বিরোধ হিসেবে উল্লেখ সংসদের বাইরে সোনিয়া গান্ধী সাংবাদিকদের বলেন, ‘আমি কেন কাউকে ভয় পেতে যাব? আমি ইন্দিরা গান্ধীর পুত্রবধূ, আমি কাউকে ভয় পাই না।এর বিচারের ভার আপনাদের কাছেই ছেড়ে দিলাম।’

ন্যাশনাল হেরাল্ডের সম্পত্তি আত্মসাতের অভিযোগে সোনিয়া ও রাহুলের বিরুদ্ধে বিশ্বাসঘাতকতা ও আস্থা ভঙ্গের মামলাটি দায়ের করেন বিজেপি নেতা সুব্রামানিয়ান সোয়ামি। তার অভিযোগ, দিল্লিতে ন্যাশনাল হেরাল্ডের কার্যালয়সহ মূল্যবান সম্পত্তি দখল করতে আইন ভঙ্গ করেছেন এ দুই নেতা।

১৯৩৮ সালে জওহরলাল নেহরু ন্যাশনাল হেরাল্ড প্রতিষ্ঠা করেছিলেন। ১৯৩৮ সালে উত্তরাঞ্চলীয় শহর লক্ষ্ণৌ থেকে সংবাদপত্রটি প্রথমবারের মতো প্রকাশিত হয়েছিল। ১৯৪৭ সালে ব্রিটিশদের কাছ থেকে স্বাধীনতা অর্জনে পত্রিকার ভূমিকাকে উল্লেখযোগ্য হাতিয়ার হিসেবে বিবেচনা করা হয়ে থাকে।

তবে ধীরে ধীরে পত্রিকাটির অব্যবস্থাপনা, দুর্বল সার্কুলেশন দেখা যাওয়ায় এবং রাজস্ব কমতে থাকায় ২০০৮ সালে পত্রিকাটি বন্ধের সিদ্ধান্তের কথা জানান সোনিয়া।

সুব্রামানিয়ানের অভিযোগ, সংবাদপত্রটির প্রকাশনা সংস্থা দখলের মধ্য দিয়ে কয়েক হাজার কোটি টাকা আত্মসাৎ করেন সোনিয়া।

তবে শুরু থেকেই অভিযোগটি অস্বীকার করে আসছে কংগ্রেস। তাদের দাবি, জাতীয় সম্পদ বিবেচনায় পত্রিকাটিকে উল্টো ৯০ কোটি রুপি ঋণ দেওয়া হয়েছিল। সূত্র: এনডিটিভি,টাইমস অব ইন্ডিয়া, হিন্দুস্তান টাইমস।

/এফইউ/এএ/

***বাংলা ট্রিবিউনে প্রকাশিত কোনও সংবাদ, কলাম, তথ্য, ছবি, কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার দণ্ডনীয় অপরাধ। অনুমতি ছাড়া ব্যবহার করলে কর্তৃপক্ষ আইনি ব্যবস্থা গ্রহণ করবে।