ভোর ০৬:৪৭ ; মঙ্গলবার ;  ১৯ নভেম্বর, ২০১৯  

‘এবার তোমার কম্বলটা দিয়া জার কাটপে বাহে’

প্রকাশিত:

মোয়াজ্জেম হোসেন, লালমনিরহাট ।।

‘এবার তোমার কম্বলটা দিয়া জার (শীত) কাটপে (কাটবে) বাহে। এ্যাদোন (এমন) জার (শীত) শুরু হুছে (হয়েছে)। হামার গ্রামোত (গ্রামে) তোমা (আপনারা) ছাড়া কোনোদিন আর কাইয়োই (কেউই) কম্বল দেয় নাই। এ কম্বলকোনা (কম্বলটি) গাত (শরীরে) দিয়া (দিয়ে) কোনও রকম আইত (রাত) কাটমো (কাটানো যাবে) বাহে। হামা (আমরা) গরীব মানষি (মানুষ)। কেউই হামার গুলার খোঁজখবর নেয় না। তোমায় এবার খোঁজ করি জারের কম্বল দিয়া হামার উপকার কইল্লেন। বাবু, উপরওলায় (সৃষ্টিকর্তায়) তোমার ভাল করবে।’

লালমনিরহাটের কালীগঞ্জ উপজেলার গোড়ল ইউনিয়নের লোহাকুচি স্কুল অ্যান্ড কলেজ মাঠে কম্বল পেয়ে ৯০ বছর বয়সী বৃদ্ধা ছোমছাতুন বেওয়া অনুভূতি প্রকাশ করতে গিয়ে আবেগাপ্লুত ভাষায় এসব কথা বলেন। কালীগঞ্জ উপজেলার গোড়ল ইউনিয়নের ফক্করেরহাট এলাকার ৯০ বছর বয়সী বৃদ্ধা ছোমছাতুন বেওয়ার মতোই অনুভূতি জানালেন একই এলাকার মেনেকা রানী (৭৫), বিনোদিনী বালা (৮৫), আবেদল আলী (৬৫) ও বুধারাম রায় (৮০)।

তাদের মতো আসমা খাতুন বলেন,‘৬ সন্তান নিয়ে ডোঙ্গাগঞ্জ এলাকায় ঝুপড়ি ঘরে থাকি। স্বামী নেই। ছেলে-মেয়েদের নিয়ে খুবই কষ্টে থাকি। এক বেলা খেতে পারি তো আর এক বেলা খেতে পারি না। বিজিবির কম্বলটা খুবই উপকারে হবে। তাদের প্রতি আশীর্বাদ থাকলো।’

কনকনে শীত পড়া শুরু হতে না হতেই এবার প্রথম দিকেই সোমবার দুপুরে ‘রোটারি ক্লাব অব গুলশান-ঢাকা’ এর উদ্যোগে লালমনিরহাট-১৫ বিজিবি ব্যাটালিয়নের সহযোগিতায় ১১শ’ গরীব-অসহায় শীতার্ত মানুষের মাঝে কম্বল বিতরণ করা হয়েছে।

‘রোটারি ক্লাব অব-লালমনিরহাট’-এর সভাপতি আব্দুস সালাম বকুলের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন বিজিবির অতিরিক্ত মহাপরিচালক বিগ্রেডিয়ার জেনারেল মাহফুজুর রহমান (জি-প্লাস)। এছাড়া বিশেষ অতিথি ছিলেন বিজিবির উপ-পরিচালক কর্নেল জুলফিকার আলী, লালমনিরহাট-১৫ বিজিবি ব্যাটালিয়নের অধিনায়ক লে. কর্নেল আহমদ বজলুর রহমান হায়াতী, বিজিবি রংপুর সেক্টরের স্টাফ অফিসার লে. কর্নেল শফিউল আলম খাঁন শফি, রোটারি ক্লাব অব গুলশানের সদস্য রোটারিয়ান বিগ্রেডিয়ার জেনারেল (অব.) আব্দুল মান্নান, ঢাকা-৪ আসনের সংসদ সদস্য সৈয়দ আবু হোসেন বাবলার স্ত্রী রোটারিয়ান সালমা হোসাইন, রোটারিয়ান রাবেয়া লোদী, রোটারিয়ান শায়লা রহমান, রোটারিয়ান রওশন আরা, সীমান্ত শীতবস্ত্র বিতরণ প্রকল্পের চেয়ারম্যার বীর মুক্তিযোদ্ধা এসএম শফিকুল ইসলাম কানু ও লোহা কুচি স্কুল অ্যান্ড কলেজের অধ্যক্ষ ইউপি চেয়ারম্যান মাহমুদুল ইসলাম প্রমুখ।

বক্তারা বলেন, ‘প্রতিবছর সীমান্ত এলাকার শীতার্ত অসহায় ও গরীব মানুষের মাঝে শীতবস্ত্র বিতরণ কার্যক্রম অব্যাহত রাখার প্রতিশ্রুতি দেন।’

/টিএন/

***বাংলা ট্রিবিউনে প্রকাশিত কোনও সংবাদ, কলাম, তথ্য, ছবি, কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার দণ্ডনীয় অপরাধ। অনুমতি ছাড়া ব্যবহার করলে কর্তৃপক্ষ আইনি ব্যবস্থা গ্রহণ করবে।