সন্ধ্যা ০৭:৩৬ ; রবিবার ;  ২৪ মার্চ, ২০১৯  

সম্প্রীতি ও উন্নয়নে পর্যটনের সম্ভাবনাকে কাজ লাগাতে হবে

প্রকাশিত:

বাংলা ট্র্রিবিউন রিপোর্ট।।

পৃথিবীর বিভিন্ন প্রান্তে বসবাসরত মানুষের মাঝে পারস্পরিক সৌহার্দ্য, সম্প্রীতি ও সহমর্মিতা সৃষ্টির মাধ্যমে দেশের আর্থ-সামাজিক উন্নয়নে পর্যটনের বিশাল সম্ভাবনাকে কাজে লাগাতে হবে বলে জানিয়েছেন বেসামরিক বিমান চলাচল ও পর্যটন মন্ত্রী রাশেদ খান মেনন।

রাজধানীর বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে মঙ্গলবার রাতে রূপসী বাংলা হোটেল শ্রমিক-কর্মচারী ইউনিয়নের অভিষেক অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় এ সব কথা বলেন।

তিনি বলেন, রূপসী বাংলার রূপের কথা বিশ্বের প্রতিটি প্রান্তে নিরন্তর পৌঁছে দিতে হবে, যাতে পর্যটকরা বাংলাদেশর রূপের মোহে আকৃষ্ট হয়। পর্যটকদের উষ্ণ আতিথেয়তা, স্বাচ্ছন্দময় দিনযাপনে  হোটেল ও মোটেলসমূহের ভূমিকা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ।

তিনি আরও বলেন, সরকার ২০১৬ সালকে পর্যটন বর্ষ ঘোষণা করেছে। এর সাফল্য নিশ্চিত করতে হোটেলসমূহের ব্যবস্থাপনায় ইতিবাচক পরিবর্তন, কর্মচারীদের প্রশিক্ষণ, উন্নত সেবার মানসিকতার মাধ্যমে পর্যটকদের মন জয় করতে হবে।

রূপসী বাংলা হোটেলের স্মৃতিচারণ করতে গিয়ে গিয়ে মন্ত্রী বলেন, ১৯৭১’র ২৫ মার্চ পাক বাহিনীর নির্মম গণহত্যার কালরাতে ও মহান মুক্তিযুদ্ধের সময়ে এ হোটেলে (সে সময়ের হোটেল ইন্টারকন্টিনেন্টাল) অনেক বিদেশী সাংবাদিক অবস্থান করে পাকবাহিনীর নির্মমতার কথা তুলে ধরেছিলেন।ফলে বিশ্ববাসী বাংলাদেশে মানবতার বিরুদ্ধে সংঘটিত গণহত্যা ও নীপিড়নের ভয়াবহতার কথা জানতে পেরেছিলো।

ইউনিয়নের সভাপতি জসিম উদ্দিনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বক্তৃতা করেন শ্রম ও কর্মসংস্থান প্রতিমন্ত্রী মুজিবুল হক চুন্নু, জাতীয় শ্রমিক লীগের সভাপতি আলহাজ্ব শুক্কুর মাহমুদ, জাতীয় শ্রমিক লীগের সাধারণ সম্পদক সিরাজুল ইসলাম, হোটেল ইন্টারকন্টিনেন্টালের মহাব্যবস্থাপক জেমস পি ম্যাকডোনাল্ড ((উদ্বোধনের আগে) প্রমুখ।

/এসআই/এফএইচ/

***বাংলা ট্রিবিউনে প্রকাশিত কোনও সংবাদ, কলাম, তথ্য, ছবি, কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার দণ্ডনীয় অপরাধ। অনুমতি ছাড়া ব্যবহার করলে কর্তৃপক্ষ আইনি ব্যবস্থা গ্রহণ করবে।