রাত ০৩:৪৭ ; বৃহস্পতিবার ;  ১৭ অক্টোবর, ২০১৯  

চৌরাসিয়ার বাঁশিতে উৎসবের সমাপনী (অ্যালবাম)

প্রকাশিত:

বিনোদন প্রতিবেদক।।

রাজধানীর আর্মি স্টেডিয়ামে পাঁচ দিনব্যাপী বেঙ্গল উচ্চাঙ্গসংগীত উৎসবের পঞ্চম ও সমাপনী দিনের আয়োজন শুরু হয় মঙ্গলবার সন্ধ্যা ৭টায়। পঞ্চম দিনের প্রথম পরিবেশনা ছিল অনিমেষ বিজয় চৌধুরী এবং তার দলের। দেশ রাগে ধামার ও রাগ ভূপালিতে চতুরঙ্গ পরিবেশন করে সিলেটের দল গীতবিতান বাংলাদেশ। অনিমেষ বিজয় চৌধুরীর সঙ্গে সহশিল্পী হিসেবে ছিলেন কুমকুম ভৌমিক, নূর-ই-আফরোজ, পরেশ চন্দ্র পাল, রুমা চন্দ, শাগুফতা হক, সুব্রত মিত্র, সোনিয়া রায়। পাখওয়াজে ছিলেন আলমগীর পারভেজ। তানপুরায় অভিজিৎ কুণ্ডু।

এরপর আলারমেল ভাল্লি পরিবেশন করেন ভরত নাট্যম। তিনি রতি সুখসারী, উন্‌নুনীর ভিক্‌কিনান ও মুত্‌তাভাদ্‌দুরা পরিবেশন করেন। আভোগী রাগে নৃত্যলহরী পরিবেশনের মধ্য দিয়ে আলারমেল ভাল্লি শেষ করেন তার পরিবেশনা।

এরপর বেঙ্গল উচ্চাঙ্গসংগীত উৎসব ২০১৫-এর আনুষ্ঠানিক সমাপনী ঘোষণা করা হয়। এসময় উপস্থিত ছিলেন মেয়র আনিসুল হক, ভারতের রাষ্ট্রদূত পংকজ শরণ, বাংলাদেশ বিনিয়োগ বোর্ডের  এক্সিকিউটিভ চেয়ারম্যান ড. সৈয়দ এ সামাদ, প্রধানমন্ত্রীর আন্তর্জাতিকবিষয়ক উপদেষ্টা ড. গওহর রিজভী, ব্র্যাকের প্রতিষ্ঠাতা ও চেয়ারপারসন ফজলে হাসান আবেদ, শিক্ষাবিদ ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রফেসর এমেরিটাস ড. আনিসুজ্জামান এবং বেঙ্গল ফাউন্ডেশনের চেয়ারম্যান আবুল খায়ের।

অনুষ্ঠানের শুরুতেই বক্তব্য রাখেন বেঙ্গল ফাউন্ডেশনের চেয়ারম্যান আবুল খায়ের। তিনি বলেন, ‘গত বছর সমাপনী দিনে ৫৬ হাজার দর্শক-শ্রোতা এখানে উপস্থিত থেকে অনুষ্ঠান উপভোগ করেছেন। এদের মধ্যে তরুণ শ্রোতার সংখ্যা অনেক বেশি। এ থেকে আমরা ধারণা করতে পারি আমাদের পরবর্তী প্রজন্ম অনেক ভালো কিছু করবে।’

সমাপনী অনুষ্ঠানের পর ওস্তাদ ইরশাদ খান পরিবেশন করেন সুরবাহার। রাগ দরবারি কানাড়াতে আলাপ, জোড় আলাপ, ঝালা এবং গৎ বাজিয়ে শোনান তিনি। পিলু রাগে ঠুমরী বাজিয়ে শেষ করেন তার পরিবেশনা। শিল্পীকে তবলায় সহযোগিতা করেন পণ্ডিত যোগেশ শামসী।

এরপর ছিল সামিহান কসলকর এর পরিবেশনা। তিনি গেয়েছেন রাগ যোগ এবং মিশ্র চারুকেশী রাগে দাদরা। শিল্পীকে তবলায় সহযোগিতা করেন সুরেশ তালওয়ালকার এবং হারমোনিয়ামে অজয় যোগলেকার। তানপুরায় ছিলেন তালহা বিন আলী ও উৎপল রায়।

পরবর্তী পরিবেশনা ছিল ওস্তাদ সুজাত খান এর। তিনি রাগ রাগেশ্রীতে আলাপ জোড় ঝালা এবং আমির খসরুর কম্পোজিশনে গজল পরিবেশন করেন।

এরপর মঞ্চে আসেন ওস্তাদ রশিদ খান। তিনি রাগ যোগকোশ পরিবেশন করেন। বিখ্যাত গান ‘নায়না আপনি পিয়া সে লাগায় রে’ এবং বিখ্যাত ঠুমরী রাগ ভিন্ন ষড়জে ‘ইয়াদ পিয়া কি আয়ে’ গেয়ে শোনান তিনি।

বেঙ্গল উচ্চাঙ্গসংগীত উৎসব ২০১৫-এর সর্বশেষ পরিবেশনা ছিল পণ্ডিত হরিপ্রসাদ চৌরাসিয়ার। তিনি বাঁশিতে রাগ কিরওয়ানি বাজিয়ে শোনান। এরপর রাগ জৈত রূপক ও তিনতালে বাজান। এরপর তিনি ভাটিয়ালি ধুন বাজিয়ে তার পরিবেশনা শেষ করেন। তানপুরীতে ছিলেন পুস্পঞ্জলী।  

বেঙ্গল ফাউন্ডেশন আয়োজিত বেঙ্গল উচ্চাঙ্গসংগীত উৎসব ২০১৫- এর নিবেদক স্কয়ার গ্রুপ। অনুষ্ঠানের সম্প্রচার সহযোগী মাছরাঙা টেলিভিশন। উৎসবটি উৎসর্গ করা হয়েছে বরেণ্য চিত্রশিল্পী কাইয়ুম চৌধুরীকে। অনুষ্ঠানের কিছু স্থিরচিত্র দিয়ে সাজানো হলো নিচের অ্যালবামটি-

 

 

ছবিঃ বেঙ্গল ফাউন্ডেশন

/এম/

***বাংলা ট্রিবিউনে প্রকাশিত কোনও সংবাদ, কলাম, তথ্য, ছবি, কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার দণ্ডনীয় অপরাধ। অনুমতি ছাড়া ব্যবহার করলে কর্তৃপক্ষ আইনি ব্যবস্থা গ্রহণ করবে।