রাত ০৫:৪২ ; বুধবার ;  ২৩ অক্টোবর, ২০১৯  

একটি গোষ্ঠী দেশের মানুষের মধ্যে সম্প্রীতি ছিন্নের অপচেষ্টায় লিপ্ত

প্রকাশিত:

বাংলা ট্রিবিউন রিপোর্ট।।

রাজনৈতিক দায়িত্বহীনতা এবং প্রশাসনকে স্বাধীনভাবে কাজ করতে না দেওয়ায় একটি গোষ্ঠী দেশের মানুষের মধ্যে সম্প্রীতির বন্ধন ছিন্ন করার অপচেষ্টায় লিপ্ত আছে। এ অবস্থায় পারস্পরিক সহযোগিতার মাধ্যমে সকলের মধ্যে সামাজিক সম্প্রীতি রক্ষা করা সম্ভব বলে জানিয়েছেন বিশিষ্টজনেরা।

শনিবার দুপুরে রাজধানীর ডেইলি স্টার ভবনের এস মাহমুদ সেমিনার হলে দ্য হাঙ্গার প্রজেক্ট ও দ্য ডাইভারসিটি সেন্টার আয়োজিত ‘সামাজিক সম্প্রীতি প্রতিষ্ঠায় করণীয়’ শীর্ষক এক গোলটেবিল আলোচনায় তারা এ সব কথা বলেন।

গোলটেবিল আলোচনায় সাবেক তত্ত্বাবধায়ক সরকারের উপদেষ্টা ড. আকবর আলী খান, বিশিষ্ট সাংবাদিক ও কলামিস্ট সৈয়দ আবুল মকসুদ, আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালের প্রসিকিউটর রানা দাশ গুপ্ত, হাঙ্গার প্রজেক্টের গ্লোবাল ভাইস প্রেসিডেন্ট ও কান্ট্রি ডিরেক্টর ড. বদিউল আলম মজুমদার, মানবাধিকার কর্মী ফরিদা আক্তার, হামিদা হোসেন, আইনজীবী জ্যোতির্ময় বড়ুয়া, ইয়াং গ্লোবাল লিডার লুৎফে সিদ্দিকী বক্তব্য রাখেন।

ড. আকবর আলী খান বলেন, স্বল্প আয়তনের এই দেশে যে পরিমান মানুষ বসবাস করে, এখানে পরস্পরের প্রতি সম্প্রীতি ছাড়া টিকে থাকা অসম্ভব।

তিনি বলেন, রাজনৈতিক দলসমূহের মধ্যে সমালোচনা থাকবে, তবে সেটা যেন গালাগালি না হয়। গালাগালি বন্ধ করে একে অপরের প্রতি শ্রদ্ধা রাখতে পারলেই রাজনৈতিক উত্তাপ কমে যাবে।

সৈয়দ আবুল মকসুদ বলেন, বর্তমানে সারা পৃথিবীর মধ্যে রাজনৈতিক যে পরিস্থিতি বিরাজ করছে, তার মধ্যে আমাদের ভালো থাকার আশা করতে পারি না। তবে তুলনামূলকভাবে বাংলাদেশে বিশ্বের যে কোনও স্থানের চেয়ে শান্তি ও স্থিতিশীল পরিস্থিতি বিরাজ করছে। অতীত কাল থেকেই সম্প্রীতি আমাদের হৃদয়ে আছে, কিন্তু বর্তমানে কিছু পরিস্থিতি সৃষ্টি করা হচ্ছে।

এডভোকেট রানা দাশ গুপ্ত বলেন, পাকিস্তান ভেঙ্গে বাংলাদেশ হওয়ার পরেও আমাদের সংখ্যালঘুদের ভাগ্যে কী হলো? তারা যেভাবে দেশ থেকে বিতাড়িত হচ্ছে তাতে এ সংখ্যালঘুরা শূন্যে নেমে আসতে আর কত বছর লাগবে?

তিনি বলেন, আমাদের রাজনীতির একটি অংশ মনে করে সংখ্যালঘুরা দেশ থেকে চলে গেলে দেশ বাঁচবে, ধর্ম বাঁচবে। আরেক অংশ মনে করে সংখ্যালঘুরা থাকলে ভোট আমার, আর চলে গেলে জমিটা আমার।

ড. বদিউল আলম মজুমদার বলেন, ভিন্নমত, পথ ও গোষ্ঠীর সঙ্গে কীভাবে শান্তিপূর্ণভাবে বাস করা যায় এটা আমাদের ভাবতে হবে। কে বা করা উস্কানি দিচ্ছে তা খুঁজে বের করতে হবে। তা না হলে বিরাট সমস্যার সম্মুখীন হবো।

/এসআই/এফএইচ/

***বাংলা ট্রিবিউনে প্রকাশিত কোনও সংবাদ, কলাম, তথ্য, ছবি, কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার দণ্ডনীয় অপরাধ। অনুমতি ছাড়া ব্যবহার করলে কর্তৃপক্ষ আইনি ব্যবস্থা গ্রহণ করবে।