রাত ০৪:১৭ ; সোমবার ;  ১৮ নভেম্বর, ২০১৯  

‘চামড়া শিল্প হতে পারে রফতানি আয়ের প্রধান উৎস’

তৃতীয় লেদারটেক বাংলাদেশ ২০১৫ শুরু

প্রকাশিত:

সম্পাদিত:

বাংলা ট্রিবিউন রিপোর্ট ॥

ভবিষ্যতে চামড়া শিল্প বাংলাদেশের রফতানি আয়ের প্রধান উৎস হতে পারে বলে মন্তব্য করেছেন শিল্পসচিব মোশাররফ হোসেন ভুইঁয়া। তিনি বলেন, বাংলাদেশে রফতানিজাত পণ্যের মধ্যে চামড়া তৃতীয় অবস্থানে রয়েছে। বৃহস্পতিবার ইন্টারন্যাশনাল কনভেশন সিটি বসুন্ধরায় তিনদিনব্যাপী আয়োজিত তৃতীয় ‘লেদারটেক বাংলাদেশ ২০১৫’ প্রদর্শনী উদ্বোধনকালে তিনি এসব কথা বলেন।

শিল্পসচিব বলেন, রফতানিজাত পণ্যের মধ্যে তৈরি পোশাক খাত প্রধান ও অন্যতম হলেও চামড়া খাতও কম গুরুত্বপূর্ণ নয়। দেশের চামড়া শিল্পের আরও বিকাশের জন্য এই শিল্পের প্রতি বিশেষ নজর রেখেছে সরকার। সরকার রাজধানীর হাজারীবাগের চামড়া শিল্পকে একটি যথাযথ পরিবেশে নিয়ে যেতে রাজধানীর অদূরে হেমায়েতপুরে চামড়া শিল্পনগরী গড়ে তুলছে বলে জানান তিনি।

আস্ক ট্রেড অ্যান্ড এক্সিবিশন্স প্রাইভেট লিমিটেডের আয়োজনে প্রদর্শনীতে বাংলাদেশের চামড়া, চামড়াজাত পণ্য ও ফুটওয়্যার শিল্পের জন্য প্রয়োজনীয় মেশিনারিজ, কম্পোনেন্ট, ক্যামিক্যাল এবং অ্যাকসেসরিজ প্রদর্শিত হচ্ছে।

বৃহস্পতিবার থেকে শনিবার প্রতিদিন বেলা ১১টা থেকে সন্ধ্যা ৭ টা পর্যন্ত এ প্রদর্শনী চলবে, যা সবার জন্য উন্মুক্ত থাকবে।

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথির বক্তৃতায় ভারতের কাউন্সিল ফর লেদার এক্সপোর্টসের চেয়ারম্যান এম. রফিক আহমেদ বলেন, চামড়া শিল্পের আন্তর্জাতিক বাজারে নিজেদের অবস্থান আরও সুদৃঢ় করতে ভারত ও বাংলাদেশের যৌথভাবে কাজ করার অনেক সুযোগ রয়েছে। আর এ সুযোগকে কাজে লাগাতে আমরা লেদার এক্সপোর আয়োজন করেছি। যা এ শিল্পের উন্নয়নে আধুনিক প্রযুক্তি বিনিময়, পরিকল্পনা উন্নয়ন ও কারিগরি সক্ষমতার বৃদ্ধিতে যৌথভাবে কাজ করতে সাহায্য করবে। পাশাপাশি নতুন প্রযুক্তির সাথে উদ্যোক্তা ও বিনিয়োগকারীদের পরিচিত করবে।

প্রদর্শনীতে তুরস্ক, মিশর, শ্রীলঙ্কা, ইতালি, সিঙ্গাপুর, তাইওয়ান, হংকং, জাপানের ১৪০ টিরও বেশি প্রতিষ্ঠানের স্টল অংশ নিয়েছে।  পার্শ্ববতী দেশ ভারত ও চীনের ৫০ টি বৃহৎ প্রতিষ্ঠানের প্যাভিলিয়ন রয়েছে। চামড়া শিল্প খাতগুলোর উন্নয়নে প্রয়োজনীয় টেনিং লেদারের মেশিনারি, ম্যানুফ্যাকচারিং ফুটওয়্যার, চামড়াজাত পণ্য, কম্পোনেন্টস, ডাই, কেমিক্যাল, একসেসরিজ ও সংশ্লিষ্ট  পণ্য প্রদর্শনীতে স্থান পেয়েছে।

আয়োজকরা জানান, বাংলাদেশের চামড়া খাতে কাঁচামাল এবং দক্ষ শ্রমশক্তির আধিক্য এবং ইউরোপীয় ইউনিয়ন, জাপান, কানাডাসহ আন্যান্য দেশের বাজারে প্রবেশের সুযোগ থাকায়  লেদারগুডস এবং ফুটওয়্যারের আন্তর্জাতিক বাজারে এদেশের অনেক সম্ভাবনা রয়েছে। বিষয়টি উপলব্ধি করে বাংলাদেশ সরকার সম্প্রতি লেদারগুডস এবং ফুটওয়্যারকে শীর্ষ চারটি খাতের মধ্যে অন্যতম ঘোষণা করেছে।

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে আরও উপস্থিত ছিলেন, লেদারগুডস অ্যান্ড ফুটওয়্যার ম্যানুফ্যাকচারারস অ্যান্ড এক্সপোর্টারস অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ-এর প্রেসিডেন্ট মো. সাইফুল ইসলাম; বাংলাদেশ ফিনিশড লেদার, লেদার গুডস অ্যান্ড ফুটওয়্যার এক্সপোর্টার অ্যাসোসিয়েশনের চেয়ারম্যান ইঞ্জিনিয়ার মোহাম্মদ আবু তাহের; বাংলাদেশ টেনারস অ্যাসোসিয়েশনের চেয়ারম্যান মো. শাহিন আহমেদ; বাংলাদেশ পাদুকা প্রস্তুতকারক সমিতির প্রাক্তন প্রেসিডেন্ট অ্যাডভোকেড নাসির উদ্দিন; ইন্ডিয়ান ফটওয়্যার কম্পোনেন্টস ম্যানুফ্যাকচারারস অ্যাসোসিয়েশনের প্রেসিডেন্ট বীপেন শেঠ; কাউন্সিল ফর লেদার এক্সপোর্টস, সেন্টার অব এক্সিল্যান্স ফর লেদার স্কিল বাংলাদেশ লিমিটেডের মেম্বার একেএম আফজালুর রহমান এবং আস্ক ট্রেড অ্যান্ড এক্সিবিশন্স প্রাইভেট লিমিটেডের পরিচালক নন্দ গোপাল কে।

চামড়া শিল্পের এই ট্রেড শো-এর প্রধান পৃষ্ঠপোষক লেদারগুডস অ্যান্ড ফুটওয়্যার ম্যানুফ্যাকচারারস অ্যান্ড এক্সপোর্টারস অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ। এছাড়া বাংলাদেশ ফিনিশড লেদার, লেদার গুডস অ্যান্ড ফুটওয়্যার এক্সপোর্টার অ্যাসোসিয়েশন, বাংলাদেশ টেনারস অ্যাসোসিয়েশন, বাংলাদেশ পাদুকা প্রস্তুতকারক সমিতি, সেন্টার অব এক্সিল্যান্স ফর লেদার স্কিল বাংলাদেশ লিমিটেড, কাউন্সিল ফর লেদার এক্সপোর্টস এবং ইন্ডিয়ান ফট্ওুয়্যার কম্পোনেন্টস ম্যানুফ্যাকচারারস অ্যাসোসিয়েশন এতে পৃষ্ঠপোষকতা করছে।

/এসআই/এমএনএইচ/

***বাংলা ট্রিবিউনে প্রকাশিত কোনও সংবাদ, কলাম, তথ্য, ছবি, কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার দণ্ডনীয় অপরাধ। অনুমতি ছাড়া ব্যবহার করলে কর্তৃপক্ষ আইনি ব্যবস্থা গ্রহণ করবে।