রাত ০৯:০০ ; মঙ্গলবার ;  ১৮ ডিসেম্বর, ২০১৮  

নাশকতা মামলার আসামির মুক্তির দাবিতে স্থবির জাবি

প্রকাশিত:

জাবি প্রতিনিধি।।

নাশকতার মামলায় গ্রেফতার হওয়া জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের (জাবি) সহকারী রেজিস্ট্রার (এস্টেট) ও ঢাকা জেলা স্বেচ্ছাসেবক দলের সভাপতি আব্দুর রহমান বাবুলের মুক্তির দাবিতে গত দুদিন ধরে আন্দোলনে নেমেছেন বিশ্ববিদ্যালয়ের কর্মকর্তা-কর্মচারীরা। মঙ্গলবারের মতো আজ বুধবারও কর্মবিরতি ও সমাবেশ করেছেন তারা।

বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের অনুরোধ করা সত্ত্বেও অনির্দিষ্টকালের জন্য আন্দোলন চালিয়ে যাওয়ার ঘোষণাও দিয়েছেন নেতারা। এতে স্থবির হয়ে পড়েছে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসনিক কার্যক্রম।

আন্দোলনের দ্বিতীয় দিন বুধবার বেলা ১১টার দিকে একটি বিক্ষোভ মিছিলও বের করে কর্মকর্তা-কর্মচারীরা। মিছিলটি বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসনিক ভবনের সামনে থেকে শুরু হয়ে বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ স্থান প্রদক্ষিণ করে একই স্থানে এসে শেষ হয়। এ সময় তাদেরকে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনবিরোধী বিভিন্ন স্লোগান দিতে দেখা যায়।

পরে বেলা সাড়ে ১১টার দিকে প্রশাসনিক ভবনে বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য, উপ-উপাচার্য, রেজিস্ট্রারের সঙ্গে বৈঠকে বসেন অফিসার সমিতি, কর্মচারী সমিতি ও কর্মচারী ইউনিয়নের নেতারা। সেখানে উপাচার্য অধ্যাপক ড. ফারজানা ইসলাম তাদেরকে আন্দোলন স্থগিত করতে অনুরোধ জানান। বাবুলের মুক্তির জন্য বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন আইনি প্রক্রিয়ায় সর্বোচ্চ চেষ্টা করছে বলেও জানান উপাচার্য।

এরপর দুপুর ১২টার দিকে অফিসার সমিতির কার্যনির্বাহী পরিষদের বৈঠক হয়। বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের অনুরোধ উপেক্ষা করে ওই বৈঠকে আন্দোলন চালিয়ে নেওয়ার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়।

বাবুলকে নিয়ম-বহির্ভূতভাবে গ্রেফতার করা হয়েছে দাবি করে অফিসার সমিতির সভাপতি আব্দুস সালাম শরিফ বলেন, ‘আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনকে অবহিত না করে বাবুলকে বিশ্ববিদ্যালয় এলাকার ভেতর থেকে ধরে নিয়ে গেছে। বাবুলকে মুক্ত না করা পর্যন্ত আমরা অফিসার সমিতি, কর্মচারী সমিতি, কর্মচারী ইউনিয়ন মিলে আন্দোলন চালিয়ে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছি।’

বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসনিক কর্মকর্তা মো. মাহতাব-উজ-জাহিদ (আইন) বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, ‘গ্রেফতারকৃত বাবুলের মুক্তির জন্য গতকাল মঙ্গলবার আদালতে জামিনের আবেদন করা হয়েছিল। আদালত জামিন আবেদন মঞ্জুর করেননি। এখন জেলা ও দায়রা জজ আদালত এবং উচ্চ আদালতে পিটিশনের প্রস্তুতি চলছে।’

আশুলিয়া থানার এসআই ইলিয়াস হোসেন বুধবার বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, ২০১৩ সালে সাভার ক্যান্টনমেন্টের সামনে একটি সিএনজিচালিত অটোরিকশা পোড়ানোর মামলায় বাবুলকে সোমবার সন্ধ্যায় গ্রেফতার করা হয়। তিনি ওয়ারেন্টভুক্ত আসামি। তাকে বিশ্ববিদ্যালয়ের বাইরে ঢাকা-আরিচা মহাসড়কের প্রান্তিক গেটের বিপরীতে যাত্রীছাউনি থেকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

এ বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার আবু বকর সিদ্দিক বলেন, ‘কর্মকর্তা-কর্মচারীদেরকে আন্দোলন প্রত্যাহারের জন্য আমরা অনুরোধ করেছি। এখন তারা যদি অনুরোধ না শোনে তাহলে আমাদের করার কিছুই নেই।’

/এএ/এএইচ/

***বাংলা ট্রিবিউনে প্রকাশিত কোনও সংবাদ, কলাম, তথ্য, ছবি, কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার দণ্ডনীয় অপরাধ। অনুমতি ছাড়া ব্যবহার করলে কর্তৃপক্ষ আইনি ব্যবস্থা গ্রহণ করবে।