রাত ১১:১৬ ; শুক্রবার ;  ২২ মার্চ, ২০১৯  

সন্ধ্যার পরের তারা...

প্রকাশিত:

সম্পাদিত:

ওয়ালিউল মুক্তা।।

পৃথিবীর কোন সীমানায় এক প্রাচীরে আছে গ্রাম আর শহর? ঝুলে থাকা ছনের তৈরি ঘর, পাশেই হঠাৎ অট্টালিকা; যা দেখতে ঘাড় বাঁকিয়ে তাকিয়ে থাকতে হয়। এর মাঝামাঝি ধরনের ঘরবাড়িও আছে, পুরান ঢাকার মতো। নাম ‘অপরাজিতা’, ‘পালকী’ আর ‘খুঁজে ফিরি তাকে’। এগুলো সেটের নাম। দীপ্ত টিভির নতুন নাটকগুলোর নামে এগুলোর নাম। আর এ গ্রাম, পুরান ঢাকা আর ডুপ্লেক্স প্রসাদসম বাড়ির আদলে তৈরি সেটগুলো সবই নতুন এ টিভি চ্যানেলের জন্য তৈরি। উদ্বোধনী দিন বুধবার সন্ধ্যা ৬টায় থেকে পর্দায় হাজির হয়েছেন তিনটি ধারাবাহিকের কিছু নতুন মুখ। তার আগে এক আড্ডায় নাটকের ছয় শিল্পী জানালেন নিজেদের অভিজ্ঞতা, ভাবনা আর আশাবাদের কথা।

যখন মন্দিরা
    নাটকের অভিজিৎ

সিফাতের অপর নাম মন্দিরা সেনগুপ্ত। এর আগে কাজ করেছেন পোলার আইসক্রিম ও প্যারাসুট নারিকেল তেলসহ বেশ কয়েকটি বিজ্ঞাপনচিত্রে। নাটকে একেবারে লক্ষ্মী মেয়ে সে। ছোট ভাই-বোনদের নিজের সন্তানের মতো বড় করছেন। সঙ্গে স্কুলের চক-ডাস্টারও ঘোরান; তিনি শিক্ষিকা। নাটকের চরিত্র বলে, বেশ শান্ত কিন্তু নিজে বললেন অন্য কথা, ‘আরে না, সেটে এই সাজে বসে থাকতে হয়, তাই। তবে সবসময়ই হাসাহাসি, দুষ্টমি চলে। আর আমিই বোধহয় বেশি জোরে হাসি।’

পাশে বসে এ কথাটায় সায় দিয়ে মাথায় মৃদু একটু ঝাঁকুনি যে দিলেন, তার নাম আফজাল কবীর। একই নাটকে অভিজিৎ নামে তিনি মন্দিরার নায়ক। তাই মন্দিরার এই হাসাহাসির বড় সাক্ষী যে তিনিই। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের নাট্যকলা বিভাগ থেকে পড়াশোনা করেছেন। এর আগে প্রভাত ফেরী দলের হয়ে মঞ্চে অভিনয়। আর দীপ্ত টিভিতে অভিনেতা হিসেবে চাকরি করছেন এ শিল্পী। ‘নাট্যশিল্পী হিসেবে এটা বেশ ভালো অভিজ্ঞতা। কারণ এখানে নিজের পছন্দের বিষয়টি নিয়ে চাকরি করছি। অভিনয়ের জন্য মাস শেষে বেতন গুনছি।’

'অপরাজিতা’ নাটকের জুটি

চ্যানেলটি তিনটি বড় পরিসরের ধারাবাহিক নিয়ে আসছে।  এগুলোর বেশিরভাগ শিল্পীই বেতনভুক্ত। সকাল-সন্ধ্যা কাজ করেন তারা। প্রয়োজনে এখানেই চলে রান্না-বান্না, আড্ডা; এমনকি ঘুম!

ফারজানা রিক্তা যেমন বললেন, ‘অনেকেই বলে কাজের বিষয়ে আমরা বেশ গম্ভীর। হ্যাঁ, এটা ঠিক কাজের বিষয়ে আমরা বেশ সিরিয়াস থাকি। কিন্তু আমাদের এখানে সবই চলে। পাশেই তো কারওয়ান বাজার। সেখানে থেকে বাজার করে চলে আমাদের পিকনিক। বিশেষ করে আমাদের নাটকের (খুঁজে ফিরি তাকে)পরিচালক-প্রযোজকরা এ ধরনের কাজে বেশ উৎসাহী। তারাই কিন্তু রান্না করেন, আর আমরা হয়ে যাই হেলপার!’

’খুঁজে ফিরি তাকে’ নাটকের বনানী

টিভি পর্দায় রিক্তা পরিচিত মুখ। বেশ কিছু ধারাবাহিক করেছেন। সর্বশেষ ‘কার্তুজ’ ছবির নায়িকা হিসেবে পর্দায় এসেছেন। তবে এখানে কাজ করলেও বাইরে কাজ করতে তেমন বাধা নেই। তার ভাষ্য, ‘দীপ্ত টিভির আয়োজনটা পুরো পরিবারের মতো। এখানে একজন চুক্তিবদ্ধ শিল্পী টিভিটির বিভিন্ন ধারাবাহিকে কাজ করবে। বাইরে কাজ করা যাবে, তবে অন্য কোনও টিভির ধারাবাহিকে কাজ করতে পারবে না। কারণ আমরা চাই নাটকের চরিত্রটি প্রতিষ্ঠিত হোক। ‘খুঁজে ফিরি তাকে’তে আমার চরিত্রটির নাম বনানী। এখানেও আমাকে সেখাবে সম্বোধন করা হয়।’

ইমতু যখন সোহেল

রিক্তার বাকি কথাটা বললেন ইমতু। টিভিটির অপর ধারবাহিক ‘পালকী’তে তিনি একজন গৃহকর্তা। নাম সোহেল। যার দুজন স্ত্রী। ইমতুর দুষ্টমিভরা কথায়, ‘আমাদের এখানে পরিকল্পনাই হলো দর্শক ইমতু বা রিক্তাকে ভুলে যাক! তারা শুধু মনে রাখবে সোহেল বা বনানীকে। মনে রাখুক আমার নাটকের অপর দুই চরিত্র পালকী ও সাবাকে। বাস্তব জীবনের নামে আমরা আর নেই!’

ইমতু দীর্ঘদিন ধরে টিভিতে কাজ করছেন। তাই পার্থক্যটা বললেন তিনি, ‘আমাদের এখানে নাটকের পুরো আয়োজনটিই খুব সময় নিয়ে ও গুছিয়ে করা। এখানে প্রতিটি সংলাপ, পোশাক- সবকিছুর ওপর গুরুত্ব দেওয়া হয়। আর আমাদের কাজগুলো প্রতিদিন আট ঘণ্টা করে হচ্ছে। তাই মনোসংযোগও বেশ ভালোভাবে নাটকে থাকে। একটি পরিবার যেভাবে চলে, সেই আবহ থাকে নাটকে। তাই দর্শকরা আচমকা কোনও অসামঞ্জস্যপূর্ণ দৃশ্য পাবে না।’

‘পালকী’ নাটকের সাবা চরিত্র করছেন রানী আহাদ। ২০১৩ সালে মিডিয়ার সঙ্গে যুক্ত হয়েছেন তিনি। দু’একটি কাজও করেছেন দেশের বাইরে পড়াশোনা করে এ শিল্পী। প্রায় শুরু থেকেই কাজ করছেন চ্যানেলটির সঙ্গে।

নাটকের সাবা

‘নাটক সম্পর্কে অনেকেই বলছেন কলকাতা বা ভারতীয় ধারাবাহিকের ছায়া আছে। তবে আমরা শুধু তাদের নির্মাণপ্রক্রিয়া অনুসরণ করেছি। কারণ এদেশের দর্শকরা তাদের নাটক দেখছে। সে দর্শকদের সংখ্যা অনেক বেশি। তারা যদি আমাদের দেশে নির্মিত এ নাটকগুলো দেখে, এতে আমাদের জন্যই ভালো।’ বললেন রানী আহাদ। আর নিজের চরিত্র? চটজলদি তার উত্তর, ‘এখানে আমি শহুরে মেয়ে। নাম সাবা’।

পালকী অথবা স্নিগ্ধা

এবার আসা যাক ‘পালকী’তে। এ চরিত্রটির মানুষের নাম স্নিগ্ধা মোমিন। ছিলেন লাক্স চ্যানেল আই সুপারস্টার প্রতিযোগী। ২০০৮ সালের সে প্রতিযোগিতায় সেরা দশে না থাকলেও পরের স্থানটি ছিল তার। এরপর ‘রেডিও চকলেট’, ‘চলিতেছে সার্কাস’সহ বেশ কিছু ধারাবাহিকে কাজ করেছেন তিনি। আর ছোটবেলায় নাচও শিখেছেন নিয়মিত।

’পালকী’র চরিত্রগুলো

নিজেদের কাজগুলো সম্পর্কে তার মত, ‘আসলে আমরা চাচ্ছি, লোকজন আমাদের চরিত্রটা গ্রহণ করুক। যেমন ‘অপরাজিতা’র অভিজিৎ, মন্দিরা অথবা ‘খুঁজে ফিরি তাকে’র বনানীকে, কিংবা আমাদের ‘পালকী’ নাটকের চরিত্রগুলোকে। দর্শরকা যেন আমাদেরকে তাদের পরিবারের সদস্য করে নেয়। প্রতিটি রাতে দেশের প্রতিটি পরিবারের সঙ্গে আমরা থাকব।’

ছবি তুলেছেন সাজ্জাদ হোসেন

/এম/

***বাংলা ট্রিবিউনে প্রকাশিত কোনও সংবাদ, কলাম, তথ্য, ছবি, কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার দণ্ডনীয় অপরাধ। অনুমতি ছাড়া ব্যবহার করলে কর্তৃপক্ষ আইনি ব্যবস্থা গ্রহণ করবে।