সকাল ০৯:১৯ ; রবিবার ;  ১৮ নভেম্বর, ২০১৮  

উদ্বোধনের এক মাসেই পৌর ভবনে ফাটল: ধসের আশঙ্কা

প্রকাশিত:

নেত্রকোনা প্রতিনিধি।।

নেত্রকোনার সীমান্তবর্ত্তী দুর্গাপুর পৌরসভার নবনির্মিত ভবন উদ্বোধনের পরপরই বিভিন্ন স্থানে অসংখ্য ফাটল দেখা দিয়েছে। যে কারণে পৌর ভবনে কর্মরত কর্মকর্তা-কর্মচারীরা ভবন ধসের ভয়ে সব সময় সঙ্কিত। জরুরি ভিত্তিতে এর প্রতিকার চেয়ে মেয়রের কাছে লিখিত আবেদন করেছেন পৌরসভার কর্মকর্তা-কর্মচারীরা।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা যায়,স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ের অর্থায়নে দুই কোটি ৫১ লাখ টাকা ব্যয়ে দুর্গাপুর পৌর ভবন নির্মাণ করা হয়। ভবন নির্মাণকালীন ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান সমীরণ চৌধুরী অ্যান্ড মাল্টিপ্ল্যাক্স কোম্পানি লিমিটেডের তত্ত্বাবধানে নির্মাণ কাজ সম্পন্ন হয়।

কিন্তু পৌর মেয়র ও সহকারী প্রকৌশলীর তদারকী এবং নীরবতার সুযোগে ওই ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান সিডিউলকে পাশ কাটিয়ে নিজেদের ইচ্ছেমতো দায়সারাভাবে নির্মাণ কাজ শেষ করে।

গত ১৫ সেপ্টেম্বর পৌর ভবনটি স্থানীয় এমপি ছবি বিশ্বাসকে দিয়ে উদ্বোধন করানো হয়। উদ্বোধনের পর পরই পৌর ভবনের প্রতিটি রুমে অসংখ্য ফাটল শুরু হয়। ভবন ধসের আশঙ্কায় পৌরসভার ১০ কর্মকর্তা ও কর্মচারী গত বুধবার পৌর মেয়র বরাবর লিখিত আবেদন করে। সংশ্লিষ্ট বিভাগ ও সাংবাদিকদের কাছে অনুলিপি দেওয়া হয়েছে।

বিষয়টি ধামাচাপা দিতে পৌর মেয়র ও সহকারী প্রকৌশলীর যোগসাজশে ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানের কর্ণধার সমীরণ চৌধুরী ওই ফাটল বন্ধ করতে শ্রমিক লাগিয়ে ও অবশিষ্ট টাকা উঠানোর জন্য এখন ব্যতিব্যস্ত হয়ে পড়েছেন বলে অভিযোগ উঠেছে।

এ বিষয়ে পৌরসভায় কর্মরত আব্দুল হান্নান, মুক্তার হোসেন, নূরুল ইসলাম, আবুল কালাম আজাদ, মো. শহীদুল্লাহ খান, আব্দুল হামিদ সরকার, আমিনূল ইসলাম, সাবিনা ইয়াসমিন, প্রবোধ কুমার সরকার ও আলী নেওয়াজ প্রতিক্রিয়া জানিয়ে বলেন,পৌর ভবন নির্মাণে ব্যাপক অনিয়ম,দুর্নীতির কারণে ফাটল শুরু হওয়ায় যে কোনও সময় ভবন ধ্বসে পড়ার আশঙ্কায় তারা এখন উদ্বিগ্ন। এই অবস্থা থেকে তারা মুক্তি চান।

দুর্গাপুর পৌর সভার মেয়র শ. ম. জয়নাল আবেদীন ও পৌরসভার সহকারী প্রকৌশলী নওশাদ আলমের মোবাইল ফোনে একাধিকবার যোগাযোগের চেষ্টা করা হলেও তাদের পাওয়া যায়নি।

/জেবি/এফএস/

 

***বাংলা ট্রিবিউনে প্রকাশিত কোনও সংবাদ, কলাম, তথ্য, ছবি, কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার দণ্ডনীয় অপরাধ। অনুমতি ছাড়া ব্যবহার করলে কর্তৃপক্ষ আইনি ব্যবস্থা গ্রহণ করবে।