রাত ১১:২১ ; বৃহস্পতিবার ;  ১৮ জুলাই, ২০১৯  

স্থানীয় সরকার নির্বাচনে সব দলের অংশগ্রহণ নিশ্চিত চায় ক্ষমতাসীনরা

প্রকাশিত:

সম্পাদিত:

পাভেল হায়দার চৌধুরী।।

ডিসেম্বরে অনুষ্ঠিতব্য স্থানীয় সরকার নির্বাচনে জোটের বাইরেও সব দলের অংশগ্রহণ চায় ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ। দেশি-বিদেশি সব মহলের কাছে এ নির্বাচনকে গ্রহণযোগ্য ও উৎসবমুখর করে তুলতে এ ছক তাদের। তাই এ নির্বাচনে সব দলের অংশগ্রহণ নিশ্চিত করতে বিশেষ গুরুত্ব দিচ্ছে ক্ষমতাসীনরা। এরই অংশ হিসেবে নির্বাচন কমিশন নিবন্ধিত সবগুলো রাজনৈতিক দলের সঙ্গে যোগাযোগ করবে আওয়ামী লীগ। তবে বিএনপি-জামায়াত বাদে। আওয়ামী লীগের একাধিক নীতি-নির্ধারণী পর্যায়ের নেতারা এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। তবে দলগুলোর সঙ্গে এ যোগাযোগ আনুষ্ঠানিক না অনানুষ্ঠানিকভাবে হবে সে বিষয়ে এখনও সিদ্ধান্ত নেয়নি সরকারি দল।  আগামী কার্যনির্বাহী সংসদের সভায় এ ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে বলে জানা গেছে।

এ প্রসঙ্গে জানতে চাইলে আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহাবুবউল আলম হানিফ বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, স্থানীয় সরকার নির্বাচনে বেশি সংখ্যক রাজনৈতিক দলের অংশগ্রহণ নিশ্চিত করতে চায় সরকার। এ বিষয়টি নিশ্চিত করতে আওয়ামী লীগ কিছু পরিকল্পনাও গ্রহণ করবে বলে জানান তিনি। বিএনপি-জামায়াত প্রসঙ্গে তিনি বলেন, তাদের শক্তি সামর্থের ওপর নির্ভর করবে এ নির্বাচনে বিএনপির অংশগ্রহণ। তিনি বলেন, বিএনপি-জামায়াত ষড়যন্ত্র করতে গিয়ে রাজনীতি থেকে পিছিয়ে পড়েছে। এ কারণে তাদের সাংগঠনিক ভিত্তিও দুর্বল। তারা হয়তো এ কারণে নির্বাচনে নাও আসতে পারে। হানিফ বলেন, ভরাডুবির আশঙ্কায় নির্বাচনে তাদের অংশগ্রহণ নাও হতে পারে।

ক্ষমতাসীন দলের নেতাদের মতে, নির্দলীয়ভাবে এ নির্বাচন অনুষ্ঠানের দীর্ঘদিনের রেওয়াজ ভেঙে আওয়ামী লীগ দলীয় ব্যানারে নির্বাচন করার আইন করেছে এবং প্রথমবারের মতো দলীয়ভাবে এ নির্বাচন হবে। ফলে এ নির্বাচনের প্রতি দেশি-বিদেশি সবার দৃষ্টি থাকবে বলে মনে করছে তারা। তাই গ্রহণযোগ্য ও উৎসবমুখর পরিবেশ নিশ্চিত করা সরকারের একমাত্র লক্ষ্য। নীতি-নির্ধারণী মহলের নেতারা আরও জানান, স্থানীয় সরকার নির্বাচন দলীয়ভাবে করার মতো বড় একটি সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেছে বর্তমান সরকার। ফলে এ নির্বাচন নিয়ে পারত পক্ষে কোনও বিতর্ক সৃষ্টি হোক তা চাই না। বরং উৎসবমুখর পরিবেশ তৈরি করতে যত ধরনের পদক্ষেপ গ্রহণ করা যায় তা করা হবে। নীতি-নির্ধারণী মহলের কয়েকজন নেতা স্থানীয় সরকার নির্বাচন নিয়ে দলের এ পরিকল্পনার কথা জানিয়েছেন। এসব বিষয় মাথায় রেখে এ নির্বাচন নিয়ে বেশি সচেতন থাকবে সরকার।

জানা গেছে, স্থানীয় সরকার নির্বাচনে সারাদেশে বিরোধী দল জাতীয় পার্টির প্রার্থীদের প্রতিদ্বন্দ্বিতা বেশি চায় আওয়ামী লীগ। এজন্যে জাপার প্রতি কিছুটা ছাড় দেওয়ার কৌশলও রয়েছে আওয়ামী লীগের। বিএনপি-জামায়াতকে ‘মাইনাস’ করতে জাপার বেশি অংশগ্রহণের দিকে খেয়াল করছে ক্ষমতাসীনরা। তাই জাপা সারাদেশে যাতে প্রার্থী দেয় সে বিষয়ে আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে অনানুষ্ঠানিকভাবে তাদের বলাও হয়েছে বলেও একটি সূত্র নিশ্চিত করেছে। বিএনপি-জামায়াতকে তৃণমূলে দুর্বল করতে এ নির্বাচন গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে বলেও মনে করে ক্ষমতাসীনরা। আওয়ামী লীগ মনে করছে স্থানীয় নির্বাচনে সারাদেশে জাপার অংশগ্রহণ বেশি করা গেলে বিএনপি-জামায়াতের অবস্থান তত দুর্বল হবে। জানা গেছে, জাপা যাতে সারাদেশে প্রার্থী দিতে পারে সেজন্যে তাদের সাংগঠনিক শক্তি বাড়াতে বলা হয়েছে। 

অপর একটি সূত্র জানায়, বিএনপি-জামায়াত যাতে এ নির্বাচনে অংশগ্রহণ করতে না পারে সেজন্যে আওয়ামী লীগ একটি কৌশল ঠিক করে রেখেছে। তার মধ্যে অন্যতম নির্বাচনের কিছু সময় আগে সারাদেশে নেতাকর্মীদের ওপর কয়েক দফায় পুলিশি হামলা করা হবে। তাদের মতে, বিএনপির গত আন্দোলনের ৯৩ দিনের বিভিন্ন জেলায় বিএনপি-জামায়াতের নেতাকর্মীরা নাশকতা ঘটানোর অভিযোগে অভিযুক্ত। সুতরাং নির্বাচনি মাঠে ফেরা তাদের জন্যে অসম্ভব। মামলা-হামলার আতঙ্কে নির্বাচনি মাঠে আসবে না বিএনপি-জামায়াতের নেতাকর্মীরা। এটি আওয়ামী লীগসহ অন্য রাজনৈতিক দলগুলোর জন্যে বাড়তি সুযোগ। 

জানতে চাইলে স্থানীয় সরকারমন্ত্রী ইঞ্জিনিয়ার খোন্দকার মোশাররফ হোসেন বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, সরকার চায় স্থানীয় সরকার নির্বাচনে সব দলের অংশগ্রহণ নিশ্চিত করতে। সব দলের অংশগ্রহণেই শুধু একটি নির্বাচন উৎসবমুখর হতে পারে। তিনি বলেন, এবার এই নির্বাচন দলীয়ভাবে হওয়ার কারণে উৎসবের মাত্রা আগের চেয়ে দ্বিগুণ হবে।

জানতে চাইলে আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য ও স্বাস্থ্যমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, অংশগ্রহণমূলক নির্বাচনের ব্যাপারে আওয়ামী লীগ সবসময়েই পক্ষে। এরই অংশ হিসেবে স্থানীয় সরকার নির্বাচনে সব দলের অংশগ্রহণ চায় আওয়ামী লীগ। এজন্যে বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের সঙ্গে আলাপ-আলোচনার প্রয়োজন পড়লে আওয়ামী লীগ তা করবে।

/এএইচ/

***বাংলা ট্রিবিউনে প্রকাশিত কোনও সংবাদ, কলাম, তথ্য, ছবি, কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার দণ্ডনীয় অপরাধ। অনুমতি ছাড়া ব্যবহার করলে কর্তৃপক্ষ আইনি ব্যবস্থা গ্রহণ করবে।