রাত ০৫:৩০ ; মঙ্গলবার ;  ১৯ নভেম্বর, ২০১৯  

বিদেশি বিনিয়োগকারীদের জন্য ১০০টি বিশেষ অর্থনৈতিক অঞ্চল

প্রকাশিত:

বাংলা ট্র্রিবিউন রিপোর্ট ॥

বাংলাদেশ আন্তর্জাতিক বাণিজ্যে সফলভাবে এগিয়ে যাবার সক্ষমতা অর্জন করেছে। বাংলাদেশ এখন সম্ভাবনার দেশ। এখানে এখন চমৎকার বিনিয়োগের পরিবেশ বিরাজ করছে। বাংলাদেশ সরকারের বিনিয়োগ বান্ধব নীতি এবং প্রদত্ত সুযোগ সুবিধা বিদেশী বিনিয়োগকারীদে আকৃষ্ট করছে বলে জানিয়েছেন বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ।

বাণিজ্যমন্ত্রী বুধবার ব্যাংককে অনুষ্ঠিত জাতিসংঘের আন্ডার সেক্রেটারি জেনারেল এবং ইউএনএসক্যাপ এর এক্সিকিউটিভ সেক্রেটারি ড. শামশাদ আখতার সঞ্চালনায় ‘এশিয়া প্যাসিফিক পার্টিসিপেশন ইন ভেলু চেইনঃ দি রোল অব ট্রেড অ্যান্ড ইনভেস্টমেন্ট পলিসিস’ বিষয়ে প্যানেল আলোচনায় বক্তৃতাকালে এ সব কথা বলেন।

এ পর্বে অন্যান্যের মধ্যে আলোচনায় অংশ নেন শ্রীলংকার স্পেশাল অ্যাসাইনমেন্ট বিষয়ক মন্ত্রী শ্বরথ অমুনুগামা, ইউনাইটেড আরব আমীরাতের দুবাই ডেভেলপমেন্ট অব ইকোনমিক ডেভেলপমেন্ট-এ নির্বাহী পরিচালক রায়েদ সাফাদি, হংকং ইউনিভার্সিটির এশিয়া গ্লোবাল ইনস্টিটিউট-এর পেট্রিক ল, থাইল্যান্ড জয়েন্ট ফরেন চেম্বার অফ কমার্স-এর চেয়ারম্যান স্ট্যানলি কাং। অনুষ্ঠানে ট্রেড অ্যান্ড ইনভেস্টমেন্ট ডিভিশনের পরিচালক এশিয়া প্যাসিফিক ট্রেড অ্যান্ড ইনভেষ্টমেন্ট রিপোর্ট-২০১৫ উপস্থাপন করেন।

থাইল্যান্ডে নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত সাঈদা মুনা তাসনিম এ সময় বাণিজ্যমন্ত্রীর সঙ্গে ছিলেন।

বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, ইতিমধ্যে অনেক বিদেশি বিনিয়োগকারী বাংলাদেশে বিনিয়োগে এগিয়ে আসতে শুরু করেছে।  বিনিয়োগকারীদের জন্য দেশব্যাপী ১০০টি বিশেষ অর্থনৈতিক অঞ্চল গড়ার পরিকল্পনা হাতে নেওয়া হয়েছে। এখানে বিদেশিদের অগ্রাধিকার দেওয়া হবে।

তিনি বলেন, এশিয়া প্যাসিফিক পার্টিসিপেশন ইন ভেলু চেইন-এ বাংলাদেশ গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখার সক্ষমতা অর্জন করেছে। তৈরি পোশাক রফতানিতে বাংলাদেশ পৃথিবীর মধ্যে দ্বিতীয় বৃহত্তম দেশ। তৈরি পোশাকের জন্য বাংলাদেশ পৃথক ইন্ডাস্ট্রিয়াল পার্ক নির্মাণ করছে।  আগামী ২০২১ সালে বাংলাদেশ শুধু তৈরি পোশাক রফতানি করে ৫০ বিলিয়ন মার্কিন ডলার আয় করার পরিকল্পনা করে এগিয়ে যাচ্ছে। পাশাপাশি ঔষধ, আইসিটি, জাহাজ নির্মাণ, ফার্নিচার খাতে বাংলাদেশের বিপুল সম্ভাবনা রয়েছে।

/এসআই/এফএইচ/

***বাংলা ট্রিবিউনে প্রকাশিত কোনও সংবাদ, কলাম, তথ্য, ছবি, কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার দণ্ডনীয় অপরাধ। অনুমতি ছাড়া ব্যবহার করলে কর্তৃপক্ষ আইনি ব্যবস্থা গ্রহণ করবে।