রাত ০৫:৪৮ ; মঙ্গলবার ;  ১৯ নভেম্বর, ২০১৯  

গৃহায়ন তহবিল প্রধানমন্ত্রীর নিজস্ব চিন্তাপ্রসূত প্রকল্প: গভর্নর

প্রকাশিত:

বাংলা ট্রিবিউন রিপোর্ট ॥

বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নর ড. আতিউর রহমান বলেছেন, গৃহায়ন তহবিল প্রধানমন্ত্রীর নিজস্ব চিন্তাপ্রসূত একটি প্রকল্প। বৈষম্যহীন সমাজ প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যে সমাজের অসহায় দরিদ্র মানুষগুলোর ভাগ্য উন্নয়নের জন্য বিভিন্ন পদক্ষেপ গ্রহণের পাশাপাশি বেসরকারী সংস্থাগুলোকে সম্পৃক্ত করে তাদের নিরাপদ বাসস্থান, স্বাস্থ্যসম্মত স্যানিটেশন, শিক্ষা ইত্যাদি নিশ্চিতকরণের জন্য প্রধানমন্ত্রী নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছেন।

২০১৫-২০৩০ সালের মধ্যে দারিদ্র ও ক্ষুধামুক্ত বিশ্ব বিনির্মাণে টেকসই উন্নয়নে যে লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারিত হয়েছে, প্রধানমন্ত্রীর নেতৃত্বে তা অর্জন করতে বাংলাদেশ সক্ষম হবে বলে জানান গভর্নর।

রবিবার বাংলাদেশ ব্যাংকের উদ্যোগে বাংলাদেশ ব্যাংক ট্রেনিং একাডেমিতে অনুষ্ঠিত ‘সুবিধাবঞ্চিত জনগোষ্ঠীর আবাসন সমস্যা দূরীকরণে গৃহায়ন তহবিল’ শীর্ষক কর্মশালায় বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নর ড. আতিউর রহমান এ সব কথা বলেন।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের মুখ্য সচিব আবুল কালাম আজাদ এবং বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন অর্থ মন্ত্রণালয়ের ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিভাগের সচিব ড. এম আসলাম আলম।

এ ছাড়া, উক্ত অনুষ্ঠানে গৃহায়ন তহবিল স্টিয়ারিং কমিটির সদস্যবৃন্দ, নিবন্ধনকারী কর্তৃপক্ষের উর্ধ্বতন কর্মকর্তাবৃন্দ, গৃহায়ন ঋণ বাস্তবায়নকারী এনজিও’র নির্বাহী প্রধান ও প্রতিনিধিবৃন্দ এবং গৃহায়ন তহবিল ঋণ কার্যক্রমের সুবিধাভোগীগণ উপস্থিত ছিলেন।

বাংলাদেশ ব্যাংকের নির্বাহী পরিচালক আবদুর রহিম গৃহায়ন তহবিল গঠনের লক্ষ্য, উদ্দেশ্য, সংক্ষিপ্ত পরিচিতি, সফলতা, অগ্রগতি এবং ভবিষ্যত পরিকল্পনার বিষয়ে সূচনা বক্তব্য উপস্থাপন করেন।

অনুষ্ঠানে গভর্নর আরও বলেন, গৃহায়ন ঋণ কার্যক্রমের সফলতা নির্ভর করে ঋণ বাস্তবায়নকারী এনজিওদের দক্ষতার সাথে ঋণ বিতরণ ও আদায় ব্যবস্থাপনার উপর। এ ক্ষেত্রে তিনি গৃহায়ন তহবিল ও সংশ্লিষ্ট এনজিও’র মধ্যে নিবিড় যোগাযোগ রক্ষার বিষয়ে তাগিদ প্রদান করেন।

ওয়ার্কশপে আগত এনজিও’র নির্বাহী প্রধানগণ স্বল্প সুদহারে এবং সহজ শর্তে সমাজের সুবিধাবঞ্চিত দরিদ্র জনগোষ্ঠীর গৃহ নির্মাণের জন্য গৃহায়ন তহবিলের মত প্রকল্প গ্রহণের জন্য বাংলাদেশ ব্যাংকসহ সরকারের সংশ্লিষ্ট সকলকে ধন্যবাদ জানান। তাঁরা গৃহ ঋণের সিলিং বৃদ্ধি, গৃহ ঋণের পাশাপাশি সুবিধাভোগীদেরকে আয় উপার্জন কর্মকান্ডে সম্পৃক্ত করার জন্য নির্দিষ্ট অংকের ঋণ প্রদান, স্বাস্থ্যসম্মত স্যানিটারি ল্যাট্রিন নির্মাণ, বাংলাদেশের যে সকল অঞ্চলে এখনো বিদ্যুৎ সুবিধা সম্প্রসারিত হয়নি সে সকল অঞ্চলে সোলার এনার্জি লাইটের ব্যবস্থা করা, সামাজিক দায়বদ্ধতার অংশ হিসেবে প্রতিবন্ধীদের জন্য অনুদান ভিক্তিক গৃহ নির্মাণের উদ্যোগ নেওয়া এবং লবনাক্ত এলাকায় গৃহের চাল হিসেবে বিদ্যমান টিন শীটের বিকল্প হিসেবে এ্যাডবেষ্টর সিমেন্ট শীট ব্যবহারে অনুমতি প্রদান, মাঠ পর্যায়ে ঋণ আদায়ে জেলা ও উপজেলা পর্যায়ে প্রশাসনিক সহযোগিতা নিশ্চিত করার লক্ষ্যে প্রয়োজনীয় নীতিমালা প্রণয়নের জন্য গৃহায়ন তহবিল কর্তৃপক্ষকে অনুরোধ করেন। তাছাড়া এনজিওদের মাধ্যমে কর্মজীবি মহিলাদের আবাসনের নিমিত্ত হোষ্টেল, ডরমেটরি নির্মাণের জন্য যে নীতিমালা প্রণীত হয়েছে তা বাস্তবায়নের জন্যও অনুরোধ জানান।

গৃহায়ন তহবিল ঋণ কার্যক্রমের আওতায় ঋণ সুবিধা গ্রহণকারী সুবিধাভোগীগণ সরকারের এই উদ্যোগের জন্য প্রধানমন্ত্রীকে ধন্যবাদ জানান। একটি নিরাপদ বাসস্থান প্রাপ্তি এবং আয় উপার্জনমূলক কর্মকান্ডে নিজেদেরকে সম্পৃক্ত করতে পারায় জীবনমান বৃদ্ধিসহ সামাজিক মর্যাদা বৃদ্ধি পাওয়ায় তাঁরা সন্তোষ্টি প্রকাশ করেন।

অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের মুখ্য সচিব আবুল কালাম আজাদ ওয়ার্কশপে আগত এনজিও’র নির্বাহী প্রধান ও ঋণ গ্রহীতাদের সুপারিশগুলো প্রযোজ্য নীতিমালা ও বাস্তবতার নিরিখে সক্রিয়ভাবে বিবেচনা করার আশ্বাস দেন। তিনি মাঠ পর্যায়ে ঋণ আদায়ে এনজিওদের কিভাবে প্রশাসনিক সহযোগিতা প্রদান করা যায় তার কর্মকৌশল নির্ধারণে প্রয়োজনীয় সুপারিশমালা প্রণয়নের জন্য গৃহায়ন তহবিলকে নির্দেশনা প্রদান করেন।

ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিভাগের সচিব ড.এম আসলাম আলম গৃহায়ন ঋণ কার্যক্রমকে আরও সফলভাবে বাস্তবায়নের জন্য তাঁর বিভাগ হতে গৃহায়ন তহবিলকে সম্ভাব্য সকল ধরণের সহযোগিতা প্রদানের আশ্বাস প্রদান করেন।

/এসআই/এফএইচ/

***বাংলা ট্রিবিউনে প্রকাশিত কোনও সংবাদ, কলাম, তথ্য, ছবি, কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার দণ্ডনীয় অপরাধ। অনুমতি ছাড়া ব্যবহার করলে কর্তৃপক্ষ আইনি ব্যবস্থা গ্রহণ করবে।