ভোর ০৬:১৫ ; মঙ্গলবার ;  ১৯ নভেম্বর, ২০১৯  

জয়পুরহাটে শিল্প স্থাপনে ইডিএফ সহায়তা: গভর্নর

প্রকাশিত:

সম্পাদিত:

শফিকুল ইসলাম, জয়পুরহাট থেকে।।

বাংলাদেশে ব্যাংকের গভর্নর ড. আতিউর রহমান বলেছেন, রাজনীতিক ব্যক্তি, প্রশাসন এবং ব্যাংকাররা সহায়তা করলে জয়পুরহাটে বৃহদায়তন শিল্প স্থাপন সম্ভব। এক্ষেত্রে বাংলাদেশ ব্যাংক রফতানি উন্নয়ন তহবিল (ইডিএফ) থেকে যন্ত্রাংশ কেনায় সহায়তা করবে।

সোমবার জয়পুরহাট সার্কিট হাউজ ময়দানে কৃষি ঋণ এবং কর্মসংস্থান সহায়তা মেলার উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে তিনি এ কথা বলেন। মেলার আয়োজন করে বাংলাদেশ ব্যাংক বগুড়া অঞ্চল এবং স্থানীয় সকল বাণিজ্যিক ব্যাংক।

অনুষ্ঠানে আরও বক্তব্য দেন স্থানীয় সংসদ সদদ্য (জয়পুরহাট-১) অ্যাডভোকেট সামসুল হক দুদু, সংসদ সদস্য (জয়পুরহাট-২) আবু সাঈদ আল মাহমুদ স্বপন, জনতা ব্যাংকের উপ ব্যবস্থাপনা পরিচালক (ডিএমডি) আসাদ ইসলাম, রাজশাহী কৃষি উন্নয়ন ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) মঞ্জুর আহমেদ, জয়পুরহাট জেলা পরিষদ প্রশাসক এস এম সোলায়মান আলী, পুলিশ সুপার মোল্লা নজরুল ইসলাম প্রমুখ।

এতে সভাপতিত্ব করেন ভারপ্রাপ্ত জেলা প্রশাসক তোফাজ্জল হোসেন।

গভর্নর বলেন, “তলাবিহীন ঝুড়ি থেকে অর্থনীতিক উন্নয়নের বিস্ময়কর নাম বাংলাদেশ। এক সময় আমাদের রিজার্ভ ১ বিলিয়ন ডলারও ছিলনা। তখন সোনার বিপরীতে কানাডার দেওয়া ঋণ নিয়ে আমরা আইএমএফের সদস্যপদ লাভ করি। আর সেই রিজার্ভ অচিরেই ২৭ বিলিয়ন ডলারে উন্নীত হবে।”

তিনি বলেন, “চলতি বছর ১৭ হাজার কোটি টাকার কৃষি ঋণ বিতরণ করেছি। কৃষক, ক্ষুদ্র উদ্যোক্তারা ঋণের টাকা মেরে দেয় না। তাই সরকারি ব্যাংকের পাশাপাশি বেসরকারি এমনকি বিদেশি ব্যাংক এদেরকে ঋণ দিতে গ্রাম-গঞ্জে ছুটছে।”

ব্যাংকিং সেবা বিষয়ে আতিউর রহমান বলেন, “আগে ব্যাংকিং সেবা বিষয়ে একটা প্রবাদ ছিল, ‘বৃষ্টি হলে ব্যাংকাররা ছাতা কেড়ে নেয়’। ব্যাংকারদের মনোজগতে পরিবর্তন এসেছে, বৃষ্টি হলে তারা এখন ছাতা এগিয়ে দেয়।”

জয়পুরহাট থেকে কর্মসূচি শেষ করে বগুড়া ফিরে গভর্নর বাংলাদেশ ব্যাংক বগুড়া অঞ্চলের জন্য আধুনিক একটি রেস্ট হাউজ উদ্ধোধন করেন।

উল্লেখ্য, রফতানিতে উৎসাহ প্রদানে বাংলাদেশ ব্যাংকের ৪ হাজার কোটি টাকার একটি ইডিএফ তহবিল রয়েছে।

/এফএইচ/

***বাংলা ট্রিবিউনে প্রকাশিত কোনও সংবাদ, কলাম, তথ্য, ছবি, কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার দণ্ডনীয় অপরাধ। অনুমতি ছাড়া ব্যবহার করলে কর্তৃপক্ষ আইনি ব্যবস্থা গ্রহণ করবে।