রাত ১১:১১ ; রবিবার ;  ২০ অক্টোবর, ২০১৯  

বাবল ফুটবল!

প্রকাশিত:

নাঈম রায়হান ভূঁইয়া।।

বুদ্ধিটা প্রথম ভর করেছিল নরওয়ের দুই বন্ধুর মাথায়। ২০১১ সালের দিকে হেনরিক এলভেসতাদ ও জোহান গোল্ডেন ভাবলেন, ফুটবল খেলাটার মধ্যে কোনোও বৈচিত্র্য নেই। একটা বল নিয়ে বাইশ জনের ছোটাছুটি। এক কাজ করে দেখা যাক, ফুটবলে পরিবর্তন না এনে খেলোয়াড়দের পাল্টে দেয়া যেতে পারে। সবার মাথায় বসিয়ে দেয়া হোক একটা করে প্লাস্টিকের বাবল। দেখে যেন মনে হয় মাঠের মধ্যে অনেকগুলো বুদবুদ ছোটাছুটি করছে।

মাপমতো বাবল বানিয়ে দুই জনে মিলে তৈরি করলেন নতুন এ ফুটবল খেলার ভিডিও। যথারীতি সেটা পোস্ট করলেন ইউটিউবে। হুজুগে বিশ্ব মেতে উঠল নতুন ফুটবল পেয়ে। বছরখানেকের মধ্যেই ইতালি থেকে লাতভিয়া পর্যন্ত পৌঁছে গেল বাবল ফুটবল। খেলতে শুরু করল গোটা ইউরোপ। বড় বড় ম্যাচও অনুষ্ঠিত হলো। আর এ ফুটবল খেলতে যে বাবল লাগে, সেটা বিক্রি করতে চালু হয়ে গেল গাদাখানেক অনলাইন স্টোরও। দেখতে মজার হলেও খেলাটা ততটাই কঠিন। নিজের ভারসাম্য রক্ষা করতেই হিমশিম খেতে হয় খেলোয়াড়দের। আর একবার পড়ে যাওয়া মানেই চিত্পটাং আর গড়াগড়ি। তবে বাবলের ভেতর থাকায় আহত হওয়ার চান্স নেই বললেই চলে।

/আরএফ/

***বাংলা ট্রিবিউনে প্রকাশিত কোনও সংবাদ, কলাম, তথ্য, ছবি, কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার দণ্ডনীয় অপরাধ। অনুমতি ছাড়া ব্যবহার করলে কর্তৃপক্ষ আইনি ব্যবস্থা গ্রহণ করবে।