সকাল ১১:৩৬ ; বুধবার ;  ২০ জুন, ২০১৮  

আলোয় আঁধারে আকনের মিনিয়েচার

প্রকাশিত:

এহতেশাম ইমাম।।

তুমি বললে-একা থাকি,

আমি বললাম একা।

খুঁজে দেখো আমাদের মতো

প্রকৃতিও বড় একা।

প্রকৃতি ও মানুষের এ মেলবন্ধনের একটি বড় জায়গা জুড়ে আছে মনস্তাত্বিক ভাব বিনিময়। তবে শুধু প্রকৃতি নয়, জীবনের বিভিন্ন ক্ষেত্রে অসংখ্য না বলা কথাগুলো প্রকাশ করতে হবে। সেই সূত্র ধরে চিত্রশিল্পকে খুঁজে নেওয়া অনুভূতি প্রকাশের মাধ্যম হিসেবে। আর চিত্রশিল্পের একটি মাধ্যম মিনিয়েচার।

জীবনের বিভিন্ন সময় ও মুহূর্তের অনুভূতিগুলোকে একসঙ্গে মিনিয়েচার শিল্পের মাধ্যমে ফ্রেমবন্দী করেছেন তরুণ চিত্রশিল্পী আমিনুল ইসলাম আকন। জলরং, অ্যাক্রেলিক, কালি-কলম এবং মিশ্র মাধ্যমে করা ১৩৭টি চিত্রকর্ম এখন এককভাবে প্রদর্শীত হচ্ছে  ‘আলোয় আঁধারে’

শিরোনামে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের চারুকলা অনুষদের জয়নুল গ্যালারিতে।

৪/ ৫ ইঞ্চির ক্ষুদে চিত্রপটে আকন তুলে তুলে ধরেছেন তার শিল্পানুভূতি। ছবিগুলোতে উঠে এসেছে যাপিত জীবনের নানা অনুসঙ্গ,ভালবাসা,বিরহ,আনন্দ-বেদনা, নানান পরিস্থিতির কথা। যা বোঝা যায় শিল্পীর বিভিন্ন কর্মের নাম দেখলেই। প্রকৃতি ও একা থাকে, পরিত্যক্ত সময়, রক্তক্ষরণ,ঘৃণা, নীরব উল্লাস, ঘোর, প্রতিরোধ, বন্দি স্বপ্ন, বন্দিজীবন, বিচ্ছেদ, অবলম্বন,অবসান, নস্টালজিয়া, বৃত্তের বাইরে থেকে শুরু করে বন্দনা, আশ্রয়সহ বিভিন্ন নামকরণের সঙ্গে মিলিয়ে বিমূর্ত ধারায় যেন ছোট ছোট ক্যানভাসে ফুটিয়ে তোলার চেষ্টা করেছেন তার চিত্রগল্প। আর এই প্রতিটি চিত্রের সঙ্গে শিল্পী যোগ করেছেন একটি করে ছন্দে মেলানো শব্দ সম্ভার।

নিজের প্রকাশ ভঙ্গির মাধ্যম হিসেবে মিনিয়েচার কেন বেছে নিলেন সে ব্যাখ্যা দিলেন আকন । তিনি বলেন,“ক্যানভাসে ছবি আঁকছি দীর্ঘদিন। কিন্তু, ক্ষুদ্র ক্যানভাসে ছবি আঁকার বিষয়টি অনেকটা চ্যালেঞ্জ। ছোট্ট পরিসরে রংয়ের স্পষ্ট ব্যবহার আর ব্রাশের স্ট্রোকগুলো স্পষ্ট করে তুলে ধরতে পারাটা নিজের কাছে এক একটা অর্জন।”

আকন খুব আক্ষেপ করে জানালেন,  দেশে মিনিয়েচার কাজ করার প্রবণতা কমে যাওয়ার বিষয়টি। তিনি জানান,“দেশে মিনিয়েচার শিল্পকর্ম নিয়ে প্রদর্শনী খুব কমই হয়েছে। তবে চেষ্টা করেছি মানুষের বাস্তবতায় আধুনিক ও পরাবাস্তব অনুভূতির প্রকাশের। আর রংয়ের গাঢ় ব্যবহার আমার সকল চাওয়ার পাওয়ার বহিঃপ্রকাশ।”

 

 

ব্যক্তিজীবনে একটি ঔষধ কোম্পানির গ্রাফিক্স প্রধান হিসেবে কর্মরত আমিনুল ইসলাম আকন  তার এই ১৩৭টি ছবি আঁকা সম্পন্ন করেছেন গত তিন বছরে। এ সময়টিকে তিনি তুলনা করেছেন তার দুই যমজ সন্তানের সঙ্গে। বিষয়টি ব্যাখ্যা করে তিনি জানান,আমার সন্তানদের জন্মের সময় থেকে এই ছবিগুলো আঁকা শুরু করেন তিনি। ভবিষ্যতেও কাজ করতে চান চিত্রশিল্পের অন্যান্য মাধ্যম নিয়েও।

গত ১১ অক্টোবর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় চারুকলা অনুষদের ডীন শিল্পী নিসার হোসেনের সভাপতিত্বে প্রদর্শনীটি উদ্বোধন করেন বরেণ্য চিত্রশিল্পী সমরজিৎ রায় চৌধুরী। সম্মানিত অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বিশিষ্ট শিল্প সমালোচক অধ্যাপক নজরুল ইসলাম এবং কেন্দ্রীয় খেলাঘর আসরের চেয়ারপার্সন অধ্যাপিকা মাহফুজা খানম।

/এফএএন/

 

***বাংলা ট্রিবিউনে প্রকাশিত কোনও সংবাদ, কলাম, তথ্য, ছবি, কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার দণ্ডনীয় অপরাধ। অনুমতি ছাড়া ব্যবহার করলে কর্তৃপক্ষ আইনি ব্যবস্থা গ্রহণ করবে।