সন্ধ্যা ০৭:০২ ; শনিবার ;  ২১ জুলাই, ২০১৮  

আর নয়- গরুর মাংসে ভয়

পুষ্টিবিদের পরামর্শ

প্রকাশিত:

সম্পাদিত:

লাইফস্টাইল ডেস্ক ।।

পুষ্টিবিদ আদিবা ফারজিন

ঈদ শেষ হয়েও যেন হচ্ছে না। ঘরে ঘরে এখনও চলছে গরুর মাংস খাওয়ার মহোৎসব। কিন্তু পুষ্টিমূল্যে ভরপুর হওয়া সত্ত্বেও অনেকে ভয় পান গরুর মাংস খেতে। আবার অনেকে বেশি পরিমাণে খেয়ে হয়ে পড়েন অসুস্থ। কিন্তু গরুর মাংস যে শুধু অপকার করে তা না। আজ গরুর মাংসের উপকারিতা সম্পর্কে জানাচ্ছেন পুষ্টিবিদ আদিবা ফারজিন।

উপকারিতা:

  • গরুর মাংসে আছে প্রচুর পরিমাণে প্রোটিন যা পেশী গঠনে সাহায্য করে।
  • এতে আছে জিংক যা রোগ প্রতিরোধ আর ক্ষয় পূরণে সাহায্য করে।
  • ভিটামিন বি১২ , বি৬ , থায়ামিন,নায়াসিন ও রিবোফ্ল্যাভিনের ভাল উৎস হচ্ছে গরুর মাংস।
  • প্রচুর পরিমাণ সেলেনিয়ামও পাওয়া যায়।
  • শিশুদের শারীরিক বৃদ্ধি, মানসিক বিকাশে, রক্তকণিকা তৈরিতে এবং অ্যানিমিয়া দূর করতে প্রোটিন, আয়রন, জিংক , ভিটামিন বি প্রয়োজন যা আছে গরুর মাংসে।
  • কিছু গবেষণায় দেখা গেছে,গরুর মাংসে বিদ্যমান conjugated linoleic acid (CLA) cancer প্রতিরোধে সাহায্য করে।
  • Creatine   থাকে গরুর মাংসে যা মস্তিষ্ক ও পেশীতে শক্তি সংরক্ষন করে।
  • কিছু polyunsaturated acids বিশেষ করে  eicosapentaenoic acid (EPA), docosahexaenoic acid (DHA) পাওয়া যায় শুধুমাত্র প্রাণীজ উৎস হতেই যা Anti-atherogenic, anti-thrombotic and anti-inflammatory হিসেবে কাজ করে।

 

চর্বির ভয়ে যারা মাংস খান না, তাদের জন্য টিপস:

  • যেসব অংশে চর্বি কম থাকে বা থাকে না যেমন রানের মাংস নির্বাচন করুন।
  • যে চর্বি দেখা যায় তা কেটে বাদ দিন।
  • তেল কম লাগে (যেমন roasting, broiling, grilling) এমন পদ্ধতিতে রান্না করুন।
  • সাথে সবজি যোগ করুন।
  • তিন আউন্সের বেশি মাংস খাবেন না।   

 

সুতরাং বাড়ন্ত বয়সী শিশু, সুস্থ মানুষ সকলেই খেতে পারেন গরুর মাংস। তবে যাদের হার্টের রোগ, ডায়বেটিস, ওজনাধিক্য প্রভৃতি সমস্যা আছে তারা যথাসম্ভব কম খাবেন।

 

আরএফ

 

***বাংলা ট্রিবিউনে প্রকাশিত কোনও সংবাদ, কলাম, তথ্য, ছবি, কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার দণ্ডনীয় অপরাধ। অনুমতি ছাড়া ব্যবহার করলে কর্তৃপক্ষ আইনি ব্যবস্থা গ্রহণ করবে।