ভোর ০৬:৩৪ ; শনিবার ;  ১৯ অক্টোবর, ২০১৯  

গাইবান্ধায় জামায়াত কর্মীকে কুপিয়ে হত্যা

প্রকাশিত:

সম্পাদিত:

গাইবান্ধা প্রতিনিধি।।

গাইবান্ধার গোবিন্দগঞ্জ উপজেলায় পূর্ব শত্রুতার জেরে শাহ আলম মিয়া (৪৫) নামে এক জামায়াত কর্মীকে কুপিয়ে হত্যা করেছে দুর্বৃত্তরা। বৃহস্পতিবার রাত ৯টার দিকে উপজেলার কাটাবাড়ি ইউনিয়নের নাসিরাবাদ বাজার এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

শাহ আলম পেশায় চাতাল ব্যবসায়ী ছিলেন। তিনি কাটাবাড়ি ইউনিয়নের বগলাগাড়ী গ্রামের মৃত আজিজুল হকের ছেলে।

এ হত্যাকাণ্ডে শুক্রবার আব্দুল মালেক (৫০) নামে এক ব্যক্তিকে আটক করেছে পুলিশ।

গোবিন্দগঞ্জ থানার ওসি মোজাম্মেল হক জানান, বৃহস্পতিবার রাত সাড়ে ৮টার দিকে উপজেলার কাটাবাড়ি ইউনিয়নের নাসিরাবাদ বাজারে একটি হোটেলে বসেছিলেন শাহ আলম। এ সময় হঠাৎ করেই এলাকার চিহিৃত সন্ত্রাসী ও মাদক ব্যবসায়ী আবুল হোসেনের নেতৃত্বে ১০/১১ জন তার ওপর হামলা করে। তারা টেনে হিঁচড়ে তাকে সেখান থেকে বের করে নিয়ে যায়। পাশের একটি বট গাছের নিচে তাকে কুপিয়ে হত্যা করে এবং লাশ ফেলে পালিয়ে যায়। খবর পেয়ে রাত সাড়ে ১১টার দিকে পুলিশ তার লাশ উদ্ধার করে। শুক্রবার ময়নাতদন্তের জন্য গাইবান্ধা আধুনিক হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়।

ওসি মোজাম্মেল হক জানান, নিহত শাহআলম একজন চিহ্নিত সন্ত্রাসী। তার বিরুদ্ধে নাশকতার ঘটনায় গোবিন্দগঞ্জ থানায় ৮/১০ মামলা আছে। 

এদিকে নিহতের স্ত্রী রেনু বেগম জানান, কিছুদিন আগে মাদক ব্যবসায়ী আবুল হোসেনসহ স্থানীয় তিন গাঁজা ব্যবসায়ী পুলিশের হাতে আটক হয়। পরে ভ্রাম্যমান আদালতের বিচারক তাদেরকে তিন দিনের কারাদণ্ড দেয়। তার স্বামী পুলিশকে খবর দিয়ে তাদেরকে আটক করেছিল বলে সন্দেহ করে সম্প্রতি তারা জেল থেকে বের হয়ে এসে শাহ আলমকে হত্যার হুমকি দিতে থাকে।

গোবিন্দগঞ্জ থানার ওসি (তদন্ত) আমিনুল ইসলাম জানান, নিহতের মাথা ও কপালসহ শরীরের বিভিন্ন স্থানে ধারালো অস্ত্রের আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। ধারণা করা হচ্ছে, পূর্ব শক্রতার জেরে এ হত্যাকাণ্ড ঘটেছে। এনিয়ে নিহতের স্ত্রী রেনু বেগম শুক্রবার সকালে ১১ জনকে আসামি করে গোবিন্দগঞ্জ থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেছেন।

/এসএম/এফএস/

 

***বাংলা ট্রিবিউনে প্রকাশিত কোনও সংবাদ, কলাম, তথ্য, ছবি, কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার দণ্ডনীয় অপরাধ। অনুমতি ছাড়া ব্যবহার করলে কর্তৃপক্ষ আইনি ব্যবস্থা গ্রহণ করবে।